বাড়ি > বায়োস্কোপ > মাদক পাচারকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে মায়ের ফোন ব্যবহার করতেন রিয়া ?
রিয়া চক্রবর্তী (ফাইল ছবি) (PTI)
রিয়া চক্রবর্তী (ফাইল ছবি) (PTI)

মাদক পাচারকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে মায়ের ফোন ব্যবহার করতেন রিয়া ?

  • মা সন্ধ্যা চক্রবর্তীর ফোন ব্যবহার করেই নাকি মাদকচক্রীদের সঙ্গে লেনদেন করতেন রিয়া, সোমবার এই খবর রটে যায় মিডিয়ায়। 

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর সঙ্গে জড়িত মাদককাণ্ডে গ্রেফতার রিয়া চক্রবর্তী আপতত বাইকুল্লা জেলে বন্দি। টাইমস নাওয়ের রিপোর্টে গত শুক্রবার দাবি করা হয় এনসিবির জেরায় রিয়া চক্রবর্তী সারা আলি খান ও রকুল প্রীত সিংয়ের নাম উল্লেখ করেছেন।নিষিদ্ধ মাদক সেবনের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন এই দুই অভিনেত্রী সহ বলিউডের ১৫ জন অভিনেতা, দাবি করেছেন রিয়া। এদিন এই সর্বভারতীয় চ্যালেনের দাবি এই মামলায় এনসিবির সূত্র সারা ও রকুলের নাম উঠে আসার খবর নিশ্চিত করেছেন। এবং চলতি সপ্তাহেই সারাকে সমন পাঠাতে পারে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো। 

আজ দিনভর সংবাদমাধ্যমে ঘোরা ফেরা করছে মাদক পাচারকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে রিয়া মা সন্ধ্যা চক্রবর্তীর ফোন ব্যবহার করতেন, দাবি করা হয় মিডিয়া রিপোর্টে।এই প্রসঙ্গে এনসিবির ডেপুটি ডিরেক্টর কেপিএস মালহোত্রা একটি বিবৃতিতে জানান, ‘আজ আমাকে বেশ কয়েকজন সাংবাদিক জিজ্ঞাসা করছেন যে নিষিদ্ধ মাদকের লেনদেনের জন্য রিয়া ওর মায়ের ফোন ব্যবহার করত কিনা। আমি জানিয়ে রাখি এটার সত্যতা যাচাই করা হয়নি এবং এই খবরের কোনও ভিত্তি নেই, তদন্তে এমন কিছু উঠে আসেনি’।

মাদক পাচারচক্রের সঙ্গে জড়িত থাকার অপরাধে গত মঙ্গলবার নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর হাতে গ্রেফতার হন রিয়া। অন্যদিকে ৪ সেপ্টেম্বর এনসিবির হাতে গ্রেফতার হন শৌভিক চক্রবর্তী, সুশান্তের হাউজ ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডা। পরের দিন গ্রেফতার করা হয় দীপেশ সাওয়ান্তকে। 

ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট এবং সেশন কোর্টে অভিযুক্তদের জামিনের আর্জি ইতিমধ্যেই খারিজ হয়ে গিয়েছে। আজ সকালে রিয়া ও শৌভিকের আইনজীবী সতীশ মানেসিন্ধে জানান, তিনি কোনওরকম জলদিতে নেই বম্বে হাইকোর্টে তাঁর মক্কেলের জামিনের আর্জি দাখিল করতে।

তিনি বিবৃতিতে বলেন, ‘বন্ধুরা, আমরা আজ রায়ের কপি পেলে কোনও দ্রুততার সঙ্গে চট জলদি কোর্টে যাব না। আমরা সেটি ভালোভাবে স্টাডি করব এবং এনসিবির তরফে এই মামলা কীভাবে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে সেই নিয়ে খোঁজ খবর নেব। এবং তারপর সিদ্ধান্ত নেব। এখানে জল্পনার কোনও জায়গা নেই। একবার জামিনের আবেদন দাখিল করা হয়ে গেল আমরা সেই কপি আমরা সামনে আনব’।

বন্ধ করুন