বাংলা নিউজ > ময়দান > সৌরভের শার্ট খোলাটা তো জানা, এবার সচিন বললেন 2002 NatWest Final-এর অজানা এক গল্প
সচিন তেন্ডুলকর বললেন 2002 NatWest Final-এর অজানা গল্প (ছবি:ইউটিউব)

সৌরভের শার্ট খোলাটা তো জানা, এবার সচিন বললেন 2002 NatWest Final-এর অজানা এক গল্প

  • যুবরাজ এবং কাইফের মধ্যে অংশীদারিত্বের সময় তেন্ডুলকর ড্রেসিংরুমের পরিবেশ সম্পর্কে কথা বলেছেন। সেই মুহূর্তে দলের প্রতিটি সদস্যের অবস্থানের কথা জানিয়েছেন সচিন। মাঠে যখন যুবরাজ ও কাইফ লড়াই করছেন তখন প্রত্যেক ক্রিকেটারকে এক জায়গায় বসে থাকার পরামর্শ দিয়েছিলেন সচিন। কারোর জায়গা ছেড়ে ওঠার সুযোগ ছিল না।

বুধবার টিম ইন্ডিয়ার বহু প্রাক্তন ক্রিকেটার এবং ভক্তরা বিখ্যাত ন্যাটওয়েস্ট ট্রফি ফাইনালের ২০ তম বার্ষিকী উদযাপন করেছেন। সেই টুর্নামেন্টের ফাইনালে ভারত বনাম ইংল্যান্ডকে দুই উইকেটে পরাজিত করেছিল। যুবরাজ সিং ৬৯ রান এবং মহম্মদ কাইফ অপরাজিত ৮৭ রানের ইনিংস খেলেছিলেন। তাদের অবদানের উপর ভর করে ভারতীয় দল এই ঐতিহাসিক ম্যাচটি জিতেছিল। তব সেই ম্যাচে ইনিংসের শুরুতে সিনিয়র ব্যাটাররা আউট হয়ে গিয়েছিল, এরপরে একটি অসাধারণ রান তাড়া করে ভারত।

প্রকৃতপক্ষে, একপর্যায়ে, ৩২৬ রান তাড়া করতে গিয়ে ভারত ১৪৬ রানের মধ্যেই ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল ভারত। এরপরে তরুণ জুটি জয়ের দিকে দলকে এগিয়ে যায় এবং সব সমস্যা থেকে দলকে মুক্ত করে। তবে এই ম্যাচটি ও এই সিরিজটি স্মরণীয় হয়েছিল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের জন্য। কারণ এই ম্যাচ জিতে টি-শার্ট খুলে লর্ডসের গ্যালারিতে উড়িয়ে ছিলেন মহারাজ। এবার সেই ম্যাচের আরও একটি অজানা গল্প বললেন মাস্টার ব্লাস্টার। 

আরও পড়ুন… World Cup Super League Points Table: NZ-এর টানা জয়, সেরা ৫ থেকে ছিটকে গেল ভারত

লর্ডসে রান তাড়া করতে গিয়ে ১৪ রানে আউট হয়ে গিয়েছিলেন ভারতের কিংবদন্তি ক্রিকেটার সচিন তেন্ডুলকর। বিখ্যাত ফাইনালের কথা মনে করে নিজের অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে একটি ভিডিয়ো পোস্ট করেছেন সচিন। সেখানেই ম্যাচ চলাকালীন সাজঘরের পরিবেশ সম্পর্কে একটি অজানা গল্প বলেছেন। যুবরাজ এবং কাইফের মধ্যে অংশীদারিত্বের সময় তেন্ডুলকর ড্রেসিংরুমের পরিবেশ সম্পর্কে কথা বলেছেন। সেই মুহূর্তে দলের প্রতিটি সদস্যের অবস্থানের কথা জানিয়েছেন সচিন। মাঠে যখন যুবরাজ ও কাইফ লড়াই করছেন তখন প্রত্যেক ক্রিকেটারকে এক জায়গায় বসে থাকার পরামর্শ দিয়েছিলেন সচিন। কারোর জায়গা ছেড়ে ওঠার সুযোগ ছিল না। 

সচিন তেন্ডুলকর সেই ঘটনার কথা বলতে গিয়ে বলেন, ‘২৫তম ওভারের শেষে, আমরা সম্ভবত পাঁচ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিলাম। আমরা হতাশ ছিলাম কারণ আমরা অনেকগুলো উইকেট হারিয়েছিলাম। আর ক্রিজে দুই ব্যাটারই ছিল তরুণ। যুবি তার ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন মাত্র ২ বা ২.৫ বছর আগে। অন্যদিকে কাইফ সবেমাত্র দলে প্রবেশ করেছিলেন।’

আরও পড়ুন… World Cup Super League Points Table: NZ-এর টানা জয়, সেরা ৫ থেকে ছিটকে গেল ভারত

এরপরে সচিন বলেন, ‘তারা একটি রানকে দুই রানে রূপান্তরিত করছিলেন। তারা বাউন্ডারি হাঁকাচ্ছিল। ড্রেসিং রুম থেকে বার্তা দেওয়া হচ্ছিল। আমরা ইশারায় যোগাযোগ করছিলাম। যখন যুবি আক্রমণ করেছিলেন, তখন কাইফ দুর্দান্ত ভাবে সমর্থন করেছিলেন। যখন যুবি আউট হয়েছিলেন তখন কাইফ দায়িত্ব নেন এবং খেলাকে শেষ করে আসেন।’ মাস্টার ব্লাস্টার আরও বলেন, ‘আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যে ড্রেসিংরুমে তাদের জায়গা থেকে কেউ নড়বে না। আমি সবাইকে এটা বলেছিলাম।’ ‘মাস্টার ব্লাস্টার’ আরও বলেন যুবরাজ এবং কাইফ খেলার পরে তার সঙ্গে কথা বলতে এসে কী আবদার করেছিলেন।

আরও পড়ুন… World Cup Super League Points Table: NZ-এর টানা জয়, সেরা ৫ থেকে ছিটকে গেল ভারত

সচিন তেন্ডুকর বলেন, ‘দাদা তার জার্সি খুলে ফেলেছিল, এটাই সবাই জানে। কিন্তু আরেকটি গল্প আছে যেটা কেউ জানে না। খেলা শেষে যুবি এবং কাইফ আমার সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন, তারা বলেছিলেন, ‘পাজি, আমাদের পারফরম্যান্স ভালো ছিল, তবে আমাদের যদি এর চেয়েও ভালো কিছু করতে হয় তবে আমাদের কী করা উচিত?’ আমি বলেছিলাম, 'আপনারা এইমাত্র আমাদের জন্য টুর্নামেন্ট জিতিয়েছেন! আপনারা আর কি করতে চান? শুধু এটাই করতে থাকুন এরফলে ভারতীয় ক্রিকেটের ভালো যাবে। তারা আমাদের হতাশ করেনি।’ 

বন্ধ করুন