বাড়ি > বায়োস্কোপ > বাবার স্মৃতি রোমন্থন করতে গিয়ে আবেগপ্রবণ রাজ , সারলেন শ্রাদ্ধানুষ্ঠান
সোমবার হল রাজ চক্রবর্তীর বাবার শ্রাদ্ধ-শান্তি অনুষ্ঠান
সোমবার হল রাজ চক্রবর্তীর বাবার শ্রাদ্ধ-শান্তি অনুষ্ঠান

বাবার স্মৃতি রোমন্থন করতে গিয়ে আবেগপ্রবণ রাজ , সারলেন শ্রাদ্ধানুষ্ঠান

  • ২৮ শে অগস্ট বাইপাসের ধারে এক বেসরকারি হাসপাতালে প্রয়াত হন রাজ চক্রবর্তীর বাবা। হার্টের সমস্যা নিয়ে ভর্তি হন হাসপাতালে। পরবর্তী সময় করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এসেছিল। 

সময়টা সত্যিই ভালো যাচ্ছেন না পরিচালক রাজ্ চক্রবর্তীর । কদিন আগেই বাবাকে হারিয়েছেন টলিউডের প্রখ্যাত এই পরিচালক । হৃদযন্ত্রের সমস্যা থেকে বুকে ব্যাথা নিয়ে বাইপাসের ধারের এক বেসরকারি হাসপাতালে দীর্ঘদিন ভর্তি ছিলেন রাজের বাবা কৃষ্ণ শংকর চক্রবর্তী । বাবা হাসপাতালে থাকাকালীনই ১৭ই অগস্ট কোভিড রিপোর্ট পজিটিভ আসে রাজের । বাধ্য হয়েই নিজের বাড়িতে আইসোলেশনে যেতে হয় তাঁকে । আর ২৮ শে অগস্ট হাসপাতালেই প্রয়াত হন কৃষ্ণ শংকর বাবু । সেই দিনই রাজের কোভিড-১৯ রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় দূর থেকেই বাবাকে অন্তিম বিদায় জানানোর সুযোগ পেয়েছিলেন। সোমবার দিদিদের সঙ্গে নিয়ে বাড়িতেই বাবার শ্রাদ্ধানুষ্ঠান সারলেন পরিণীতার পরিচালক ।

প্রয়াত কৃষ্ণ বাবুর স্মৃতি চারণ করতে গিয়ে ক্যালক্যাটা টাইমসকে রাজ জানান ' এখনও যেন বিশ্বাসই করতে পারছিনা বাবা চিরকালের মতো আমাদের ছেড়ে চলে গিয়েছেন । আমি , শুভশ্রী , মা এই তিনজনকে নিয়েই ছিল ওনার জগৎ । আমায় উনি শিবু বলে ডাকতেন । শুভশ্রীকে বলতেন সোনা মা । দাদু হতে চলেছেন বলে প্রচন্ড আনন্দে ছিলেন , কিন্তু তাঁর সেই স্বপ্ন আর পূরণ হলো না । শুভশ্রী আমার স্ত্রী নয়,একদমই ছিল ওনার মেয়ের মতন । ও এখনও মানতে পারছেনা বাবা আর নেই ' ।

নিয়ম মেনেই কৃষ্ণ শংকর বাবুর শ্রদ্ধানুষ্ঠান সারল পরিবার (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)
নিয়ম মেনেই কৃষ্ণ শংকর বাবুর শ্রদ্ধানুষ্ঠান সারল পরিবার (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)

এখনও নিজের বাবার পুরোনো হোয়াটস্যাপ চ্যাট খুলে দেখেন রাজ । জানিয়েছেন ,' হাসপাতাল থেকেও নিয়মিত বাবা ফোন করে খবর নিতেন আমি খেয়েছি কি না । ভাত আর পাঁঠার মাংস খেতে খুবই ভালোবাসতেন । রবিবার দুপুরে তাই ওটাই ছিল আমাদের বাঁধাধরা মেনু । খেয়ে উঠে আধ ঘন্টা পরেই চা খেতে চাইতেন বাবা আর মা খুব রেগে যেতেন ' ।

কিন্তু পরিচালক ছেলের কোন সিনেমা সব চেয়ে পছন্দের ছিল কৃষ্ণ বাবুর ? ' বাবার খুব পছন্দের ছবি ছিল প্রলয় এবং বোঝেনা সে বোঝেনা । ' না রে না আর তো পারিনা ' গানটা বাবার খুব পছন্দের গান ছিল । প্রার্থনা করি উনি যেখানেই থাকুন , ভালো থাকুন , আর আমাদের ভবিষ্যৎ জীবনের পথে গাইড করুন সেই ছোটবেলার মতোই ' , জানিয়েছেন শোকসন্তপ্ত রাজ ।

বন্ধ করুন