বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Nabanna: গ্রামীণ হাট–বাজারে জোর দিতে নির্দেশ, পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে বড় সিদ্ধান্ত
চলছে হাটবাজার (PTI)

Nabanna: গ্রামীণ হাট–বাজারে জোর দিতে নির্দেশ, পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে বড় সিদ্ধান্ত

  • বছর ঘুরলেই পঞ্চায়েত নির্বাচন। আর করোনাভাইরাসের জেরে গ্রামীণ অর্থনীতি ধাক্কা খেয়েছিল। এই দুটি কারণেই এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তাই প্রতিটি শিল্প কেন্দ্র থেকে তাদের জেলার হাট–বাজার নিয়ে বিস্তারিত রিপোর্ট চেয়েছে নবান্ন। 

গ্রামীণ অর্থনীতি ও কৃষিজাত পণ্যের বাণিজ্য নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত নিচ্ছে রাজ্য সরকার। গ্রামীণ অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে এবার প্রত্যেকটি জেলায় হাট–বাজার তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে নবান্ন। কৃষিজাত পণ্যের বাণিজ্যে সাফল্য তুলে ধরতেই এই উদ্যোগ। এই উদ্যোগ নিচ্ছে রাজ্যের ক্ষুদ্র মাঝারি ও কুটির শিল্প দফতর। ইতিমধ্যেই গ্রামীণ হাট–বাজারের পরিকাঠামোগত উন্নয়নের প্রয়োজন নিয়ে বিস্তারিত তথ্য পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ঠিক কী নির্দেশ এসেছে?‌ জানা গিয়েছে, একদিকে হাট–বাজারের পরিকাঠামোর জন্য কি লাগবে অন্যদিকে কোন কোন এলাকায় গ্রামীণ হাট–বাজার তৈরি করতে হবে সেই তালিকা পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেই রিপোর্টে এলাকার নাম, রেলস্টেশন এবং গুরুত্বপূর্ণ বড় রাস্তার কথা জানাতে হবে। এই রিপোর্ট দ্রুত পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে জেলাগুলিকে।

কেন এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে?‌ সূত্রের খবর, বছর ঘুরলেই পঞ্চায়েত নির্বাচন। আর করোনাভাইরাসের জেরে গ্রামীণ অর্থনীতি ধাক্কা খেয়েছিল। এই দুটি কারণেই এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তাই প্রতিটি শিল্প কেন্দ্র থেকে তাদের জেলার হাট–বাজার নিয়ে বিস্তারিত রিপোর্ট চেয়েছে নবান্ন। তার ভিত্তিতেই রাজ্যের ক্ষুদ্র, মাঝারি এবং কুঠির শিল্প দফতরের সচিব রাজেশ পান্ডে জেলাশাসকদের চিঠি দিয়ে জেলার হাট বাজারের পরিকাঠামো নিয়ে জানতে চেয়েছেন।

ঠিক কী লেখা আছে চিঠিতে?‌ চিঠিতে শিল্প দফতরের সচিব লিখেছেন, যে সব গ্রামীণ হাট–বাজারের পরিকাঠামোগত উন্নয়নের প্রয়োজন রয়েছে তার তালিকা পাঠাতে হবে। সেখানে উল্লেখ করতে হবে এলাকার নাম, রেল স্টেশন এবং জাতীয় বা রাজ্য সড়ক বা অন্য কোনও গুরুত্বপূর্ণ বড় রাস্তার নাম। আর তা থেকে বাজার বা হাটের দূরত্ব। কত স্টল রয়েছে, কত মানুষ পেশাগতভাবে যুক্ত, কী কী ধরনের সুযোগ সুবিধা করতে হবে সব উল্লেখ করতে হবে রিপোর্টে।

বন্ধ করুন