বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > দাউ দাউ করে জ্বলে গেল মালদহের হাট, অল্পের জন্য রক্ষা পেল থানা
বিধ্বংসী আগুন মালদার হরিশ্চন্দ্রপুরে  (নিজস্ব চিত্র )
বিধ্বংসী আগুন মালদার হরিশ্চন্দ্রপুরে  (নিজস্ব চিত্র )

দাউ দাউ করে জ্বলে গেল মালদহের হাট, অল্পের জন্য রক্ষা পেল থানা

  • ব্য়বসায়ীদের দাবি ভোররাতে বাজারের পশ্চিমদিকে প্রথমে আগুনের শিখা দেখতে পাওয়া যায়।

ভোররাতে আচমকা আগুন। ১৫ মিনিটের মধ্যে আগুনের লেলিহান শিখা গ্রাস করল একের পর এক দোকান। পুজোর আগে সব হারিয়ে কার্যত পথে বসেছেন ব্যবসায়ীরা। বিধ্বংসী আগুনে পুড়ে খাক হয়ে গেল মালদার হরিশ্চন্দ্রপুরের হাটখোলা এলাকায় একাধিক মাছের আড়ত। ব্যবসায়ীদের দাবি ভোর তিনটে নাগাদ আচমকাই আগুন লাগে। অল্পের জন্য হরিশ্চন্দ্রপুর থানার ক্যাম্পাসটা রক্ষা পেয়েছে। বাসিন্দাদের দাবি একটু অসতর্ক হলেই হরিশ্চন্দ্রপুর থানাতেও আগুন ছড়িয়ে পড়তে পারত। ব্য়বসায়ীদের দাবি ভোররাতে বাজারের পশ্চিমদিকে প্রথমে আগুনের শিখা দেখতে পাওয়া যায়। এরপরই তা ক্রমে ছড়িয়ে পড়ে। একের পর এক মাছের আড়তে আগুন ধরে যায়। এদিকে আড়তের মধ্যে মাছ মজুত করা ছিল। সেই মাছও আগুনে ঝলসে যায়। বাজারের চায়ের দোকানে থাকা গ্যাস সিল্ডিরার অন্যান্য বাসনপত্র আগুনে পুড়ে যায়। 

ব্যবসায়ীদের একাংশের দাবি লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়ে গিয়েছে। দমকলে খবর দেওয়া হলেও ইঞ্জিন আসতে দেরি করে বলে বাসিন্দাদের একাংশের অভিযোগ। তার মধ্যেই আগুনে হাটের একাংশ পুড়ে যায়। তবে বাসিন্দারাই কোনওরকমে আগুন নেভানোর কাজে হাত লাগান। পরে দমকল এসে ঘণ্টাখানেকের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে অগ্নিকাণ্ডের পেছনে দুরকম সন্দেহ করছেন বাসিন্দারা। তাদের একাংশের অনুমান, বাজারে একটি চায়ের দোকান রয়েছে। সম্ভবত সেটি থেকেও আগুন লাগতে পারে। অন্যদিকে ষড়যন্ত্র করে কেউ আগুন লাগিয়েছে বলেও কয়েকজন অনুমান করছেন। তবে দমকল আগুন লাগার কারণ খতিয়ে দেখছে।

 

বন্ধ করুন