ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

হর্ষর সঙ্গে দুর্ব্যবহার করায় অনুতপ্ত সঞ্জয় মঞ্জরেকর

২০১৯ তাঁর পেশাদারি জীবনের সবচেয়ে খারাপ কেটেছে, বলে জানান প্রাক্তন ক্রিকেটার।

ক্রিকেট বিশ্লেষক হিসাবে ২০১৯ তার জীবনের সবচেয়ে খারাপ বছর বলে জানিয়েছেন সঞ্জয় মঞ্জরেকর। এক সাক্ষাত্কারে তিনি জানিয়েছেন যে রবীন্দ্র জাডেজার সঙ্গে তাঁর যে বিবাদ হয়ে ও পরে হর্ষ ভোগলেকে তিনি যেভাবে কথা শুনিয়েছিলেন, সেটা খুব খারাপ ছিল।

সঞ্জয় বলেন যে জাডেজাকে বিটস অ্যান্ড পিসেস ক্রিকেটার বলা নিয়ে তিনি অনুতপ্ত নন। কারণ এই টার্মটি ক্রিকেটে ব্যবহার করা হয়। তিনি বলেন যে জাডেজাকে বিটস অ্যান্ড পিসেস ক্রিকেটার বলার পর যেভাবে বাঁহাতি খেলোয়াড় বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে খেলেছিল, তাতে তাঁর মতামতটি ভুল প্রমাণিত হয়ে যায়। প্রসঙ্গত টুইটারে সঞ্জয়কে একহাত নিয়েছিলেন জাদেজা এবং মনে করিয়ে দিয়েছিলেন যে তিনি দ্বিগুন বেশি ক্রিকেট খেলেছেন। এরপর বিবাদ মেটোনার জন্য জাদেজার সঙ্গে বাইরে কোনও কথা হয়নি বলেই জানান সঞ্জয়।

তবে এই ক্রিকেট খেলা নিয়েই হর্ষকে কমেন্ট্রি করার সময় খোঁটা দিয়েছিলেন সঞ্জয়, যেটির জন্য অত্যন্ত লজ্জিত তিনি। কলকাতায় পিঙ্ক বল টেস্টের সময় অন-এয়ার বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন দুই ধারাভাষ্যকার। সঞ্জয় মঞ্জরেকর তখন বলেন যে যারা ক্রিকেট খেলেছে তাঁদের কাছে সাফ যে খুব ভালো ভাবে দেখা যাচ্ছে গোলাপী বল। সঞ্জয়ের এই অপমানজনক কথার বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সোচ্চার হয় টুইটার। এদিন অবশ্য দ্বর্থ্যহীন ভাবে নিজের আচরণের জন্য ক্ষমা চান সঞ্জয়।

তাঁর মতে তিনি অপেশাদার ব্যবহার করেছিলেন, নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেননি। এটি ভুল ও তিনি এর জন্য অনুতপ্ত বলে জানান সঞ্জয়। শুধু অপেশাদার নয়, তাঁর ব্যবহার অশোভনও ছিল বলে মনে করেন তিনি। এই বাদানুবাদ হওয়ার পরেই অনুষ্ঠানের প্রযোজকের কাছে তিনি ক্ষমা চান বলে জানিয়েছেন সঞ্জয়। তবে হর্যর কাছে তিনি ক্ষমা চেয়েছেন কিনা, সেই নিয়ে কিছু বলেননি তিনি।

বন্ধ করুন