বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > এবার কলকাতা বানভাসী হওয়ার আশঙ্কা, জারি হয়েছে বিপর্যয়ের সতর্কবার্তা
বৃহস্পতিবার সারাদিন মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস। ছবি: এএফপি। (AFP)
বৃহস্পতিবার সারাদিন মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস। ছবি: এএফপি। (AFP)

এবার কলকাতা বানভাসী হওয়ার আশঙ্কা, জারি হয়েছে বিপর্যয়ের সতর্কবার্তা

  • দুপুর ২.০৩ মিনিটে গঙ্গার জলস্তর হবে প্রায় ১৮ ফুট। ঘূর্ণিঝড়ের দাপট কমলেও আজও কলকাতার একাংশ জোয়ারের জলে ভাসার সম্ভাবনা রয়েছে।

আজ সকাল থেকে ভারী বৃষ্টি শুরু হয়েছে কলকাতায়। সকাল থেকেই শহরের আকাশ মেঘলা এবং তা থেকে বৃষ্টিপাত হচ্ছে। ইতিমধ্যেই কলকাতার জন্য আবহাওয়াবিদদের রয়েছে আরও সতর্কবার্তা। বৃহস্পতিবার সারাদিন মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে দক্ষিণবঙ্গের গাঙ্গেয় উপকূলবর্তী জেলাগুলিতে। বৃহস্পতিবার সকালে রয়েছে ভরা কোটাল। ফলে দুপুর ২.০৩ মিনিটে গঙ্গার জলস্তর হবে প্রায় ১৮ ফুট। ঘূর্ণিঝড়ের দাপট কমলেও আজও কলকাতার একাংশ জোয়ারের জলে ভাসার সম্ভাবনা রয়েছে। বেলা সাড়ে ১১টা থেকে বিকেল ৪টে পর্যন্ত বন্ধ থাকবে লকগেট। ফলে বৃষ্টি হলে কলকাতায় জমবে জল।

আবার ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে মালদহ, উত্তর দিনাজপুর, দার্জিলিং, কালিম্পং–সহ উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতেও। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবেই কলকাতা–সহ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে আজ ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। মৌসম ভবনের সর্বশেষ বুলেটিন অনুযায়ী, ঘূর্ণিঝড় এখন উত্তর ওড়িশা উপকূল অতিক্রম করছে। অভিমুখ ঝাড়খণ্ডের দিকে। ইয়াসের দেরে রাজ্যের পূর্ব মেদিনীপুর ও দক্ষিণ ২৪ পরগণা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত। ভেঙে গিয়েছে একাধিক নদীবাঁধ। জল ঢুকে প্লাবিত গ্রামের পর গ্রাম।

আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, আগামী কয়েক ঘণ্টায় দুই ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি, বীরভূম, মুর্শিদাবাদে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এমনকী ৪০ কিলোমিটার বেগে হাওয়া বইবে। এই সবই ইয়াসের প্রভাবেই। কারণ ইয়াস ক্রমশ শক্তি হারিয়ে অতি গভীর নিম্নচাপে পরিণত হচ্ছে। তার প্রভাবেই ঝাড়খণ্ড ও বিহার লাগোয়া এই রাজ্যের জেলাগুলিতে ভারী বৃষ্টি হচ্ছে। কলকাতায় সকাল থেকে বৃষ্টি হচ্ছে। মাঝে থামলেও আবার শুরু হয়েছে ভারী বৃষ্টি। তার মধ্যে গঙ্গার জলস্তর বাড়লে বানভাসী অবস্থা হবে তিলোত্তমার বলে মনে করা হচ্ছে।

বন্ধ করুন