বাংলা নিউজ > টেকটক > উত্সবের মরসুমে চমক! নতুন রূপে আসছে Maruti Celerio
ক্যামোফ্লাজ ছাড়াই রাস্তায় ট্রায়াল দিতে দেখা গিয়েছে নতুন সেলেরিও-কে। ছবি : ইনস্টাগ্রাম (Instagram )
ক্যামোফ্লাজ ছাড়াই রাস্তায় ট্রায়াল দিতে দেখা গিয়েছে নতুন সেলেরিও-কে। ছবি : ইনস্টাগ্রাম (Instagram )

উত্সবের মরসুমে চমক! নতুন রূপে আসছে Maruti Celerio

  • আগের জেনারেশনের ডিজাইন একটু বোরিং-ই ছিল। তবে এবার সেই দুর্নাম ঘুচতে পারে। মারুতির নতুন ডিজাইন কনসেপ্টের উপর ভিত্তি করে এটি বানানো হয়েছে। দেখতে আগের মডেলের থেকে অনেকটাই আলাদা।

উত্সবের মরসুমেই হ্যাচব্যাক সেলেরিওর (Celerio) নতুন মডেল আনছে মারুতি সুজুকি। গত বেশ কয়েক মাস ধরেই, এই গাড়িটি রাস্তায় ট্রায়াল দিতে দেখা গিয়েছে। এমনকি কোনও কোনও পোর্টালে ক্যামোফ্লাজ ছাড়াও ছবি দেখা যাচ্ছে। সূত্রের খবর, সেপ্টেম্বরেই গাড়িটি বাজারে আসতে পারে। দুর্গাপুজো, দীপাবলীর এই সময়টায় গাড়ির বিক্রিবাটাও বেশি হয়। ফলে সঠিক সময়ে নতুন আপডেটেড মডেল লঞ্চ করছে Maruti Suzuki ।

মারুতি সেলেরিও ২০১৪ সালে চালু হয়েছিল। কম দাম এবং সন্তোষজনক পারফরম্যান্সের কারণে গাড়িটি বাজারে বেশ জনপ্রিয় হয়। মারুতি সুজুকির অন্যান্য মডেলের তুলনায় এর ওয়েটিং পিরিয়ডও কম। এরই পরবর্তী জেনারেশানের মডেল আনছে মারুতি।

আগের জেনারেশনের ডিজাইন একটু বোরিং-ই ছিল। তবে এবার সেই দুর্নাম ঘুচতে পারে। মারুতির নতুন ডিজাইন কনসেপ্টের উপর ভিত্তি করে এটি বানানো হয়েছে। দেখতে আগের মডেলের থেকে অনেকটাই আলাদা।

এখনও পর্যন্ত নতুন ডিজাইনের সাইজ স্পেসিফিকেশান প্রকাশিত হয়নি। তবে, স্পাই ছবি অনুযায়ী মনে হচ্ছে, এই গাড়িটি আকারে একটু বড় হতে পারে। গাড়ির ভিতরে আরও স্পেস থাকবে। সিঙ্গেল লাইনের সামনের গ্রিলটিতে ক্রোমের একটি স্ট্রিপ রয়েছে। খুব বেশি জবরজাঁই করা হয়নি। ফলে মারুতি যে এখনকার মিনিমালিস্ট ট্রেন্ড ধরতে পেরেছে, তা বলাই যায়।

ইঞ্জিনের ক্ষেত্রে কোনও বড় পরিবর্তন হচ্ছে না। গাড়িতে 1.0 লিটারের একটি পেট্রোল ইঞ্জিন থাকবে। তাতে 67PS পাওয়ার এবং 91Nm টর্ক উৎপন্ন হবে। বর্তমান মডেলটি পেট্রোল ইঞ্জিনের পাশাপাশি সিএনজি ভেরিয়েন্টেও পাওয়া যায়। তবে ওয়াকিবহাল মহল বলছে, আরও শক্তিশালী 1.2 লিটার ইঞ্জিন-সহ-ও নতুন সেলেরিও বাজারে আনা হতে পারে। সেক্ষেত্রে নতুন ইঞ্জিনটি 83PS পাওয়ার এবং 113Nm টর্ক উৎপন্ন করবে।

নতুন সেলেরিওতে অটো ক্লাইমেট কন্ট্রোল, রিয়ার ভিউ ক্যামেরা ইত্যাদি নতুন ফিচার্স থাকতে পারে। এগুলি নতুন সুইফটেও ছিল। এছাড়া অ্যান্টি-লক ব্রেকিং সিস্টেম (ABS), রিয়ার পার্কিং সেন্সর এবং স্পিড অ্যালার্টের মতো ফিচারগুলিও স্ট্যান্ডার্ড হিসেবে দেওয়া হবে। তবে, এর দামও এখনকার মডেলের থেকে কিছুটা বেশি হতে পারে। বর্তমানে, এর দাম ৪.৬৫ লক্ষ থেকে ৬ লক্ষ টাকার মধ্যে। ২০-৩০ হাজার টাকা করে প্রতিটি ভেরিয়েন্টের দাম বাড়তে পারে বলে ধারণা বিশেষজ্ঞদের।

বন্ধ করুন