বাংলা নিউজ > টেকটক > গগনযান মিশনের রকেট ইঞ্জিনের সফল পরীক্ষা সারল ইসরো
তামিলনাড়ুর মহেন্দ্রগিরির ইসরো প্রোপালশান কমপ্লেক্সের ইঞ্জিন টেস্ট ফেসিলিটিতে এই যাচাই পর্ব হয়। ছবি : ইসরো (ISRO)
তামিলনাড়ুর মহেন্দ্রগিরির ইসরো প্রোপালশান কমপ্লেক্সের ইঞ্জিন টেস্ট ফেসিলিটিতে এই যাচাই পর্ব হয়। ছবি : ইসরো (ISRO)

গগনযান মিশনের রকেট ইঞ্জিনের সফল পরীক্ষা সারল ইসরো

  • এদিন মোট ২৪০ সেকেন্ডের জন্য টেস্ট-ফায়ার করা হয় এই ইঞ্জিনটি। উল্লেখ্য, অভিযানের সময়ে কিন্তু এই ২৪০ সেকেন্ডই চলার কথা এই ইঞ্জিনের।

বুধবার গগনযান অভিযানের রকেটের তিনটি স্তরের মধ্যে একটির ইঞ্জিনের সফল পরীক্ষা সারল ইসরো। ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থার এই অভিযানেই নভোশ্চর প্রেরণ করা হবে। ফলে এই যাচাই পর্বগুলি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

রকেটের 'বিকাশ' ইঞ্জিনটি দ্বিতীয় স্তরে রয়েছে। এদিন মোট ২৪০ সেকেন্ডের জন্য টেস্ট-ফায়ার করা হয় এই ইঞ্জিনটি। উল্লেখ্য, অভিযানের সময়ে কিন্তু এই ২৪০ সেকেন্ডই চলার কথা এই ইঞ্জিনের।

তামিলনাড়ুর মহেন্দ্রগিরির ইসরো প্রোপালশান কমপ্লেক্সের ইঞ্জিন টেস্ট ফেসিলিটিতে এই যাচাই পর্ব হয়।

'ইঞ্জিনটি একেবারে পরিকল্পনামাফিকই চলেছে। যে লক্ষ্য নিয়ে এটি ডেভেলপ করা হয়েছে, তা সঠিকভাবে মিলেছে,' প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে ইসরো।

ইসরোর GSLV Mk III রকেটটি ত্রিস্তরীয়। উত্ক্ষেপণের জন্য দুটি S200 বুস্টার। মাঝে, অর্থাত্ দ্বিতীয় স্তরে L110 লিকুইড স্টেজ। সর্বশেষে C-25 ক্রায়োজেনিক স্টেজ।

এই দ্বিতীয় স্তরেই থাকছে দুটি বিকাশ ইঞ্জিন। সেটিরই পরীক্ষা করা হয়েছে। ইসরোর এক আধিকারিক জানিয়েছেন, পরীক্ষা সফল হওয়ার অর্থ, উত্ক্ষেপণে ব্যবহারের জন্য ইঞ্জিন তৈরি।

তিনি জানান, 'লঞ্চ ভিহেকলের প্রথম স্তরে সলিড প্রপেলান্ট ব্যবহৃত হয়। সেটির ইতিমধ্যেই সফল পরীক্ষা হয়ে গিয়েছে। এবার ইসরোকে খালি ক্রায়োজেনিক স্তরের যাচাই করতে হবে।'

প্রসঙ্গত এই GSLV Mk III রকেটেই চন্দ্রযান-২-এর সফল উত্ক্ষেপণ হয়েছিল। ২০১৯-এ ক্রায়োজেনিক স্টেজে ইঞ্জিনে হিলিয়াম লিক মেলায় উত্ক্ষেপণ পিছিয়ে দেওয়া হয়েছিল।

S200 বুস্টারগুলিতেও গগনযানের জন্য আরও উন্নত করা হয়েছে। কিছুটা বদলেছে নকশা। নতুন ডিজাইনমাফিক গত বছর আরও নির্ভরযোগ্য কেসিং-ও সরবরাহ করেছে লারসেন অ্যান্ড টর্বো।

বন্ধ করুন