বাড়ি > ঘরে বাইরে > অ-হিন্দিভাষীদের প্রশিক্ষণ শিবির ছাড়তে বলে তামিল রোষে কেন্দ্রীয় সচিব
কেন্দ্রের জোর করে হিন্দি চাপিয়ে দেওয়ার নীতির সমালোচনায় মুখর তামিল রাজনীতিকরা।
কেন্দ্রের জোর করে হিন্দি চাপিয়ে দেওয়ার নীতির সমালোচনায় মুখর তামিল রাজনীতিকরা।

অ-হিন্দিভাষীদের প্রশিক্ষণ শিবির ছাড়তে বলে তামিল রোষে কেন্দ্রীয় সচিব

যাঁরা হিন্দি জানেন না তাঁদের বেরিয়ে যেতে বলার মতো ঔদ্ধত্য কোনও মতেই গ্রহণযোগ্য নয়।

অনলাইন প্রশিক্ষণ দিতে গিয়ে অ-হিন্দিভাষীদের অধিবেশন ছেড়ে যাওয়ার আর্জি জানিয়ে বিতর্কের সূত্রপাত করলেন কেন্দ্রীয় আয়ূষ সচিব বৈদ্য রাজেশ কোটেচা।

সম্প্রতি কেন্দ্রীয় আয়ূষ মন্ত্রক আয়োজিত ভার্চুয়াল প্রশিক্ষণ শিবিরে কেন্দ্রীয় সচিব মন্তব্য করে বসেন, ‘ইংরেজি খুব ভালো জানি না, তাই হিন্দিতেই বলব। যাঁরা হিন্দি জানেন না, তাঁরা চলে যেতে পারেন।’

কোটেচার মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করেছেন তামিল নাডুর নেতারা। শনিবার ডিএমকে সাংসদ কানিমোঝি কোটেচাকে সাসপেন্ড করার দাবি জানিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে শৃঙ্খলাভঙ্গের জন্য পদক্ষেপের আর্জি জানিয়েছেন। 

শুধু তাই নয়, টুইটারে তামিল নাডুর থুথুকুড়ির সাংসদ লেখেন, ‘কেন্দ্রীয় আয়ূষ মন্ত্রকের সচিব বৈদ্য রাজেশ কোটেচার অ-হিন্দিভাষীদের প্রশিক্ষণ অধিবেশন ত্যাগ করার বিবৃতি জোর করে হিন্দি চাপিয়ে দেওয়া সম্পর্কে প্রচুর বার্তা দিয়েছে। এই প্রচেষ্টা তীব্র ভাবে নিন্দনীয়। সরকারের উচিত সচিবকে সাসপেন্ড করা এবং তাঁর বিরুদ্ধে শৃঙ্খলাসূচক পদক্ষেপ করা। কত দিন পর্যন্ত আর অ-হিন্দিভাষীদের ব্রাত্য রাখার উদ্যোগ সহ্য করা যেতে পারে।’

কোটেচার বিবৃতির কড়া সমালোচনা করে লোক সভার সাংসদ কার্তি চিদম্বরম বলেন, ‘হিন্দি ভাষায় আয়ূষ প্রশিক্ষণে তামিল নাডুর প্রতিনিধিদের এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে। ইংরেজি জানেন না বোঝা গেল, কিন্তু যাঁরা হিন্দি জানেন না তাঁদের বেরিয়ে যেতে বলার মতো ঔদ্ধত্য কোনও মতেই গ্রহণযোগ্য নয়।’

প্রসঙ্গত, চলতি মাসেই এক মহিলা সিআইএসএফ আধিকারিককে তামিল বা ইংরেজিতে কথা বলার অনুরোধ জানিয়ে কানিমোঝিকে শুনতে হয়, ‘আপনি ভারতীয়?’

এই ঘটনা কেন্দ্র করে তামিল নাডু ও কেন্দ্রীয় রাজনৈতিক চত্বরে অনেক জলঘোলা হয়। শেষে ওই আধিকারিক এবং তাঁর আচরণ সম্পর্কে সবিস্তারে খোঁজ নেওয়ার নির্দেশ দেয় কেন্দ্রীয় প্রশাসন।

বন্ধ করুন