বাংলা নিউজ > ময়দান > ভারতের যে বোলারের ম্যাচের রং বদলে দেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে, তাঁকে চিনিয়ে দিলেন জাহির
মহম্মদ সিরাজ, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, মহম্মদ শামি, জাহির খান।

ভারতের যে বোলারের ম্যাচের রং বদলে দেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে, তাঁকে চিনিয়ে দিলেন জাহির

  • জাহির বলেছেন, ‘যখন আপনি জোহানেসবার্গে খেলছেন, তখন আপনার সামনে উচ্চতার সঙ্গে (১.৭৫৩ মিটার) মানিয়ে নেওয়ার চ্যালেঞ্জ থাকবে। প্রতিটি বোলারকে এই চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয়। বেশি উচ্চতায় ফিটনেস পরীক্ষিত হয়। তা ছাড়া, ফাস্ট বোলাররা সত্যিই দক্ষিণ আফ্রিকাতে বোলিং উপভোগ করেন।’

দক্ষিণ আফ্রিকায় বল করতে কেমন লাগে সে সম্পর্কে ভালো ধারণা রয়েছে জহির খানের। রামধনুর দেশে প্রাক্তন ভারতীয় বাঁ-হাতি পেসারের দুরন্ত রেকর্ড রয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকায় তিনি ৮টি টেস্ট ম্যাচ খেলে ৩০টি উইকেট নিয়েছেন। ২০১৩ সালে জোহানেসবার্গে জাহিরের পারফরম্যান্স ৪/৮৮ এবং ২০১০ সালে ডারবানে তাঁর পারফরম্যান্স ছিল ৩/৩৬। দক্ষিণ আফ্রিকায় জাহিরের সেরা বোলিং স্পেলগুলির মধ্যে দু'টি। রবিবার ভারত এবং দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যে প্রথম টেস্টের আগে, প্রাক্তন ভারতীয় পেসার মনে করেন, রামধনুর দেশের পিচগুলি ভারতীয় পেসারদের কাছে চ্যালেঞ্জিং হবে। সেখানে তাদের শক্তি প্রমাণিত হবে।

হিন্দুস্তান টাইমসে এক সাক্ষাৎকারে জাহির বলছিলেন, ‘যখন আপনি জোহানেসবার্গে খেলছেন, তখন আপনার সামনে উচ্চতার সঙ্গে (১.৭৫৩ মিটার) মানিয়ে নেওয়ার চ্যালেঞ্জ থাকবে। প্রতিটি বোলারকে এই চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয়। বেশি উচ্চতায় ফিটনেস পরীক্ষিত হয়। তা ছাড়া, ফাস্ট বোলাররা সত্যিই দক্ষিণ আফ্রিকাতে বোলিং উপভোগ করেন। কারণ টেস্ট ক্রিকেট চলাকালীন তাদের পিচ সব সময়ে চ্যালেঞ্জিং হয়। আর এই চ্যালেঞ্জটা বোলাররা উপভোগ করে থাকে।’

মহম্মদ শামি, যাকে জাহির ‘গেম-চেঞ্জিং বোলার’ বলে অভিহিত করেছেন, তাঁকে নিয়ে আশাবাদী ভারতের প্রাক্তন তারকা পেসার। ২০১৩ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা ছিল শামির প্রথম সফর আর জহিরের শেষ। সেই সফরে গিয়ে প্রাক্তন বাঁ-হাতি জোরে বোলার বাংলার পেসারকে কিছু পরামর্শও দিয়েছিলেন। আট বছর পরে, শামি ভারতের পেস বোলিং আক্রমণের মূল অস্ত্র হয়ে উঠেছেন। প্রকৃতপক্ষে শেষ বার দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে শামির সেরা পারফরম্যান্স ছিল ৫/২৮।

সে কথা মাথায় রেখে জাহির বলছিলেন, ‘ওর সাফল্য দেখে আমি অনেক বেশি উচ্ছ্বসিত ছিলাম।  ও অসাধারণ খেলেছিল। আসলে এখন সব ভারতীয় পেসারই দুর্দান্ত বোলার হয়ে উঠেছে। শামি দুর্দান্ত রেকর্ড করেছে এবং ওর সেরা দিকটি হল, গুরুত্বপূর্ণ সময়ে ও গুরুত্বপূর্ণ সাফল্য এনে দেয়।’

জাহির আরও বলেছেন, ‘ও ম্যাচের রং বদলে দিতে পারে। আমি সব সময় নিজেকে এবং অন্য বোলারদেরও বিচার করেছি, তাই বলছি ও একটি স্পেলে ২-৩টি গুরুত্বপূর্ণ উইকেট নিয়ে খেলার রং বদলে দিতে পারে। শামির সেই ক্ষমতা রয়েছে। এটা একেবারেই অবাক করার মতো বিষয় নয়, ও আমাদের বিশ্বমানের পেস আক্রমণের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।’

বন্ধ করুন