বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > শোকপ্রস্তাবের সময় কার ফোন বাজল বিধানসভায়? ফোন নিয়ে বিশেষ নির্দেশ স্পিকারের
বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। স্পিকার ফাইল ছবি
বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। স্পিকার ফাইল ছবি

শোকপ্রস্তাবের সময় কার ফোন বাজল বিধানসভায়? ফোন নিয়ে বিশেষ নির্দেশ স্পিকারের

  • বছর তিনেক আগে এভাবেই পাঁচলার তৃণমূল বিধায়কের ফোন বেজে উঠেছিল অধিবেশন চলাকালীন। এরপরই সেই ফোন বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেন স্পিকার।

সোমবার  শীতকালীন অধিবেশনের প্রথম দিন। অধিবেশনের শুরুতেই শোকপ্রস্তাব পাঠ হবে। তারপরেই বিধানসভার অধিবেশন সেদিনের মতো মুলতুবি হয়ে যাবে। এটাই রেওয়াজ। সদ্য প্রয়াতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েই বিধানসভায় শোকপ্রস্তাব পাঠ শুরু করেন স্পিকার। এরপর একেবারে নিস্তব্ধতা। বিধায়কদের প্রতি শোক জ্ঞাপন করে দু মিনিটের জন্য নীরবতা পালনের নির্দেশ দেন স্পিকার। সেই মতো নীরবতা পালন শুরুও হয়েছিল। আচমকাই বেজে ওঠে মোবাইলের রিং টোন। একবার, দুবার নয়, তিনবার বেজে ওঠে মোবাইল ফোন। 

কিন্তু ফোন বাজল কাদের? আর ঠিক ওই সময়ই বাজতে হল? তবে ফোন বেজে উঠলেও তা সঙ্গে সঙ্গে বন্ধও করে দেওয়া হয়। কিন্তু নীরবতা পালনের সময় এভাবে ফোন বেজে ওঠার ঘটনা মানতে পারেননি স্পিকার। এভাবে ফোন বেজে ওঠায় অসন্তোষ প্রকাশ করেন স্পিকার। এদিকে নীরবতা পালন শেষ হতেই স্পিকার বলেন, আপনারা জনপ্রতিনিধি। প্রত্যেকেই দায়িত্বশীল। আমি আগেই নির্দেশ দিয়েছিলাম, অধিবেশনে এলে বিধায়করা যেন মোবাইল বন্ধ করে দেন। কিংবা সাইলেন্ট করে রাখেন। কিন্ত সব সময় তা করা হয়না। 

এদিকে বছর তিনেক আগে এভাবেই  পাঁচলার তৃণমূল বিধায়কের ফোন বেজে উঠেছিল অধিবেশন চলাকালীন। এরপরই সেই ফোন বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেন স্পিকার। তবে এবার আরও কড়া পদক্ষেপ স্পিকারের। এবার একেবারে স্পিকারের কড়া নির্দেশ, এবার থেকে বিধায়করা মোবাইল ফোন বাইরে রেখেই অধিবেশনে আসবেন। তবে এদিনের পরিস্থিতি নিয়ে শাসক- বিরোধী কেউ কোনও মন্তব্য করতে চায়নি।

 

বন্ধ করুন