বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > তিন দিন ট্রেনে জোটেনি খাবার- জল, মালদায় ট্রেন থেকে নেমেই মৃত্যু কিশোরের
নিহত পীযূষের বাড়ি
নিহত পীযূষের বাড়ি

তিন দিন ট্রেনে জোটেনি খাবার- জল, মালদায় ট্রেন থেকে নেমেই মৃত্যু কিশোরের

  • সোমবার মালদা টাউন স্টেশনে পৌঁছেই বারদুয়ারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার চলে যায় সে। রাতে সেখানে অসুস্থ হয়ে পড়ে কিশোরটি।

শ্রমিক স্পেশ্যাল ট্রেনে অনাহারে থাকার পর বাড়ি পৌঁছে মৃত্যু হল এক কিশোর প্রবাসী শ্রমিকদের। নিহত পীযূষ দাসের (১৫) পরিবারের অভিযোগ এমনই। সোমবার রাতে মালদা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে মৃত্যু হয় তাঁর। 

পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, মাস ছয়েক আগে পরিবারের অনটন সামলাতে মুম্বই গিয়েছিল হরিশ্চন্দ্রপুরের মনোহরপুরের বাসিন্দা পীযূষ। মুম্বইয়ে কল মিস্ত্রীর সহকারী হিসাবে কাজ শুরু করে সে। কিন্তু লকডাউন শুরু হতে কাজ হারায়। গত সপ্তাহে বাড়ি ফিরতে মুম্বই থেকে ট্রেনে ওঠে সে। অভিযোগ, তিন দিন তেমন কিছুই খেতে পায়নি ওই কিশোর। এমনকী জোটেনি পানীয় জল। সোমবার মালদা টাউন স্টেশনে পৌঁছেই বারদুয়ারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার চলে যায় সে। রাতে সেখানে অসুস্থ হয়ে পড়ে কিশোরটি। 

সেখান থেকে তাকে প্রথমে মশালদা গ্রামীণ হাসপাতাল ও পরে মালদা মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে যাওয়া হয় রাতে সেখানে মৃত্যু হয় পীযূষের। ঘটনায় ভেঙে পড়েছে পরিবারটি। ঘরে ফিরেও ফেরা হল না কিশোরের। কিশোর করোনায় আক্রান্ত কি না তা জানতে লালারসের নমুনা সংগ্রহ করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। রিপোর্ট এলে দেহ হস্তান্তর করা হবে। 

 

বন্ধ করুন