বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ২৪শে পা আনন্দী ওরফে অভিকার! ধারাবহিকে অর্জিত অর্থ থেকে জমিয়েছিলেন মাত্র ৫ হাজার
আনন্দীর চরিত্রে অভিনয় করে জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন অভিকা গোর। 
আনন্দীর চরিত্রে অভিনয় করে জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন অভিকা গোর। 

২৪শে পা আনন্দী ওরফে অভিকার! ধারাবহিকে অর্জিত অর্থ থেকে জমিয়েছিলেন মাত্র ৫ হাজার

  • ২০০৯ সালে অন দ্য কাউচ উইথ কোয়েল শো-তে অভিকার কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, তুমি কি জানো তুমি যে অর্থ উপার্জন করেছো, তা কোথায় গিয়েছে?

কালার্সের জনপ্রিয় শো ‘বালিকা বধূ’ দিয়ে ঘরে ঘরে পরিচতি পেয়েছিলেন অভিকা গোর। ছোট্ট বয়সে আনন্দী-র মতো জনপ্রিয় চরিত্রে অভিনয় বদলে দিয়েছিল তাঁর কেরিয়ার গ্রাফ। আজ ২৪ বছরে পা রাখলেন সেই ফুটফুটে আনন্দী ওরফে অভিকা। সেসময় এক সাক্ষাৎকারে অভিকার কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল ধারাবাহিক থেকে উপার্জিত অর্থ নিয়ে তিনি কী করেছেন? আর এই প্রশ্নে বেশ চমকে দেওয়ার মতো তথ্য দিয়েছিলেন আনন্দী। 

২০০৯ সালে অন দ্য কাউচ উইথ কোয়েল শোয়ে কোয়েল পুরির প্রশ্নের উত্তরে অভিকার কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, তুমি কি জানো তুমি যে অর্থ উপার্জন করেছো, তা কোথায় গিয়েছে? কিছু সময় ভেবে অভিকা হিন্দিতে উত্তর দিয়েছিলেন, 'আমার বাবা আমাকে বলেছে সেই টাকা ইনসোরেন্স ফান্ডে জমা করা আছে। আর কিছু টাকা ওই ৫ হাজার ২২২ টাকা জমা করা আছে আমার পিগি ব্যাঙ্কে।' অভিকার কাছে তারপর জানতে চাওয়া হয়, সে ওই টাকা দিয়ে কী করবে। যার উত্তরে 'ছোট্ট আনন্দী' জানায়, আমি নিজেকে কিছু উপহার হিসেবে দেব। আরও জানান নিজের অর্জিত অর্থ থেকে তিনি একটাকাও কারও জন্য বা কিছু কিনে খরচ করেননি। নিজের জন্য অনেক টাকা জমানোই তাঁর উদ্দেশ্য। সঙ্গে আনন্দী জানিয়েছিলেন, তাঁর বাবা তাঁকে একটি আই ফোন কিনে দিয়েছিলেন জন্মদিনে।

আজ যদিও অভিকা গর পুরোপুরি বদলে গিয়েছেন। আর পাঁচটা চাইল্ড অর্টিস্টের মতো তিনি অভিনয় জগত থেকে সরে যাননি। বরং, চুটিয়ে কাজ করে চলেছেন বলিউডে। একাধিক ধারাবাহিক, ওয়েব সিরিজ ও সিনেমায় দেখা গিয়েছে তাঁকে। গোয়ার ছেলে মিলিন্দ চাঁদওয়ানির সঙ্গে সম্পর্ক নিয়েও খুল্লামখুল্লা অভিকা। কথা বলেন মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে! কিছুদিন আগে নেটমাধ্যমে ছড়িয়ে গিয়েছিল একটি গুজব। যেখানে দাবি করা হয়েছিল গোপনে বড় হচ্ছে অভিকা গৌর এবং মণীশ সিংঘনের সন্তান। মণীশের সঙ্গে 'শ্বশুরাল সিমার কা'তে কাজ করেছেন অভিকা।

অভিনেত্রীকে এ প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, 'এমনটা শুনে আমিও খুব অবাক হয়ে গিয়েছিলাম। কী করে এমনটাও লোকে ভাবতে পারে। আমার সঙ্গে মণীশের সম্পর্ক খুব ভালো। ও আমার জীবনে একটা স্পেশ্যাল জায়গা নিয়ে রেখেছে। কিন্তু সেটা কখনোই ভালোবাসার সম্পর্ক নয়।'

বন্ধ করুন