বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > এমি অ্যাওয়ার্ড ২০২০ : লাল গালিচায় রেড হট অবতারে প্রিয়াঙ্কা-স্মৃতি মেদুর নায়িকা
স্মৃতি মেদুর প্রিয়াঙ্কা (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)
স্মৃতি মেদুর প্রিয়াঙ্কা (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)

এমি অ্যাওয়ার্ড ২০২০ : লাল গালিচায় রেড হট অবতারে প্রিয়াঙ্কা-স্মৃতি মেদুর নায়িকা

  • করোনার জেরে এবছর বাতিল হয়েছে এমির রেড কার্পেট অনুষ্ঠান।মূল অনুষ্ঠানেও এবছর যোগ দেননি দেশি গার্ল। তবে স্মৃতি রোমন্থন করেলেন নায়িকা।

করোনার জেরে এবছর অ্যাওয়ার্ড শোয়ের ফরম্যাটেও বদল এসেছে। সোমবার ভোরে অনুষ্ঠিত হল ৭২তম এমি অ্যাওয়ার্ড। তবে এইবার ভার্চুয়াল রেড কার্পেটেই সন্তুষ্ট থাকতে হল সেলেবদের। যদিও এই বছর অপেক্ষাকৃত কম গ্ল্যামারাস এই ইভেন্টে যোগ দেননি প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। তবে এমির মঞ্চে কাটানো কিছু সুন্দর মুহূর্তের কথা স্মরণ করে স্মৃতি মেদুর দেশি গার্ল। সময়ের চাকা ঘুরিয়ে নায়িকা পৌঁছে গিয়েছিলেন ঠিক চার বছর আগে। ২০১৬ সালে এমির মঞ্চে রেড হট অবতারে তাক লাগিয়েছিলেন প্রিয়াঙ্কা। সেই অনুষ্ঠানের কিছু মুহূর্তই এদিন সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করে নিলেন মিসেস নিক জোনাস।

এই ভিডিয়োর মাধ্যমে অনুষ্ঠানে পুরস্কারের দৌড়ে থাকা সকল ব্যক্তিত্বকে শুভেচ্ছা জানান পিদি চপস। তিনি লেখেন- ‘ আজের সন্ধ্যায় মনোনীত হওয়া সকলকে জানাই অনেক শুভ কামনা!’

২০১৬ সালে এমির মঞ্চে উপস্থাপক হিসাবে হাজির হয়েছিলেন প্রিয়াঙ্কা। টম হিডলস্টোনের সঙ্গে একটি পুরস্কার পেশ করেছিলেন অভিনেত্রী। সেই বার এমির মঞ্চে ওয়ান শোল্ডার অফ রেড গাউনে দেখা মিলেছিল প্রিয়াঙ্কার, যা ডিজাইন করেছিল জেসন হু। ২০১৬-র এমির লাল গালিচার অন্যতম সেরা লুকস ছিল এটি। 

এই বছর সরাসরি বাড়ি থেকে রেড কার্পেট ইভেন্টে যোগ দিলেন তারকারা। যদিও অনুষ্ঠানের সঞ্চালক জিমি কিমেল হাজির হয়েছিলেন স্ট্যাপেলস সেন্টার থেকেই। এবিসি নেটওয়ার্কে সম্প্রচারিত এই অনুষ্ঠানের দর্শক আসন এবার ফাঁকাই থাকল। তার বদলে তারকাদের প্রতিকৃতি রাখা হয়েছিল দর্শকাসনে।  টেলিভিশনে উল্লেখযোগ্য অবদানের জন্য এমি পুরস্কার প্রদান করা হয়ে থাকে। এটিকে ছোটপর্দার অস্কারও বলা হয়।

এই বছর অভিনব এমির আসর (ছবি সৌজন্যে- এবিসি, এপি)
এই বছর অভিনব এমির আসর (ছবি সৌজন্যে- এবিসি, এপি)

অ্যাওয়ার্ডের জন্য প্রতিযোগিতায় থাকা প্রতিটি নেটওয়ার্ক এবং স্ট্রিমিং সাইট আগেই জানিয়েছিল এই বছরের এমির আসরে পুরস্কার জিতলে এক লাখ মার্কিন ডলার অনুদান হিসাবে দেওয়া হবে ‘নো কিড হাংরি’ নামে এক সংগঠনকে। করোনা সংকটের কারণে দুর্দশায় থাকা শিশুদের ক্ষুধা নিবারণের কাজে নিযুক্ত এই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। 

বন্ধ করুন