বাংলা নিউজ > ময়দান > ZIM vs BAN: অবশেষে স্বমহিমায় মুস্তাফিজুর, খোঁচা খেয়ে জেগে উঠল বাংলাদেশ, যদিও দেরি হয়ে গিয়েছে অনেক

ZIM vs BAN: অবশেষে স্বমহিমায় মুস্তাফিজুর, খোঁচা খেয়ে জেগে উঠল বাংলাদেশ, যদিও দেরি হয়ে গিয়েছে অনেক

আউটের আবেদন জানাচ্ছেন মুস্তাফিজুর। ছবি- এএফপি (AFP)

বাংলাদেশের ৫ জন ব্যাটসম্যান খাতা খুলতে পারেননি। তা সত্ত্বেও বড় ব্যবধানে ম্যাচ জিতে মান বাঁচান তামিমরা।

খোঁচা খেয়ে তবেই জেগে উঠল বাংলাদেশ। যদিও ততক্ষণে বিস্তর দেরি হয়ে গিয়েছে। সিরিজ হেরে তবেই টনক নড়ে তামিম ইকবালদের।

জিম্বাবোয়ের কাছে প্রথম ২টি ম্যাচ হেরে সিরিজ আগেই খুইয়েছিল বাংলাদেশ। নিয়মরক্ষার তৃতীয় ওয়ান ডে ম্যাচে তারা জিম্বাবোয়েকে হারিয়ে মান বাঁচায়। নাহলে স্কোরবোর্ডে বড় রান তুলতে না পারায় একসময় হোয়াইটওয়াশের আশঙ্কা চেপে বসেছিল বাংলাদেশের ঘাড়ে।

হারারে স্পোর্টস ক্লাবে সিরিজের তৃতীয় ওয়ান ডে ম্যাচে টস জিতে বাংলাদেশকে শুরুতে ব্যাট করতে পাঠায় জিম্বাবোয়ে। বাংলাদেশ নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেটের বিনিময়ে ২৫৬ রান সংগ্রহ করে। তামিম ইকবাল ১৯, এনামুল হক ৭৬, মাহমুদুল্লাহ ৩৯, আফিফ হোসেন অপরাজিত ৮৫ ও মেহেদি হাসান মিরাজ ১৪ রান করেন।

খাতা খুলতে পারেননি নাজমুল হোসেন শান্ত, মুশফিকুর রহিম, হাসান মাহমুদ, মুস্তাফিজুর রহমান ও এবাদত হোসেন। এবাদত যদিও কোনও বল খেলার সুযোগ পাননি। ব্র্যাড ইভান্স ও লিউক ২টি করে উইকেট নেন। ১টি উইকেট নেন সিকন্দর রাজা।

আরও পড়ুন:- Asia Cup 2022: কে দলে আছেন, কে নেই, অত ভেবে লাভ নেই, এশিয়া কাপে ভারত কোন বিষয়ে দুশ্চিন্তায় থাকবে, হদিশ দিলেন জয়াবর্ধনে

পালটা ব্যাট করতে নেমে জিম্বাবোয়ে শুরু থেকেই উইকেট হারাতে থাকে। তারা মাত্র ৮৩ রানে ৯ উইকেট হারিয়ে বসে। রিচার্ডকে সঙ্গে নিয়ে ভিক্টর শেষ উইকেটের জুটিতে ৬৮ রান যোগ করেন। শেষমেশ জিম্বাবোয়ে ৩২.২ ওভারে ১৫১ রানে অল-আউট হয়ে যায়। ১০৫ রানের বড় ব্যবধানে ম্যাচ জেতে বাংলাদেশ। সেই সঙ্গে তারা ৩ ম্যাচের সিরিজে ব্যবধান কমিয়ে ২-১ করে। উল্লেখ্য, সিরিজের প্রথম ওয়ান ডে ম্যাচে জিম্বাবোয়ে ৫ উইকেটে জয় তুলে নেয়। দ্বিতীয় ওয়ান ডে ম্যাচেও বাংলাদেশ পরাজিত হয় ৫ উইকেটে।

আরও পড়ুন:- ICC Ranking: বিশ্রামের সিদ্ধান্তে ক্ষতি হয়ে গেল সূর্যকুমারের, বাবরকে টপকে বিশ্বব়্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বরে ওঠা হল না SKY-এর

এই ম্যাচে জিম্বাবোয়ের হয়ে সব থেকে বেশি ৩৪ রান করেন ১০ নম্বর ব্যাটসম্যান রিচার্ড। ১১ নম্বরে ব্যাট করতে নামা ভিক্টর করেন ২৬ রান। ২৫ রান আসে অতিরিক্ত হিসাবে। খাতা খুলতে পারেননি সিকন্দর রাজা।

মুস্তাফিজুর রহমান প্রতি ম্যাচেই টুকিটাকি উইকেট নিচ্ছিলেন। তবে প্রভাবশালী বোলিং করতে পারেননি তিনি। অবশেষে সিরিজের শেষ ওয়ান ডে ম্যাচে পরিচিত ছন্দে দেখায় তাঁকে। মুস্তাফিজ ১৭ রানের বিনিময়ে ৪টি উইকেট দখল করেন। ২টি করে উইকেট নেন তাইজুল ইসলাম ও এবাদত হোসেন। ম্যাচের সেরা হয়েছেন আফিফ। সিরিজের সেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার জেতেন সিকন্দর রাজা। সিকন্দর ৩ ম্যাচের সিরিজে ২৫২ রান করার পাশাপাশি ৫টি উইকেটও নিয়েছেন।

বন্ধ করুন