বাড়ি > বায়োস্কোপ > কুশল ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন বাবা’ ছিল, দাবি স্ত্রী অড্রে ডলহেনের
অভিযোগ, অসুখী দাম্পত্য জীবনই কুশল পঞ্জাবিকে আত্মহত্যার দিকে ঠেলে দেয়।
অভিযোগ, অসুখী দাম্পত্য জীবনই কুশল পঞ্জাবিকে আত্মহত্যার দিকে ঠেলে দেয়।

কুশল ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন বাবা’ ছিল, দাবি স্ত্রী অড্রে ডলহেনের

আমাদের বিবাহিত জীবনে সমস্যা থাকলেও অসফল দাম্পত্য বলা যায় না। আমি কখনও কিয়ানকে তার বাবার সঙ্গে কথা বলায় বাধা দিতাম না। আসলে কুশলই পরিবার সম্পর্কে মনোযোগী ছিল না।

আত্মঘাতী অভিনেতা কুশল পঞ্জাবির মৃত্যুর জন্য তিনি দায়ী নন, সাফ জানালেন তাঁর স্ত্রী অড্রে ডলহেন। উলটে প্রয়াত অভিনেতাকে ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন বাবা’ বলে তিনি উল্লেখ করেছেন।

গত ২৬ ডিসেম্বর রাতে বান্দ্রায় নিজের বাড়িতে আত্মঘাতী হন কুশল। এর পরেই জল্পনা শুরু হয়, অসুখী দাম্পত্য জীবনই তাঁকে আত্মহত্যার দিকে ঠেলে দিয়েছে। সম্প্রতি সেই অভিযোগ নাকচ করে পালটা বিবৃতি দিয়েছেন অড্রে ডলহেন।

২০১৫ সালে তাঁদের বিয়ে হলেও ছেলে কিয়ানের জন্মের পরে কুশল ও অড্রের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি ঘটতে শুরু করে। অড্রে জানিয়েছেন, ‘আমাদের বিবাহিত জীবনে সমস্যা থাকলেও অসফল দাম্পত্য বলা যায় না। আমি কখনও কিয়ানকে তার বাবার সঙ্গে কথা বলায় বাধা দিতাম না। আসলে কুশলই পরিবার সম্পর্কে মনোযোগী ছিল না।’

পিপিংমুন ডট কম ওয়েব পোর্টালে এক সাক্ষাত্কারে অড্রে জানিয়েছেন, ‘আমি ওকে সাংহাই এসে থাকার আমন্ত্রণ জানিয়েছিলাম, কিন্তু সে ব্যাপারে ওর কোনও আগ্রহই ছিল না। উদাসীন বাবার প্রতি আগ্রহ কমতে থাকে কিয়ানেরও। কুশলের সঙ্গে সম্পর্ক বাঁচানোর সব রকম চেষ্টা করেছিলাম।’

বর্তমানে একটি চিনা সংস্থায় দায়িত্বপূর্ণ পদে কর্মরত অড্রে আরও জানিয়েছেন, ‘আমার সংস্থার সঙ্গেো চুক্তিবদ্ধ ছিলাম, কিন্তু বিষয়টি কুশল কখনও বুঝতে চায়নি। ও চেয়েছিল, আমি লন্ডনে গিয়ে বসবাস করি। আমার পক্ষে চাকরি ছাড়া সম্ভব ছিল না। কুশল অত্যন্ত দায়িত্বজ্ঞানহীন বাবা ছিল, যে কোনও দিন ছেলের ভবিষ্যত্ সম্পর্কে চিন্তা করত না। গোটা দাম্পত্য জীবনে আমাকেই সব সহ্য করতে হয়েছে। ক্রিসমাসের ছুটিতে ছেলেকে নিয়ে আমিই শুধু ফ্রান্সে বেড়াতে গিয়েছিলাম। বুঝতে পারছি না, কেন ওর মৃত্যুর জন্য আমাকে দায়ী করা হচ্ছে, বিবাহিত জীবনে ব্যর্থ হয়েছিল কুশলই।’

অড্রে ডলহেনের দাবি, কুশল অত্যন্ত দায়িত্বজ্ঞানহীন বাবা ছিল, যে কোনও দিন ছেলের ভবিষ্যত্ সম্পর্কে চিন্তা করত না।
অড্রে ডলহেনের দাবি, কুশল অত্যন্ত দায়িত্বজ্ঞানহীন বাবা ছিল, যে কোনও দিন ছেলের ভবিষ্যত্ সম্পর্কে চিন্তা করত না।

ওই পোর্টালে দাবি করা হয়েছে, অড্রে ডলহেনের বিরুদ্ধে কুশলকে নিরন্তর হেনস্থা করার অভিযোগ এনেছেন নিহত অভিনেতার বাবা-মা। তাঁদের দাবি, বিবাহ বিচ্ছেদের জন্য কুশলের থেকে মোটা টাকা চেয়েছিলেন অড্রে। এমনকি তিন বছর বয়েসি ছেলে কিয়ানকে নিয়ে সাংহাই পাড়ি দেওয়ায় কুশলের জীবন তছনছ হয়ে গিয়েছিল বলেও তাঁদের অভিযোগ। এই সমস্ত কারণের জেরেই আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নেন কুশল, এই তথ্যের ভিত্তিতে অভিযোগ দায়ের করেছেন নিহত অভিনেতার বাবা-মা। তার ভিত্তিতে অড্রে ডলহেনকে সমন পাঠিয়েছে মুম্বই পুলিশ।

রিয়েলিটি শো ‘জোর কা ঝটকা’-তে জয়ী হওয়ার সুবাদে প্রথম প্রচারের আলোয় আসেন কুশল পঞ্জাবি। এর পর ‘ফিয়ার ফ্যাক্টর’, ‘পইসা ভারী পড়েগা’ ও ‘ঝলক দিখলা যা’-এর মতো একাধিক রিয়েলিটি শোতে তাঁকে দেখা যায়। এ ছাড়া লক্ষ্য, কাল. সলাম-এ-ইশক, ধন ধনা ধন, গোল এবং ক্রেজি কুক্কড় ফ্যমিলির মতো বেশ কিছু ছবিতেও তিনি অভিনয় করেন।

বন্ধ করুন