বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > গোষ্ঠীকোন্দল! TMC পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে অনাস্থা দলের পঞ্চায়েত সদস্যদের
তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্যে এএনআই)

গোষ্ঠীকোন্দল! TMC পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে অনাস্থা দলের পঞ্চায়েত সদস্যদের

  • অভিযুক্ত পঞ্চায়েত প্রধানের নাম অদুত গাজী। প্রথমে তিনি সিপিএমে ছিলেন। পরে তিনি তৃণমূলে যোগদান করেন। বর্তমানে ওই পঞ্চায়েতের সদস্য সংখ্যা ১৭ জন। অদুত তৃণমূলে যোগ দিলেও সদস্যদের সঙ্গে তার দ্বন্দ্ব অব্যাহত থাকে।

রাজ্যে বিভিন্ন জায়গায় তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল অব্যাহত রয়েছে। এবার তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে অনাস্থা প্রস্তাব আনলেন তৃণমূলেরই পঞ্চায়েত সদস্যরা। মগরাহাট পশ্চিম বিধানসভার নেতরা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। তৃণমূলের ১০ জন সদস্য তার বিরুদ্ধে অনাস্থা এনেছেন বলে জানা গিয়েছে।

অভিযুক্ত পঞ্চায়েত প্রধানের নাম অদুত গাজী। প্রথমে তিনি সিপিএমে ছিলেন। পরে তিনি তৃণমূলে যোগদান করেন। বর্তমানে ওই পঞ্চায়েতের সদস্য সংখ্যা ১৭ জন। অদুত তৃণমূলে যোগ দিলেও সদস্যদের সঙ্গে তার দ্বন্দ্ব অব্যাহত থাকে। সিপিএমে থাকাকালীনও অদুত পঞ্চায়েত প্রধান ছিলেন। কিন্তু দলবদল করলেও তাদের মধ্যে ঠান্ডা লড়াই অব্যাহত থাকে। এরপরে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে পঞ্চায়েতের ১০ জন সদস্য প্রধানের বিরুদ্ধে অনাস্থা আনে। গত ২০ মে ডায়মন্ড হারবার ১ নম্বর ব্লকের বিডিও এবং ডায়মন্ড হারবার থানার আইসির কাছে অনাস্থার আবেদন জানান পঞ্চায়েত সদস্যরা।

আগামী বছরেই পঞ্চায়েত ভোট। তার আগে এই ঘটনায় স্থানীয় রাজনীতির ক্ষেত্রে প্রভাব পড়তে পারে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহল। যদিও দুর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করেছেন পঞ্চায়েত প্রধান। তিনি বলেন, ‘যারা অভিযোগ এনেছে তারা বিরোধীদের হয়ে কাজ করে। তৃণমূলের থেকে তাদের বহিষ্কার করা হয়েছে।’ তিনি আরও জানান, ‘ওরা টাকা চেয়েছিল তা না দেওয়ার জন্য তারা একজোট হয়ে অনাস্থা ডেকেছে।’

বন্ধ করুন