olympics-photos

টোকিও অলিম্পিক্সে ব্রোঞ্জ জিতলেন বজরং পুনিয়া। শনিবার পুরুষদের ৬৫ কেজি বিভাগে ব্রোঞ্জ পদকের ম্যাচে দৌলত নিয়াজবেকভকে ৮-০ উড়িয়ে দিয়ে অলিম্পিক্সের পোডিয়ামে উঠতে চলেছেন তিনি। (ছবি সৌজন্য রয়টার্স)

প্রথম ভারতীয় হিসেবে অভাবনীয় নজির থেকে অলিম্পিক্সে ব্রোঞ্জ - বজরং পুনিয়ার রেকর্ড

টোকিও অলিম্পিক্সে ব্রোঞ্জ জিতলেন বজরং পুনিয়া। শনিবার পুরুষদের ৬৫ কেজি বিভাগে ব্রোঞ্জ পদকের ম্যাচে দৌলত নিয়াজবেকভকে ৮-০ উড়িয়ে দিয়ে অলিম্পিক্সের পোডিয়ামে উঠতে চলেছেন তিনি। যে তারকার কেরিয়ার দুর্দান্ত। একনজরে দেখে নিন বজরং পুনিয়ার রেকর্ড -

শেষ মুহূর্তে সেভের পরই উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন ভারতীয় গোলরক্ষক। কিছুক্ষণ পর গোলপোস্টের মাথায় উঠে যান। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

পোস্টের সঙ্গে সমস্ত হতাশা-দুঃখ ভাগ করেছি, কিছুটা সম্মান ওরও প্রাপ্য : শ্রীজেশ

পুরো টোকিও অলিম্পিক্সেই অসংখ্যবার ভারতের পতন রুখেছেন। ব্রোঞ্জ পদকের ম্যাচেও সেই ধারায় ছেদ পড়েনি। একেবারে অন্তিম লগ্নে দলের পদক জয় নিশ্চিত করেছেন শ্রীজেশ। তারপরই সোজা উঠে যান গোলপোস্টের মাথায়। যে ছবি ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। কেন পোস্টের মাথায় উঠেছেন, সেই কারণও জানালেন ভারতের সুপারস্টার -

১৯৮৮ সিওল অলিম্পিক্স : ষষ্ঠ হয়েছিল ভারত। (PTI)

মস্কোয় সোনা,বেজিংয়ের টিকিট না পাওয়া,টোকিয়োয় ব্রোঞ্জ-৪১ বছরে হকির Olympics যাত্রা

১৯৮০ সালের মস্কো অলিম্পিক্সে সোনা জিতেছিল ভারতীয় পুরুষ হকি দল। তারপর থেকে ক্রমশ নিম্নমুখী হয়েছিল ভারতের গ্রাফ। ২০০৮ সালের বেজিং অলিম্পিক্সে যোগ্যতা অর্জনও করতে পারেনি ভারত। সেখান থেকে ২০২০ টোকিয়োয় ব্রোঞ্জ জয় টিম ইন্ডিয়ার। একনজর দেখে নিন ৪১ বছরে ভারতের অলিম্পিক্স যাত্রা -

১০ বছর থেকে কুস্তি শুরু করেন রবি। ছেলেবেলায় উত্তর দিল্লির ছত্রসাল স্টেডিয়ামে প্রশিক্ষণ করতেন রবি। (ছবি সৌজন্য রয়টার্স)

খেতে কাজ করতেন বাবা, ১০ বছরে শুরু কুস্তি- অলিম্পিক্সে পদক নিশ্চিত করা কে এই রবি?

হরিয়ানার সোনিপতে খেতে কাজ করতেন বাবা। সেখান থেকে উঠে এসে অলিম্পিক্সে পদক জয় নিশ্চিত করলেন রবিকুমার দাহিয়া। ছেলেদের ফ্রি-স্টাইল কুস্তির ৫৭ কেজি বিভাগের ফাইনালে উঠেছেন তিনি। একনজরে জেনে নিন কে এই রবিকুমার দাহিয়া -

এ যেন এক স্বপ্নে দৌড়। টোকিও অলিম্পিক্সে নতুন করে স্বপ্ন দেখাতে শুরু করেছেন রানি রামপালরা। যাঁদের নিয়ে কোনও প্রত্যাশা ছিল না। তাঁদের নিয়েই এখন স্বপ্ন দেখছে গোটা ভারত। ছবি: এএনআই

Tokyo 2020: ভারতীয় মহিলা হকি দলের গেমসের শেষ চারে ওঠার লড়াইটা দেখে নিন এক নজরে

কী ভাবে গ্রুপ লিগের পর্ব পার হয়ে শেষ আটের লড়াইয়ে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে ভারতের মহিলা হকি দল শেষ চারে পৌঁছল, সেই লড়াইয়ে চোখ রাখব আরও এক বার।

ব্রোঞ্জ জয়ের পর পদক বিতরণী অনুষ্ঠানের একটি ছবি ভাইরাল হয়ে যায়। (ছবি সৌজন্য টুইটার)

অলিম্পিক্সে উত্তোলিত হচ্ছে তেরঙ্গা, পোডিয়ামে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ সিন্ধু, ভাইরাল ছবি

প্রথম ভারতীয় মহিলা হিসেবে পরপর দুটি অলিম্পিক্সে পদক জিতেছেন। তারপর পোডিয়ামে উঠে ব্রোঞ্জ নেন পি ভি সিন্ধু। সেই সময় অলিম্পিক্সে তেরঙ্গা উত্তোলনের একটি ছবি ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। দেখুন সেই ছবি - 

অনুরাগ ঠাকুর : তুমি ম্যাচে আধিপত্য বজায় রেখেছ এবং টোকিও অলিম্পিক্সে ইতিহাস তৈরি করেছে। তোমার জন্য গর্বিত ভারত। তোমার দেশে ফেরার প্রতীক্ষা করছেন সবাই। তুমি করে দেখিয়েছ। (ছবি সৌজন্য রয়টার্স)

প্রথম ভারতীয় মহিলা হিসেবে অলিম্পিক্সে জোড়া পদক, শুভেচ্ছায় ভাসলেন সিন্ধু

ইতিহাস তৈরি করছেন পি ভি সিন্ধু। প্রথম ভারতীয় মহিলা হিসেবে অলিম্পিক্সে জোড়া পদক জিতলেন। দ্বিতীয় ভারতীয় হিসেবে সেই নজির গড়লেন। রবিবার ব্রোঞ্জ জয়ের পর শুভেচ্ছাবার্তায় ভেসে গেলেন সিন্ধু। 

সেই ম্যাচের প্রথম রাউন্ডেই দীপিকার হৃদস্পন্দন ছিল ১০০। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

অলিম্পিক্স থেকে প্রায় ছিটকে যাওয়ার অবস্থা, ভয়ংকরভাবে হৃদস্পন্দন বাড়ল দীপিকার

মহিলা তিরন্দাজির ব্যক্তিগত ইভেন্টের প্রথম রাউন্ডে সহজ জয় পেয়েছিলেন। কিন্তু দ্বিতীয় রাউন্ডে রীতিমতো চাপে পড়ে গিয়েছিলেন দীপিকা কুমারি। কার্যত সুতোর উপর ঝুলছিল তাঁর ভাগ্য। সেইসময় ভয়ংকরভাবে হৃদস্পন্দন বেড়ে গিয়েছিল ভারতীয় তারকার। জেনে নিন সেই বিষয়ে -

টোকিওয় রুপো জয়ের পরেই পিত্জা খাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন মীরাবাঈ। কিরেন রিজিজু অনুষ্ঠানের শেষে মীরাবাইয়ের সঙ্গে নিজেও পিত্জা খেয়ে সেলিব্রেট করেন চানুর সাফল্য। পিত্জায় কামড় দেন অনুরাগ ঠাকুরও।

প্রিয় পিৎজায় চানুর রুপো জয়ের সেলিব্রেশন, সামিল বর্তমান ও প্রাক্তন ক্রীড়ামন্ত্রী

টোকিওয় উড়ে যাওয়ার আগে চানু কথা দিয়েছিলেন, পদক নিয়ে তবেই দেশে ফিরবেন। কথা রেখেছেন মীরাবাঈ। দেশের ফেরার পর অলিম্পিক্সে রপো জয়ী তারকার ইচ্ছাপূরণ করলেন দেশের বর্তমান ও প্রাক্তন ক্রীড়ামন্ত্রী। সেলিব্রেশনে চানুকে খাওয়ানো হল তাঁর প্রিয় পিৎজা।