করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিরুদ্ধে যুদ্ধরত স্বাস্থ্যকর্মী ও চিকিৎসকদের অভিনন্দন জানাতে বৃহস্পতিবার জাতীয় হাততালি অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনের দরজায় বরিস জনসন। ছবি: এপি। (AP)
করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিরুদ্ধে যুদ্ধরত স্বাস্থ্যকর্মী ও চিকিৎসকদের অভিনন্দন জানাতে বৃহস্পতিবার জাতীয় হাততালি অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনের দরজায় বরিস জনসন। ছবি: এপি। (AP)

করোনা সচেতনতা প্রচারে নাগরিকদের পঞ্জাবি, গুজরাতি ও উর্দুতে চিঠি পাঠালেন জনসন

  • জনসন জানিয়েছেন, নিষেধাজ্ঞা ভাঙলে, জমায়েত করলে পুলিশ জরিমানা করবে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ সম্পর্কে দেশের মানুষকে সচেতন করতে ৯০ লাখ পরিবারে চিঠি পাঠালেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। চিঠি লেখা হল পঞ্জাবি, গুজরাতি ও উর্দুতেও।

চিঠিতে ব্রিটিশ নাগরিকদের উদ্দেশে জনসন জানিয়েছেন, ‘আমরা জানি, ভালো হওয়ার আগে আরও খারাপ হয়।’

প্রধানমন্ত্রীর চিঠির সঙ্গে পাঠানো হয়েছে লিফলেট, যাতে রয়েছে Covid-19 উপসর্গ সম্পর্কে যাবতীয় বিবরণ, বাড়িতে লকডাউন থাকার নিয়মাবলী, হাত ধোওয়ার নিয়ম, উপসর্গ দেখা দিলে বাড়িতে সেল্ফ কোয়ারেন্টাইনে থাকার নিয়ম এবং দূর্বল মানুষকে স্বাস্থ্য নিরাপত্তা দেওয়ার খুঁটিনাটি।

ব্রিটেনে ১৫ লাখের বেশি ভারতীয়র বাস। ২০১১ সালের জনগণনা বলছে, ২,৭৩,০০ বাসিন্দা প্রথম ভাষা হিসেবে পঞ্জাবিকে চিহ্নিত করেছেন, ২,৬৯,০০০ জন উর্দুকে এবং ২,১৩,০০০ জন গুজরাতিকে প্রথম ভাষা বলে উল্লেখ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর চিঠিতে লিখেছেন, ‘এই সময় আপনার বাড়ির বাইরে বসবাসকারী আত্মীয়-বন্ধুদের সঙ্গে দেখা করবেন না। খুব সীমিত দরকার ছাড়া বাড়ি ছেড়ে বেরোবেন না। খাবার ও ওষুধ কিনতে, দিনে একবার ব্যায়াম করতে বা চিকিৎসককে দেখানোর মতো প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে বেরোবেন না। পারলে বাড়ি থেকে অফিসের কাজ করুন।’

এ ছাড়া সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার বিষয়েও তিনি সাবধান করেছেন। জনসন জানিয়েছেন, নিষেধাজ্ঞা ভাঙলে, জমায়েত করলে পুলিশ জরিমানা করবে।

আপাতত ৩ সপ্তাহ লকডাউন ঘোষণা করলেও পরে তা বাড়াতে পারে ব্রিটিশ প্রশাসন, মনে করছেন স্বাস্থ্য কর্তারা।

ব্রিটেনের জাতীয় স্বাস্থ্য পরিষেবায় বর্তমানে প্রথম সারিতে রয়েছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূতরাই।

বন্ধ করুন