বাংলা নিউজ > ময়দান > ক্যাপ্টেন হিসেবে অবসর নিয়েছিলাম, কটাক্ষের জবাবে শোয়েব মালিককে মনে করালেন রামিজ
শোয়েব মালিকের সঙ্গে রামিজ রাজা। ছবি- রয়টার্স।
শোয়েব মালিকের সঙ্গে রামিজ রাজা। ছবি- রয়টার্স।

ক্যাপ্টেন হিসেবে অবসর নিয়েছিলাম, কটাক্ষের জবাবে শোয়েব মালিককে মনে করালেন রামিজ

  • রামিজ রাজা জানিয়েছিলেন যে, পাক দলের দুই সিনিয়র তারকা শোয়েব মালিক ও মহম্মদ হাফিজের সসম্মানে অবসর নেওয়া উচিত। তার প্রেক্ষিতেই শোয়েব সোশ্যাল মিডিয়ায় কটাক্ষ করেন প্রাক্তন পাক অধিনায়ককে।

কটাক্ষের সুর ক্রমশ ধারালো হচ্ছে। কথার লড়াই উত্তপ্ত হচ্ছে একটু একটু করে। পালটা দেওয়ার খেলায় কেউ যে কারও থেকে কম নন, সোশ্যাল মিডিয়ায় সেটা বুঝিয়ে দিচ্ছেন পাকিস্তানের সিনিয়র অল-রাউন্ডার শোয়েব মালিক ও প্রাক্তন অধিনায়ক তথা ধারাভাষ্যকার রামিজ রাজা।

সংবাদমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে রামিজ রাজা জানিয়েছিলেন যে, পাক দলের দুই সিনিয়র তারকা শোয়েব মালিক ও মহম্মদ হাফিজের সসম্মানে অবসর নেওয়া উচিত। অর্থাৎ পাক ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনায় দুই সিনিয়রকে বেমানান হিসেবেই চিহ্নিত করেন রামিজ।

হাফিজ এই নিয়ে কোনও মন্তব্য না করলেও বিষয়টা ভালো চোখে নেননি শোয়েব। সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি পালটা দেন প্রাক্তন অধিনায়ককে। টুইটারে শোয়েব কটাক্ষ করে লেথেন, 'হ্যাঁ রামিজ ভাই, আপনার সঙ্গে আমি একমত। যেহেতু আমরা তিনজনেই কেরিয়ারের শেষ প্রান্তে রয়েছি, তাই চলো তিনজনে একসঙ্গে সসম্মানে সরে যাই। ২০২২ সালে অবসরের পরিকল্পনা করা যাক?'

মালিকের সরাসরি এমন আক্রমণ হজম হয়নি রামিজের। তিনি টুইটারে শোয়েব ও হাফিজকে উদ্দেশ্য করে লেখেন, 'সসম্মানে অবসর কী থেকে? পাক ক্রিকেট নিয়ে আমার ভাবনার কথা জানানো থেকে? পাক ক্রিকেটে আমার মাথা গলানো থেকে? পাক ক্রিকেটকে আবার সগৌরবে ফিরতে দেখার ইচ্ছা প্রকাশ থেকে? কোনও সম্ভাবনা নেই। মালিক সাহেব, এই সব করা থেকে কখনও সসম্মানে বিদায় নেব না। তবে তোমার অবসরোত্তর জীবনের পরিকল্পনার কথা বলি, ২০২২ সালে ধারাভাষ্য শুরু করাও কঠিন হবে, কারণ তখন তুমি আমার বয়সের হয়ে যাবে।'

রামিজ রাজা টুইটের শেষে আরও লেখেন, 'যদি কেরিয়ারের কথা বল, তবে তোমাদের থেকে শিক্ষা নেওয়ার প্রয়োজন নেই। ইতিহাস আমাদের যথাযথ শিক্ষা দেয়। তোমাকে বলতে চাই যে, যখন অবসর নিয়েছিলাম, অমিই ছিলাম পাকিস্তানের ক্যাপ্টেন।'

রামিজ রাজার ইঙ্গিত স্পষ্ট, তিনি অহেতুক দলে জায়গা আঁকড়ে পড়ে থাকতে চাননি। তাই ক্যাপ্টেন থাকা অবস্থায় জাতীয় দল থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলেন।

বন্ধ করুন