বাড়ি > দেখতেই হবে > ঘরে বাইরে > ধর্মান্তকরণের জন্য চাপ দিত, কাফের বলে ডাকত- আফগানিস্তান থেকে ভারতে এসে জানালেন শিখ ও হিন্দুরা

ধর্মান্তকরণের জন্য চাপ দিত, কাফের বলে ডাকত- আফগানিস্তান থেকে ভারতে এসে জানালেন শিখ ও হিন্দুরা

আফগানিস্তানে হওয়া নানান অত্যাচারের কথা জানালেন ১১জন নাগরিক, যারা ভিসা নিয়ে ভারতে এসেছেন। এরা হলেন হিন্দু ও শিখ ধর্মালম্বী, যারা আফগানিস্তানে সংখ্যালঘু। এদের মধ্যে আছেন শিখ স্থানীয় নেতা নিদান সিং সচদেব, যাঁকে হালে অপহরণ করেছিল দুর্বৃত্তরা। আফগান সরকারের হস্তক্ষেপে ছাড়া পান তিনি। 

রবিবার দুপুরে দিল্লিতে আসেন এই ১১ জন।এদের স্বাগত জানান স্থানীয় অকালি দল ও বিজেপি নেতৃত্ব। বিদেশমন্ত্রক বিবৃতিতে বলেছে এই পরিবারদের ভারতে ফেরানোতে আফগান সরকারের ভূমিকা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। কাবুল স্থিত ভারতীয় দূতাবাসের তরফ থেকে বলা হয় যে কিছু শিখ ও হিন্দু ধর্মালম্বী ভারতে আসতে চেয়েছিলেন, তাদের আমরা সাহায্য করেছি। 

ভারতে এসে তাঁরা জানান কীভাবে তাদের ধর্মান্তকরণের জন্য জোর দেওয়া হত ওখানে, অনেক সময় কাফের বলে ডাকা হত। আনন্দ উদ্বেল হয়ে গিয়েছেন নিদান সিং, তিনি বলেন যে খুশি ভাষায় ব্যক্ত করতে পারবেন না। 

চলতি বছর মার্চে কাবুলে গুরুদ্বারে হানায় ২৫ জন শিখ মারা গিয়েছিলেন। এর দায় নেয় আইসিস। যদিও ভারতীয়রা বিশ্বাস করে এর নেপথ্যে ছিল লস্কর ও হাকানি নেটওয়ার্ক।  অনেক আফগান যারা এদিন এসেছেন, তাদের পরিবার ওই সন্ত্রাসবাদী হানায় প্রাণ হারিয়েছেন। একজন তরুণীও আছেন যাকে জোর করে ধর্মান্তকরণ করে বিয়ে দেওয়া থেকে স্থানীয়রা উদ্ধার করেছিলেন। ৮০-র দশকে ২২০০০০ শিখ ও হিন্দু থাকত আফগানিস্তানে। এরপর তালিবানরা আসার পর এই সংখ্যা কমে হয় ১৫ হাজার। এখন মাত্র ১৩৫০ জন হিন্দু ও শিখ আফগানিস্তানে থাকেন বলে রিপোর্টে প্রকাশ।