বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বজ্রপাতের পূর্বাভাস দিতে রয়েছে একাধিক অ্যাপ, একটু সতর্কতা বাঁচাতে পারে বহু প্রাণ
প্রতীকি ছবি
প্রতীকি ছবি

বজ্রপাতের পূর্বাভাস দিতে রয়েছে একাধিক অ্যাপ, একটু সতর্কতা বাঁচাতে পারে বহু প্রাণ

  • নিজে সতর্ক হোন, অন্যকে সতর্ক করুন।

গত কয়েকদিনে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গা থেকে মিলেছে ব্যাপক বজ্রপাতের খবর। সোমবার একদিনেই বজ্রপাতে মৃত্যু হয়েছে ২৬ জনের। কিন্তু বজ্রপাত থেকে বাঁচতে রয়েছে একাধিক অব্যর্থ উপায়। একটু সতর্ক হলেই নিজের সঙ্গে অন্যদের প্রাণ রক্ষা করা সম্ভব বজ্রপাত থেকে। 

১. বজ্রগর্ভ মেঘ সঞ্চার হতে দেখলেই নিরাপদ জায়গায় আশ্রয় নেওয়ার প্রস্তুতি শুরু করুন। মেঘ কোন দিকে সৃষ্টি হচ্ছে বা কতটা শক্তিশালী হতে পারে তা নিয়ে বিশ্লেষণ না করেই নিরাপদ আশ্রয় নির্বাচন করুন। 

২. বজ্রপাতের সময় কোনও খোলা জায়গায়, গাছতলায় বা অস্থায়ী চালার নীচে আশ্রয় নেবেন না। আশ্রয় নেবেন পাকা ঘরের ভিতরে। পাকা ঘরের ভিতরে ঢুকে দরজা জানলা সব বন্ধ করে দিন। মাথার ওপর পাকা ছাদ থাকলেও চারিদিক খোলা এমন জায়গায় আশ্রয় নিয়েও বিপদ এড়ানো যায় না। বরং নীচু জায়গায় আশ্রয় নিন। খাদ বা গুহার মধ্যে ঢুকে পড়ুন।  

৩. বজ্রপাতের পূর্বাভাস দেওয়ার জন্য আবহাওয়া দফতরের একটি অত্যন্ত কার্যকরী অ্যাপ রয়েছে। ‘দামিনী’(Damini. Lightning Allert) নামে এই অ্যাপের মাধ্যমে বজ্রপাত শুরু হওয়ার ৩০ মিনিট আগে থেকে সতর্কতা পাবেন। এছড়া দেশি - বিদেশি বেসরকারি সংস্থার অন্তত ১ ডজন অ্যাপ বজ্রপাতের নিখুঁত পূর্বাভাস দেয়।

৪. বজ্রপাতের সময় পাকা বাড়িতে থাকলে ধাতব বস্তুর স্পর্শ এড়িয়ে চলুন। জলের ট্যাপ বা ধাতব পাইপ, টেলিফোন, বিদ্যুতের সুইচ বোর্ডে হাত দেবেন না। কোনও বৈদ্যুতির যন্ত্র যা তার দিয়ে মেইন লাইনের সঙ্গে সংযুক্ত, ব্যবহার করবেন না।

৫. বজ্রপাতের সময় কোনও আশ্রয় খুঁজে না পেলে খোলা জায়গায় মাটিতে শুয়ে পড়ুন। দয়া করে কোনও গাছ বা অস্থায়ী ছাউনির নীচে আশ্রয় নেবেন না। তাহলে বজ্রাহত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। উঁচু গাছ থেকে দূরে থাকুন। গাছটির ডালপালা (গোড়া নয়) থেকে অন্তত ১ মিটার দূরে থাকা অপেক্ষাকৃত নিরাপদ। খোলা জায়গায় বজ্রবিদ্যুতের মধ্যে দাঁড়িয়ে থাকার থেকে শুয়ে পড়া নিরাপদ। 

৬. বজ্রপাতের সময় পুকুরে বা কোনও জলাশয়ে থাকলে পাড়ে উঠে আসুন। নিরাপদ জায়গায় আশ্রয় নিন।    

৭. বিদ্যুৎ চমকানোর সময় মাথার চুল বা গায়ের লোম খাড়া হয়ে গেলে কয়েক মুহূর্তের মধ্যেই বজ্রাহত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। সঙ্গে সঙ্গে মাটিতে শুয়ে পড়ুন। 

৮. বজ্রপাতের সময় গাড়ি বা ট্রেনের ভিতর থাকলে বিপদের আশঙ্কা কম।

৯. হাইটেনশন তারের কাছাকাছি কোথাও আশ্রয় নেবেন না। বজ্রপাতের সময় হাইটেনশন তারের টাওয়ার বা অন্য কোনও ধাতব টাওয়ার স্পর্শ করবেন না। 

১০. নিজে সতর্ক হোন, অন্যকে সতর্ক করুন।  

বন্ধ করুন