বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > নবান্ন অভিযানে বাম কর্মীর চোখে লাঠির বাড়ি পুলিশের, দৃষ্টিশক্তি হারানোর আশঙ্কা
আক্রান্ত পিয়াশিস ভট্টাচার্য
আক্রান্ত পিয়াশিস ভট্টাচার্য

নবান্ন অভিযানে বাম কর্মীর চোখে লাঠির বাড়ি পুলিশের, দৃষ্টিশক্তি হারানোর আশঙ্কা

  • পিয়াসিসকে উদ্ধার করে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যান DYFI নেতারা। সেখানে তাঁর চোখে অস্ত্রোপচার হয়। তার পর জিয়াগঞ্জের বাড়িতে ফিরে গিয়েছেন তিনি। কিন্তু এখনো তাঁর দৃষ্টিশক্তি ফেরেনি।

বামেদের নবান্ন অভিযানে যোগ দিয়ে দৃষ্টিশক্তি হারানোর আশঙ্কা এক DYFI কর্মীর। পিয়াশিস ভট্টাচার্য নামে ওই কর্মী মুর্শিদাবাদের জিয়াগঞ্জের বাসিন্দা। গত ১১ ফেব্রুয়ারি বামেদের নবান্ন অভিযানে পুলিশের লাঠি চালনার সময় তাঁর চোখে বাঁশ দিয়ে আঘাত করা হয় বলে অভিযোগ। তার পর কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে অস্ত্রোপচার হলেও এখনো দৃষ্টিশক্তি ফেরেনি তাঁর। 

আক্রান্ত DYFI কর্মী জানিয়েছেন, অভিযানে অংশ নিয়ে কলেজ স্ট্রিটের দিকে এগোচ্ছিলেন তাঁরা। তখন হঠাৎ জলকামান ও টিয়ার গ্যাস ছুড়তে শুরু করে পুলিশ। আগে থেকেই রাস্তা দুদিক দিয়ে ব্যারিকেড করে ঘেরা ছিল। পুলিশের জলকামান ও টিয়ার গ্যাসের সামনে পালাতে পারেননি কেউ। তখনই রাস্তায় পড়ে যান এক মহিলা বাম কর্মী। তাঁকে তুলতে ছুটে যান পিয়াশিস। তখনই তাঁকে লাঠিপেটা করা শুরু করেন এক পুলিশকর্মী। প্রথমে পিঠে পড়ে লাঠি। ঘুরতেই লাঠি এসে পড়ে বাম চোখে। তার পর থেকে সেই চোখে কিছু দেখতে পাচ্ছেন না তিনি। 

পিয়াসিসকে উদ্ধার করে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যান DYFI নেতারা। সেখানে তাঁর চোখে অস্ত্রোপচার হয়। তার পর জিয়াগঞ্জের বাড়িতে ফিরে গিয়েছেন তিনি। কিন্তু এখনো তাঁর দৃষ্টিশক্তি ফেরেনি। তরতাজা যুবকের চোখ নষ্ট হয়ে যাওয়ার ভয়ে কাঁটা গোটা পরিবার।

পিয়াশিস জানিয়েছেন, সেদিন আন্দোলনকারীদের আহত করার জন্য লাঠি চালিয়েছে পুলিশ। আক্রান্ত বাম কর্মীরা রাস্তার পাশে বাড়িতে আশ্রয় নিলে সেখানেও টিয়ার গ্যাসের সেল ছোড়া হয়েছে। 

 

বন্ধ করুন