৩১ মার্চ পর্যন্ত বায়োমেট্রিক হাজিরা দিতে হবে না কর্মীদের।
৩১ মার্চ পর্যন্ত বায়োমেট্রিক হাজিরা দিতে হবে না কর্মীদের।

করোনার কোপে বায়োমেট্রিক হাজিরা, স্পর্শ এড়াতে প্রক্রিয়া স্থগিত কেন্দ্রের

কেন্দ্রীয় সরকারের মানবসম্পদ ব্যবস্থাপক পার্সোনেল ও ট্রেনিং দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত বায়োমেট্রিক হাজিরা দিতে হবে না কর্মীদের।

নোভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কায় কর্মীদের বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে হাজিরায় শুক্রবার ছাড় ঘোষণা করল কেন্দ্র।

এ দিন এক নির্দেশিকায় কেন্দ্রীয় সরকারের মানবসম্পদ ব্যবস্থাপক পার্সোনেল ও ট্রেনিং দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত বায়োমেট্রিক হাজিরা দিতে হবে না কর্মীদের।

বদলে সমস্ত কর্মীকে হাজিরা খাতায় নিজেদের উপস্থিতি চিহ্নিত করার নির্দেশ দিয়েছে দফতর। এই নির্দেশিকায় সই রয়েছে দফতর অধিকর্তা অজয় কুমার সিংয়ের।

ভারতে এ পর্যন্ত মাত্র ৩১ জন করকোনাভাইরাস সংক্রমণের শিকার হলেও সতর্কতায় কোনও ঢিলেমি দিতে নারাজ প্রশাসন। এ দিনের নির্দেশিকায় আরও জানানো হয়েছে, ‘ভাইরাসের প্রকৃতি দেখে সব রকম রোগ নিরোধক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে কর্মীদের নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে। যে হেতু সংক্রামিত অঞ্চল থেকেই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে, সেই কারণে স্পর্শের বিষয়ে অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বন করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।’

এই কারণেই আধার ভিত্তিক বায়োমেট্রিক ব্যবস্থায় আপাতত ছাড় দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় দফতর।

উল্লেখ্য ২০১৪ সাল থেকে এই অত্যাধুনিক ডিজিটাল পদ্ধতিতে কর্মীদের হাজিরার প্রক্রিয়া সরকারি দফতরগুলিতে চালু করে নরেন্দ্র মোদী সরকার। প্রক্রিয়া চালু হওয়ার পরে কর্মসংস্কৃতিতে আমূল পরিবর্তন ঘটেছে বলে দাবি করেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী মোদী।

বন্ধ করুন