বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ > Opposition Alliance New Name: বদলে গেল UPA-র নাম, বেঙ্গালুরুতে বড় ঘোষণা, বিরোধী জোট এখন ‘INDIA’

Opposition Alliance New Name: বদলে গেল UPA-র নাম, বেঙ্গালুরুতে বড় ঘোষণা, বিরোধী জোট এখন ‘INDIA’

বিরোধী জোটের বৈঠক (PTI)

বিজেপিকে গদিচ্যুত করতে দেশের তাবড় বিরোধী দলগুলি একত্রিত হয়েছে। পটনার পর বেঙ্গালুরুতে মিলিত হন রাহুল গান্ধী, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, লালু প্রসাদ যাদব, নীতীশ কুমাররা। বেঙ্গালুরুতে আজ বিরোধীদের বৈঠকের দ্বিতীয় দিন। সেখানেই জোটের নয়া নামকরণ হয়েছে।

ইউনাইটেড প্রোগ্রেসিভ অ্যালায়েন্সের অস্তিত্ব আর থাকল না। বিরোধীদের জোটের নয়া নাম স্থির হয়ে গেল বেঙ্গালুরুর বৈঠকে। জানা গিয়েছে, বিরোধীরা নয়া জোটের নাম রেখেছে - 'ইন্ডিয়া' বা 'ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক ইনক্লুসিভ অ্যালায়েন্স'। বিজেপিকে গদিচ্যুত করতে দেশের তাবড় বিরোধী দলগুলি একত্রিত হয়েছে। পটনার পর বেঙ্গালুরুতে মিলিত হন রাহুল গান্ধী, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, লালু প্রসাদ যাদব, নীতীশ কুমাররা। বেঙ্গালুরুতে আজ বিরোধীদের বৈঠকের দ্বিতীয় দিন। সেখানেই জোটের নয়া নামকরণ হয়েছে। (দিল্লিতে এনডিএ-র বৈঠক এবং বেঙ্গালুরুতে বিরোধীদের বৈঠকের যাবতীয় লাইভ আপডেট জানতে ক্লিক করুন এখানে)

এদিকে প্রশ্ন থাকছে, বিরোধী জোটের প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী কে হবেন? এই নিয়ে বিরোধী দলগুলির মধ্যেই রয়েছে অনেক দর কষাকষি অঙ্ক। তবে সবথেকে বড় দল হিসেবে কংগ্রেসের ঝুলিতেই সেই পদ যাওয়ার কথা স্বাভাবিক অঙ্কে। যদিও বিরোধী দলের বৈঠকে কংগ্রেস সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়গে স্পষ্ট করে দিলেন, 'ক্ষমতা দখল বা প্রধানমন্ত্রী পদে আগ্রহ নেই কংগ্রেসের'। খাড়গের কথায়, 'ভারতের চেতনাকে রক্ষা করতেই কংগ্রেস বিরোধীদের জোট করতে চায়।' কংগ্রেস সভাপতি বলেন, 'এই বৈঠকে আমাদের উদ্দেশ্য নিজেদের জন্য ক্ষমতা নিয়ে টনাটানি করা নয়। দেশের সংবিধান, গণতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা এবং সামাজিক ন্যায়বিচার রক্ষার জন্য এটা আমাদের এক প্রচেষ্টা।'

এদিকে আজকে দিল্লিতে হতে চলা এনডিএ বৈঠক নিয়ে কটাক্ষ করেন কংগ্রেস সভাপতি। জোটধর্ম নিয়ে বিজেপিকে তোপ দেগে মল্লিকার্জুন খাড়গে বলেন, ‘ক্ষমতাসীন দলের সভাপতি ও দলের নেতারা পুরনো মিত্রদের সঙ্গে মান ভাঙাতে এক রাজ্য থেকে অন্য রাজ্যে দৌড়াচ্ছেন। আমরা ২৬টি দল। ১১টি রাজ্যে সরকারে আছে আমাদের। বিজেপি নিজে থেকে তো আর ৩০৩টি আসন পায়নি। জোটসঙ্গীদের ভোট ব্যবহার করে তারপরে তাদের বাতিলের খাতায় ধরেছে তারা।’

এর আগে গতকাল মমতা বিরোধী নেতাদের বলেছিলেন, ‘গণতন্ত্র বাঁচানোর লড়াই শুরু হয়েছে। ঐক্যবদ্ধ মহাজোট ঠিকভাবে ঘটলে বিজেপির পতন অবশ্যম্ভাবী। এজেন্সির জুজু দেখিয়ে বিজেপি সবার মুখ বন্ধ করতে চাইছে। সেটা দ্রুত বন্ধ করা দরকার। বিরোধীরা যে ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে তাতে বিজেপি পরাস্ত হবেই। বিরোধীদের মুখ বন্ধ করতেই তো বিজেপি এজেন্সিকে কাজে লাগাচ্ছে। সেটা বন্ধ করা প্রয়োজন।’

বন্ধ করুন