বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বর্ধমানে সাঁতার শিখতে গিয়ে ১৯ বছরের তরুণের মৃত্যু, খুনের অভিযোগ পরিবারের

বর্ধমানে সাঁতার শিখতে গিয়ে ১৯ বছরের তরুণের মৃত্যু, খুনের অভিযোগ পরিবারের

বর্ধমানের সেই স্যুইমিং পুল। 

পরিবারের দাবি যুবককে খুন করা হয়েছে। এই দাবিতে কাইফের আত্মীয় শেখ জাকির হোসেন বর্ধমান থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। মৃতের আত্মীয়ের অভিযোগ, আমাদের ছেলে মারা যায়নি ওরা তাঁকে জলে ডুবিয়ে মেরে দিয়েছে ।

বর্ধমান শহরের কল্পতরু সুইমিং পুলে সাঁতার শিখতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে জলে তলিয়ে গিয়ে মৃত্যু হল এক যুবকের। নিহতের নাম কাইফ মন্ডলের (১৯) বাড়ি বর্ধমান থানার অন্তর্গত কেষ্টপুর এলাকায়। প্রতিদিনকার মতো এদিনও কাইফ কল্পতরু চিল্ড্রেন কালচারাল সেন্টারের সুইমিংপুলে সাঁতার কাটতে আসে। তখনই অসুস্থ হয়ে জলে তলিয়ে যায় সে। সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে উদ্ধার করে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে গেলে চিকিৎসকেরা মৃত ঘোষণ করেন।

পরিবারের দাবি যুবককে খুন করা হয়েছে। এই দাবিতে কাইফের আত্মীয় শেখ জাকির হোসেন বর্ধমান থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। মৃতের আত্মীয়ের অভিযোগ, আমাদের ছেলে মারা যায়নি ওরা তাঁকে জলে ডুবিয়ে মেরে দিয়েছে । এর আগেও সেখানে একাধিকবার দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি তাঁর। তিনি বলেন, ‘আমি কল্পতরু সুইমিং পুলের কর্মকর্তারা এবং মালিকের বিরুদ্ধে তদন্ত করে কঠোরতম শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

কল্পতরু সুইমিং পুলের জয়েন্ট সেক্রেটারি সৌগত হালদার জানান, প্রতিদিন সকালে আমাদের তিনটে ব্যাচ আছে। সকালে ৭টা ১৫ র ব্যাচে এই কাইফ মন্ডল নামে ছেলেটি সাঁতার শিখতে আসে। ও একমাস যাবৎ ভর্তি হয়েছে। আমাদের সুইমিং পুলে দু - তিনবার দুর্ঘটনা ঘটার পর মাত্র সাড়ে তিন ফুট থেকে ৪ ফুট জল রেখেছি । তাই এখন জলে ডুবে কারও মৃত্যু হওয়ার সম্ভাবনা নেই।হঠাৎ করেই ছেলেটার মুখ থেকে মনে হয় কিছু বেরোচ্ছিল। আমি ছিলাম না। সঙ্গে সঙ্গে আমাদের কর্মীরা জল থেকে তুলে পেটে চাপ দিল। কিন্তু জল বেরোয়নি। সঙ্গে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর ডাক্তার মৃত বলে ঘোষণা করে।

 

বন্ধ করুন