বাংলা নিউজ > টেকটক > Instagram-এ ছবি দেন? তাহলে এই বিষয়গুলি নিয়ে কিন্তু সাবধান!
ফাইল চিত্র
ফাইল চিত্র

Instagram-এ ছবি দেন? তাহলে এই বিষয়গুলি নিয়ে কিন্তু সাবধান!

প্রলোভনের ফাঁদে পা না দেওয়াই ভাল। প্রথমত, আপনার টাকা নিয়ে তারপর ফলোয়ার নাও বাড়তে পারে। সেক্ষেত্রে আপনার কিছুই করার থাকবে না। আবার, অনেকক্ষেত্রে এক ধাক্কায় ফলোয়ার সত্যিই বেড়ে যায়। কিন্তু একটু খতিয়ে দেখলে দেখা যাবে হাজার হাজার ফেক অ্যাকাউন্ট থেকে সাবস্ক্রাইব করার মাধ্যমে আপনার ফলোয়ার বাড়ানো হয়েছে।

এটা ২০২১ সাল। ফেসবুক আগের মতোই জনপ্রিয় রয়েছে। কিন্তু পাশাপাশি পাল্লা দিয়ে তুঙ্গে Instagram-এর জনপ্রিয়তা। কিন্তু এই ফটো শেয়ারিং অ্যাপে কিন্তু অনেকেই নানা বিপদ, সমস্যার সম্মুখীন হয়েছে।

ইনস্টাগ্রাম কিন্তু ব্যবহারকারীদের সতর্ক থাকার জন্য বাই ডিফল্ট দিয়ে রেখেছে বেশ কিছু ফিচার্স। এগুলি একটু বুঝে ব্যবহার করতে পারলেই আপনার অ্যাকাউন্ট থাকবে সুরক্ষিত।

ইনস্টাগ্রামে যাঁরা নিয়মিত ছবি দেন ও মোটামুটি ভাল ফলোয়ার রয়েছে, তাঁদের কাছে অনেক সময়েই বিভিন্ন অ্যাকাউন্ট থেকে মেসেজ আসে। ডিএম-এ বলা হয়, সামান্য কিছু টাকা দিন, আর পান হাজার হাজার ফলোয়ার।

এই ধরণের প্রলোভনের ফাঁদে পা না দেওয়াই ভাল। প্রথমত, আপনার টাকা নিয়ে তারপর ফলোয়ার নাও বাড়তে পারে। সেক্ষেত্রে আপনার কিছুই করার থাকবে না। আবার, অনেকক্ষেত্রে এক ধাক্কায় ফলোয়ার সত্যিই বেড়ে যায়। কিন্তু একটু খতিয়ে দেখলে দেখা যাবে হাজার হাজার ফেক অ্যাকাউন্ট থেকে সাবস্ক্রাইব করার মাধ্যমে আপনার ফলোয়ার বাড়ানো হয়েছে। দিন কয়েক পর নিজে থেকেই সেই অ্যাকাউন্ট ফেক বলে ইনস্টাগ্রাম বন্ধ করে দেবে। ফলে আখেরে লাভ হবে না কিছুই।

তাছাড়া, অনেকেই মডেলিং বা অভিনয়ে জনপ্রিয়তা পেতে ইনস্টাগ্রাম ব্যবহার করে। এ ধরণের ক্ষেত্রে ইনস্টাগ্রাম ভাল মাধ্যম। তবে, বিভিন্ন পেজ থেকে স্ট্রাগলিং মডেলদের ছবি চেয়ে পোস্ট করা হয়। সাবধানতার স্বার্থে খুব পরিচিত ইনস্টাগ্রাম পেজ না হলে এভাবে অচেনা ব্যক্তিকে নিজের ছবি না দেওয়াই ভাল। মডেলিংয়ের ছবি এভাবে নিয়ে লুকিয়ে বিক্রি করার মতো ঘটনাও ঘটেছে। ফলে আখেরে লোকসান হতে পারে আপনার।

এছাড়া আরও কিছু বেসিক সেটিংসের মাধ্যমে ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট রাখা যায় সুরক্ষিত

১. প্রাইভেট অ্যাকাউন্ট

অচেনা মানুষদের থেকে নিজের পোস্ট হাইড করতে অ্যাকাউন্ট প্রাইভেট করা যেতে পারে। সেক্ষেত্রে আপনার অনুমতির পরেই কেউ আপনার পোস্ট দেখতে পাবেন।

২. টু-ফ্যাক্টর অথেন্টিকেশন

ইনস্টাগ্রাম হোক বা অন্য কোনও সোশ্যাল মিডিয়া বা ইমেল- টু ফ্যাক্টর অথেন্টিকেশনের অপশন থাকলে তা করে রাখাই ভাল। সেক্ষেত্রে অচেনা ডিভাইস থেকে কোনওভাবে আপনার অ্যাকাউন খোলার চেষ্টা বা খোলা হলেই আপনার কাছে মেসেজ আসবে।

৩. কাস্টম প্রাইভেসি লিস্ট বানান

ইনস্টাগ্রামে ক্লোজ ফ্রেন্ডস লিস্ট বানান। সেখানে আপনার পরিচিতদের সঙ্গে কেবলমাত্র ব্যক্তিগত ছবি শেয়ার করুন।

৪. কমেন্ট বক্সে নজর রাখুন

কমেন্ট বক্স-এ কোনও স্প্যাম, অশালীন আচরণ ইগনোর করবেন না। সঙ্গে সঙ্গে সেই ধরণের কমেন্ট ডিলিট করবেন। শুরুতেই সমস্যা মিটিয়ে দিলে পরে বড় ধরণের বিপদের হাত থেকে মুক্তি পাবেন।

বন্ধ করুন