বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ওমিক্রন নিয়ে নবান্নকে চিঠি কেন্দ্রের, মুখ্যসচিবের বৈঠকে জারি একাধিক নির্দেশিকা
নবান্ন (‌ছবি সৌজন্য টুইটার)‌
নবান্ন (‌ছবি সৌজন্য টুইটার)‌

ওমিক্রন নিয়ে নবান্নকে চিঠি কেন্দ্রের, মুখ্যসচিবের বৈঠকে জারি একাধিক নির্দেশিকা

  • দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম এই ভাইরাসের সন্ধান মিলেছিল। এখন তা অনেক দেশেই ছড়িয়ে পড়েছে। আর তা নিয়েই বেড়েছে উদ্বিগ্নতা।

ইতিমধ্যেই কর্নাটক ও নয়াদিল্লিতে রক্তচক্ষু দেখিয়েছে নয়া ভাইরাস ওমিক্রন। তাতেই নড়ে গিয়েছে দেশের স্বাস্থ্যের পরিকাঠামোর পিলার। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে নয়া গাইডলাইন জারি করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। রীতিমতো চিঠি দিয়ে সতর্ক করা হয়েছে রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে। এই চিঠি পাওয়ার পরই কড়া পদক্ষেপ করল নবান্ন। এমনকী নির্দেশিকা জারি করা হল, বাইরে থেকে আসা যাত্রীদের আরটি–পিসিআর পরীক্ষা অবশ্যই করাতে হবে। রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও ৭ দিন থাকতে হবে আইসোলেশনে।

দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম এই ভাইরাসের সন্ধান মিলেছিল। এখন তা অনেক দেশেই ছড়িয়ে পড়েছে। আর তা নিয়েই বেড়েছে উদ্বিগ্নতা। এমনকী ওমিক্রন–এর জেরে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে ১২ দেশকে। এদিন প্রত্যেকটি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলকে চিঠি পাঠিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব রাজেশ ভূষণ। সেখানে পরীক্ষার হার বাড়িয়ে হটস্পট এলাকা চিহ্নিত করতে বলা হবে। প্রয়োজনীয় কোয়ারেন্টাইন থেকে করোনাভাইরাস আক্রান্তদের আইসোলেশনে রাখার কথা বলা হয়েছে। যদি প্রয়োজন পড়ে তাহলে কনটেইনমেন্ট জোন করার কথাও বলা হয়েছে চিঠিতে।

এই চিঠি পাওয়ার পর নবান্নে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ, স্বাস্থ্য অধিকর্তা এবং জেলা প্রশাসনের আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন রাজ্যের মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী। সেখানেই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, বিদেশ থেকে আসা যাত্রীদের উপর পরীক্ষা করতেই হবে। এমনকী যেসব ঝুঁকিপূর্ণ দেশ আছে সেখান থেকে আসা যাত্রীদের অবশ্যই আরটি–পিসিআর পরীক্ষা করাতে হবে। রিপোর্ট পজিটিভি এলেই সঙ্গে সঙ্গে কলকাতা আইডি হাসপাতালে ভর্তি করা হবে। আর নেগেটিভ এলে যাত্রীদের ৭ দিন আইসোলেশনে থাকতে হবে।

যদিও দেশে টিকাকরণের ‘দ্রুত গতি’ এবং ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণের কারণে ওমিক্রন ভেরিয়েন্ট তীব্রতা কম হতে পারে বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। কেন্দ্রীয় সরকার বলেছে, যে উদ্বেগের নতুন রূপটি ভারত–সহ আরও দেশে ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে তবে সংক্রমণের বৃদ্ধির মাত্রা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে ওমিক্রন আতঙ্কের মাঝেই দৈনিক করোনা সংক্রমণ কমল রাজ্যে।

বন্ধ করুন