বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ফুচকা বিক্রেতাকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ দুর্গাপুরে, প্রতিবেশীর খোঁজ নিতে গিয়ে বচসা
ফুচকা বিক্রেতাকে পিটিয়ে খুন।

ফুচকা বিক্রেতাকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ দুর্গাপুরে, প্রতিবেশীর খোঁজ নিতে গিয়ে বচসা

  • মঙ্গলবার হাসপাতালে ওই ফুচকা বিক্রেতার মৃত্যু হয়। তারপরই তিনজনকে গ্রেফতার করে কোকওভেন থানার পুলিশ।

এবার ফুচকা বিক্রেতাকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ উঠল দুর্গাপুরে। এই ফুচকা বিক্রেতার অপরাধ পুরনো পাড়ায় গিয়ে এক প্রতিবেশীর খোঁজ নিচ্ছিলেন। এই খোঁজ নেওয়া নিয়ে পুরনো প্রতিবেশীর সঙ্গে সামান্য বচসা থেকে মারধর পর্যন্ত গড়ায়। আর তার জেরে মৃত্যু হল ফুচকাওয়ালার। মঙ্গলবার হাসপাতালে ওই ফুচকা বিক্রেতার মৃত্যু হয়। তারপরই তিনজনকে গ্রেফতার করে কোকওভেন থানার পুলিশ।

ঠিক কী ঘটেছে দুর্গাপুরে?‌ স্থানীয় সূত্রে খবর, মৃত ফুচকা বিক্রেতার নাম রামপ্রসাদ সরকার (‌৫০)‌। দুর্গাপুর স্টেশন বাসস্ট্যান্ডে ফুচকা বিক্রি করতেন। সোমবার রাতে কোকওভেন থানার দুর্গাপুর স্টেশন সংলগ্ন শ্রমিক নগর এলাকায় পুরনো প্রতিবেশীদের সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন রামপ্রসাদ সরকার। এক বৃদ্ধ প্রতিবেশীকে খাটিয়ায় শুয়ে থাকতে দেখে তাঁর খোঁজ নেন রামপ্রসাদ। তখনই ভুল বোঝাবুঝি তৈরি হয়। তারপর ওই বৃদ্ধের পরিবারের সঙ্গে রামপ্রসাদের বচসা বাধে। তখনই তাঁকে মারধর করা হয়।

তারপর কী ঘটল রমাপ্রসাদের সঙ্গে? জানা গিয়েছে,‌ মাঝরাতে ওই বৃদ্ধের ছেলে ও তাঁর দলবল রামপ্রসাদকে তুলে আনে শ্রমিক নগর সংলগ্ন মাঠের সামনে। তখন রামপ্রসাদকে ব্যাপক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। এমনকী পিটিয়ে খুন করা হয় বলে অভিযোগ। আশঙ্কাজনক অবস্থায় রামপ্রসাদ সরকারকে দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে মৃত্যু হয়।

পুলিশ সূত্রে খবর, এই ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এই তিনজন ব্যক্তি হল– সুরজিৎ সরকার, মনা দাস, শুভজিৎ সরকার। যদিও কোকওভেন থানার পুলিশ মূল অভিযুক্ত বিশ্বজিৎ জানাকে ধরতে পারেনি। সে পলাতক। গোটা ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ। এই বিষয়ে এলাকার কাউন্সিলর শিপুল সাহা বলেন, ‘‌অত্যন্ত নিন্দার ঘটনা। কী কারণে এই ঘটনা ঘটেছে ও কারা যুক্ত, তা তদন্ত করে দেখছে পুলিশ।’‌

বন্ধ করুন