বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > Dol Yatra 2024: লাঠি দিয়ে পিটিয়ে পিটিয়ে খেলা হয় হোলি, রঙের উৎসবের অন্য ইতিহাস জানুন

Dol Yatra 2024: লাঠি দিয়ে পিটিয়ে পিটিয়ে খেলা হয় হোলি, রঙের উৎসবের অন্য ইতিহাস জানুন

রঙের উৎসবের ইতিহাস জানুন (Pexels)

Dol Yatra 2024: আপনি জেনে অবাক হবেন যে আমাদের দেশে ১০ টিরও বেশি উপায়ে হোলি উদযাপন করা হয়।

হিন্দু ধর্মে অনেক প্রাচীন উপবাস এবং উৎসব পালিত হয়, এর মধ্যে হোলিই প্রাচীনতম। এই সুখের উৎসব ভগবান শ্রী কৃষ্ণ এবং ভগবান বিষ্ণুর ভক্ত প্রহ্লাদের সঙ্গে জড়িত। হোলি উৎসবের দিন সারাদেশ আবিরে মন ও কায়া দুইই রাঙিয়ে থাকে। এককথায়, ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার সঙ্গে পালিত হয় রঙের উৎসব। রঙের এই পবিত্র উৎসবকে বসন্ত ঋতুর বার্তাবাহকও মনে করা হয়। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে নানা নামে ও উপায়ে এই উৎসব পালিত হয়। যার মধ্যে ফাগুয়া, ধুলান্দি প্রধান। বিশেষ বিষয় হল ব্রজে হোলির উৎসব বসন্ত পঞ্চমী থেকে শুরু হয়ে যায়। ফাল্গুন মাসে এই উৎসব পালিত হয় বলে এটি ফাল্গুনী নামেও পরিচিত।

  • হোলি কখন উদযাপন করা হয়

হিন্দু ক্যালেন্ডার অনুযায়ী, দোল উৎসব শুরু হয় ফাল্গুন মাসের শুক্লপক্ষের পূর্ণিমা তিথি থেকে। দোল উৎসবের এক দিন আগে হোলিকা দহনের আয়োজন করা হয় এবং পরের দিন বর্ণিল হোলি খেলা হয় দারুণ আড়ম্বরে। নারদ পুরাণ এবং ভবিষ্য পুরাণের মতো প্রাচীন পাণ্ডুলিপি এবং ধর্মীয় গ্রন্থে হোলি উৎসবের বর্ণনা দেওয়া হয়েছে। সংস্কৃত যুগের অনেক বিখ্যাত ও প্রাচীন মহাকবিও তাঁদের কবিতায় হোলির উল্লেখ করে গিয়েছেন। এরই সঙ্গে, ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে এমন অনেক প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী স্থান রয়েছে, যেখানে হোলি সম্পর্কিত প্রত্নবস্তুগুলি চিত্রিত করা হয়েছে।

  • দোল যাত্রার ইতিহাস

আমরা অনেকেই জানি না যে দোল মানে হোলি নয়। ভারতে স্থানের উপর নির্ভর করে, হোলি খেলা হয় এবং দোল খেলা হয় বিভিন্ন দিনে। শাস্ত্র ও পুরাণ অনুসারে দোল ও হোলি একই অর্থে ব্যবহৃত হলেও বাস্তবে এই দুটি জিনিস এক নয়। এই দুটি উৎসবের আলাদা অর্থ রয়েছে। দুটিই যদিও ভগবান বিষ্ণুর অবতারের সঙ্গে সম্পর্ক যুক্ত। উল্লেখযোগ্যভাবে, দু'টি উৎসবের মধ্যে একটি ভগবান কৃষ্ণের বিনোদনের সঙ্গে যুক্ত, অন্যটি নরসিংহ দেবের সঙ্গে। দোল বা হোলি বিশ্বের সবচেয়ে বড় রঙের উৎসব হিসেবে পরিচিত হলেও বাংলায় এটি দোলযাত্রা, দোল পূর্ণিমা বা দোল উৎসব নামে পরিচিত। তবে ভারতের বেশিরভাগ অঞ্চলে রঙের উৎসবকে হোলি বলা হয়।

  • দোল উৎসবের ইতিহাস

উল্লেখযোগ্যভাবে, কৃষ্ণ এবং নরসিংহ উভয়ই ভগবান বিষ্ণুর অবতার। হিন্দু পঞ্জিকা অনুসারে, ফাল্গুন মাসের শুক্লপক্ষের পূর্ণিমা তিথির পরের দিন দোল উৎসব পালিত হয়।এটা বিশ্বাস করা হয় যে এই দিনে রাধা এবং তাঁর বন্ধুরা রং খেলা শুরু করেছিলেন। এটা বিশ্বাস করা হয় যে কৃষ্ণ একই দিনে রাধাকে নিজের প্রেম নিবেদন করেছিলেন।

  • হোলির ইতিহাস

প্রহ্লাদ ছিলেন অত্যাচারী দানব রাজা হিরণ্যকশ্যপের পুত্র। রাক্ষসদের মধ্যে প্রহ্লাদই ছিলেন বিষ্ণুর একমাত্র ভক্ত। বিষ্ণুর প্রতি পুত্রের ভক্তি দেখে পিতা হিরণ্যকশ্যপও পুত্রকে হত্যার চেষ্টা করেন। হিরণ্যকশিপুকে এই কাজে সাহায্য করেছিলেন তাঁর রাক্ষস বোন হোলিকা। এই দিনে প্রহ্লাদকে হত্যা করার জন্য হিরণ্যকশ্যপুরের বোন হোলিকা প্রহ্লাদকে আগুনে নিক্ষেপ করার পরিকল্পনা করেছিলেন। বিষ্ণুর কৃপায় আগুন প্রহ্লাদকে স্পর্শ করতে পারেনি, কিন্তু সেই আগুনে হোলিকা মারা যান। তাই হোলি খারাপ শক্তির পরাজয় এবং শুভ শক্তির জয়ের প্রতীক। এই কারণেই হোলিকা দহন হোলির একদিন আগে পালিত হয়।

  • হোলি উৎসবের গুরুত্ব

হোলি উৎসবকে যেমন বসন্তের বার্তাবাহক হিসাবে বিবেচনা করা হয়, তেমনি ধর্মীয় বিশ্বাস অনুসারে, এই উত্সবটি মন্দের উপর শুভর জয় হিসাবে উদযাপিত হয়। এই দিনে, প্রত্যেকে নিজেদের ভেদাভেদ ভুলে একে অপরকে রং লাগিয়ে থাকেন, যার মধ্যে লাল রঙটি খুব গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হয়। কারণ লাল রঙকে ভালোবাসা ও সম্প্রীতির প্রতীক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। যার দরুণ পারস্পরিক প্রেম-ভালোবাসা বৃদ্ধি পায়। ধর্মীয় বিশ্বাস অনুসারে হোলিকা পোড়ানো এবং হোলির দিনে ভগবান শ্রী কৃষ্ণ, শ্রী হরি এবং সমস্ত দেব-দেবীর আরাধনা করলে সমস্ত নেতিবাচক শক্তির বিনাশ হয় এবং জীবনে সুখ ও সমৃদ্ধি আসে।

  • ভারতে কত প্রকার হোলি পালিত হয়?

আপনি কি জানেন যে রাজ্য বা শহর বদলের পাশাপাশি হোলি খেলার ধরনও বদলে যায়, তবে হোলির উত্তেজনা এবং মজা সর্বত্র একই রকম। আপনি জেনে অবাক হবেন যে আমাদের দেশে ১০ টিরও বেশি উপায়ে হোলি উদযাপন করা হয়।

১) লাঠমার হোলি- বারসানা গ্রাম, উত্তরপ্রদেশ

হোলির উৎপত্তি ভারতের বারসানা অঞ্চলে, যার মধ্যে রয়েছে বৃন্দাবন, মথুরা, নন্দগাঁও এবং বারসানা। মজার ব্যাপার হল, এখানে উৎসবটি শুধু রং দিয়ে নয়, লাঠি দিয়েও পালিত হয়। প্রথা অনুযায়ী, নারীরা পুরুষদের গায়ে রং ছুড়তে এলে লাঠি দিয়ে আঘাত করে তাড়িয়ে দেওয়া হয়।

২) খাড়ি হোলি- কুমায়ুন অঞ্চল, উত্তরাখণ্ড

খাড়ি হোলি কুমায়ুন অঞ্চলে খেলা হয়, যার মধ্যে প্রধানত উত্তরাখণ্ডের শহরগুলি রয়েছে। এতে স্থানীয় লোকজন ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে, খাড়ি গান গান এবং দলে দলে নাচ করেন। তাঁরা দল বেঁধে ঘুরে বেরিয়ে মানুষকে শুভেচ্ছা জানান। এই অঞ্চলে, হোলি সাধারণত বৈথক হোলি, খাড়ি হোলি এবং মহিলা হোলি আকারে বাদ্যযন্ত্রের সঙ্গে উদযাপন করা হয়।

৩) ফাগুয়া- বিহার

বিহার আর হোলি তো ওতপ্রোতভাবে জড়িত। এই উৎসব স্থানীয় ভোজপুরি উপভাষায় ফাগুয়া নামে পরিচিত। তবে বিহারে হোলি খেলার আগে হোলিকা পোড়ানো দরকার। এরপর লোকগান, জল ও রং দিয়ে হোলি খেলা হয়।

৪) ফাকুওয়া- আসাম

আসামে ফাকুভা হোলি পালিত হয়। এটি বাংলার 'দোল যাত্রা'র মতো। যাইহোক, এখানে উৎসব দুই দিনব্যাপী পালিত হয়। প্রথম দিনে মাটির কুঁড়েঘর পুড়িয়ে পালিত হয় হোলিকা দহন। দ্বিতীয় দিনে, স্থানীয়রা সবার মতো রং খেলে উদযাপন করা হয়!

৫) হোলা মহল্লা- পাঞ্জাব

হোলা মহল্লা, ওয়ারিয়র হোলি নামে পরিচিত, পাঞ্জাবে পালিত হয়। এই উৎসব নিহঙ্গ শিখরা পালন করে। তাঁরা মার্শাল আর্ট প্রদর্শন করে এবং এই দিনে হৃদয়ের গান গেয়ে থাকেন, যা সাধারণত হোলির একদিন আগে উদযাপিত হয়।

৬) ইয়াওসাং- মণিপুর

মণিপুরে, হোলি বা ইয়াওসাং ছয় দিন ধরে পালিত হয়। এটি পূর্ণিমার দিনে শুরু হয় এবং হিন্দু ও আদিবাসী ঐতিহ্যকে একত্রিত করে। উৎসবের প্রধান আকর্ষণ হল থাবাল চোংবা, এই সময়ে পরিবেশিত মণিপুরী লোকনৃত্য। মণিপুরের হিন্দুরাও ঐতিহ্য অনুসারে অভিন্নতা বজায় রাখতে রং খেলে এই উৎসব উদযাপন করেন।

৭) রং পঞ্চমী- মহারাষ্ট্র ও মধ্যপ্রদেশ

মহারাষ্ট্র সবচেয়ে মজার উপায়ে হোলি উদযাপন করে। রঙের উৎসব হোলিকা দহনের পঞ্চম দিনে পালিত হয় এবং এটি রং পঞ্চমী নামে পরিচিত।

৮) রয়‍্যাল হোলি- জয়পুর, উদয়পুর (রাজস্থান)

হোলির প্রাক্কালে, স্থানীয় লোকেরা এই উপলক্ষের প্রতীক হিসাবে হোলিকা দহন করে। উদয়পুরের মেওয়ার রাজপরিবার দ্বারা এই উৎসবটি ব্যাপকভাবে উদযাপিত হয়। অভিনব শোভাযাত্রায় সজ্জিত ঘোড়া এবং রাজকীয় ব্যান্ড রয়েছে। পরে, ঐতিহ্যবাহী পবিত্র আগুন জ্বালানো হয় এবং হোলিকার কুশপুত্তলিকা পোড়ানো হয়।

৯) মঞ্জল কুলি- কেরালা

হোলি দক্ষিণ ভারতে ততটা জনপ্রিয় নয় যতটা উত্তর ভারতে। যাইহোক, দেশের দক্ষিণাঞ্চলের কিছু সম্প্রদায় হোলি উদযাপন করে, তবে ভিন্ন ঐতিহ্য এবং নামে। কেরালায়, হোলিকে মঞ্জল কুলি বলা হয় এবং গোসারিপুরম থিরুমলার কোঙ্কনি মন্দিরে উদযাপিত হয়।

১০) বসন্ত উৎসব এবং দোল যাত্রা- পশ্চিমবঙ্গ

বসন্ত উৎসব বসন্ত ঋতুকে স্বাগত জানানোর একটি উপায়। এই দিনে শান্তিনিকেতনে একটি বিশেষ উৎসব হয়। এই উৎসব উদযাপনের জন্য ছেলে-মেয়েরা জাফরান রঙের পোশাক পরে নাচে গানে ভুবন মাতিয়ে থাকেন। অন্যদিকে, দোল যাত্রা হল আসল হোলি উদযাপনের একটি অংশ। দোল পূর্ণিমায় রাধা ও কৃষ্ণের মূর্তির পূজা করা হয়। পূজা শেষে মিষ্টি মুখ করে শুরু হয় বহু প্রতিক্ষিত রং খেলা।

১১) শিগমো- গোয়া

শিগমো উৎসব গোয়ার একটি বিশাল বসন্ত উৎসব। এটি হিন্দুদের অন্যতম প্রধান উৎসব। কৃষকেরা এখানে ঐতিহ্যবাহী লোক নৃত্য ও রাস্তার নৃত্য পরিবেশন করেন। এমনকি গোয়ার পর্যটকরাও এই উৎসবটি অত্যন্ত উৎসাহের সঙ্গে উপভোগ করেন।

প্রসঙ্গত, আমাদের দেশে প্রতিটা উৎসবই ধুমধাম করে পালিত হয়, কিন্তু হোলির ব্যাপারটা অন্যরকম। শিশু থেকে প্রাপ্তবয়স্ক, সবাই হোলি নিয়ে খুব উচ্ছ্বসিত। এ বছর রঙের এই উৎসব পালিত হবে ২৫ মার্চ।

টুকিটাকি খবর

Latest News

এই ৩ কারণে ভারতীয় পুরুষদের ডেট করেন না এই রিলেশনশিপ কোচ, কী সেই কারণগুলি দেশের সেরা কোম্পানিতে ১ বছরের ইন্টার্নশিপ করিয়ে দেবে সরকার, মিলবে ৬৬,০০০ টাকা! মুম্বইতে পুরস্কৃত শুভশ্রী, এবার কি বরের পর বলিউডে পাড়ি দিচ্ছেন ‘ইন্দুবালা’? কৃষি খাতে বরাদ্দ ১.৫২ লক্ষ কোটি টাকা, চাষীদের জন্য় কী থাকল বাজেটে ‘‌এটা কুর্সি বাঁচাও বাজেট’‌, নির্মলাকে কটাক্ষ কল্যাণের, তোপ অখিলেশেরও আপনি কী মঙ্গল দোষে পীড়িত? তাহলে শ্রাবণের মঙ্গলবার করুন এই কাজ, দূর হবে সব কষ্ট সুস্মিতার দত্তক মেয়ে রেনে ‘ব্যাড নিউজ’-এ ইন্টার্ন, এ কেমন ব্যবহার পেয়েছেন সেটে! বব উলমারের মৃত্যুর পরে আমাদের… বড় তথ্য ফাঁস করলেন প্রাক্তন পাক তারকা ইউনিস খান জোট ধর্ম মেনে অন্ধ্র-বিহারের জন্য বিপুল বরাদ্দ নির্মলার! বিহার - অন্ধ্রের জন্য কল্পতরু সীতারমণ, বাংলাকে বঞ্চনা করা হয়েছে, অভিযোগ অভিষেকের

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.