বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > TMC Minister: নয়াদিল্লি যেতে চলেছেন রাজ্যের নয়া পঞ্চায়েতমন্ত্রী, কী উদ্দেশ্যে ঝটিকা সফর?‌
পঞ্চায়েতমন্ত্রী প্রদীপ মজুমদার

TMC Minister: নয়াদিল্লি যেতে চলেছেন রাজ্যের নয়া পঞ্চায়েতমন্ত্রী, কী উদ্দেশ্যে ঝটিকা সফর?‌

  • কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, তাদের নির্দেশিকা মেনে চললেই বরাদ্দ পাঠানো হবে। এবার সেই নির্দেশিকা মেনে কাজ করা হয়েছে। সেই নথিও পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকারকে। এবার সেইসব নথি নিয়ে নয়াদিল্লি যাচ্ছেন পঞ্চায়েতমন্ত্রী।

গ্রামোন্নয়নের কাজে কেন্দ্রীয় সরকার টাকা দিচ্ছে না। একশো দিনের কাজের টাকাও বকেয়া হয়ে পড়ে রয়েছে। অন্যান্য যৌথ প্রকল্পও রাজ্যকেই টেনে নিয়ে যেতে হচ্ছে। এই অভিযোগ একাধিকবার শোনা গিয়েছিল স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গলায়। তিনি প্রধানমন্ত্রীকে চিঠিও লিখেছেন। কিন্তু তাতেও রাজ্যের কোষাগারে টাকা ঢোকেনি। এই পরিস্থিতিতে রাজ্যের কাজের খতিয়ান এবং নথি নিয়ে নয়াদিল্লি যাচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রিসভার পঞ্চায়েতমন্ত্রী প্রদীপ মজুমদার বলে সূত্রের খবর।

বিষয়টি ঠিক কী ঘটতে চলেছে?‌ সুব্রত মুখোপাধ্যায় পঞ্চায়েতমন্ত্রী থাকাকালীন দেখিয়ে দিয়েছিলেন গ্রামের কাজ থেকে ১০০ দিনের কাজ কেমন করে করতে হয়। বারবার পেয়েছিলেন কেন্দ্রীয় সরকারের শংসাপত্র। সেটা ইউপিএ জমানায় এবং এনডিএ জমানাতেও। তবে তাঁকে দেখা যেত বকেয়া টাকার জন্য নয়াদিল্লিতে গিয়ে তদ্বির করতে। তিনি প্রয়াত হয়েছেন। কিন্তু পরিস্থিতি বদলায়নি। গ্রামীণ উন্নয়ন হলেও টাকা মিলছে না। তাই টাকার তদ্বির করতেই নয়া পঞ্চায়েতমন্ত্রী রাজধানী যাচ্ছেন বলে সূত্রের খবর।

কেন আটকে রয়েছে টাকা? জানা গিয়েছে,‌ রাজ্যের পঞ্চায়েত স্তরে কেন্দ্রীয় অনুদানে চলা একাধিক প্রকল্পের সোশ্যাল অডিট অসম্পূর্ণ ছিল বলে অভিযোগ কেন্দ্রের। যদিও তা সম্পূর্ণ করে নেওয়া হয়েছে এখন। নয়াদিল্লির পর্যবেক্ষক দল এসে এমনই রিপোর্টে দিয়েছিল। এমনকী কেন্দ্রের টাকায় চলা প্রকল্পের নাম বদলের জন্য আপত্তি জানিয়েছিলেন তাঁরা। কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, তাদের নির্দেশিকা মেনে চললেই বরাদ্দ পাঠানো হবে। এবার সেই নির্দেশিকা মেনে কাজ করা হয়েছে। সেই নথিও পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকারকে। এবার সেইসব নথি নিয়ে নয়াদিল্লি যাচ্ছেন পঞ্চায়েতমন্ত্রী।

আর কী জানা যাচ্ছে?‌ সূত্রের খবর, কাজের খতিয়ান এবং নথি তৈরি হয়ে গিয়েছে। বিপুল পরিমাণ কাজও এগিয়েছে গ্রামে। গ্রামীণ কাজের নিরিখে পশ্চিমবঙ্গ এগিয়ে রয়েছে। সেই শংসাপত্র এবারও দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। এই পরিস্থিতিতে পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী প্রদীপ মজুমদারকে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন নয়াদিল্লি যেতে। যাতে নয়াদিল্লি গিয়ে সেই নথি এবং কাজের খতিয়ান তুলে ধরে টাকা আদায় করে আনতে পারেন কাজের মানুষ বলে পরিচিত প্রদীপবাবু। কেন্দ্রে এখন গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী হলেন বিহারের বিজেপি নেতা গিরিরাজ সিং। তাঁর সঙ্গে দেখা করবেন তিনি।

বন্ধ করুন