লেপার্ডটিকে শিকার করা হয় এবং তার ভিডিয়ো শ্যুট করে চোরাশিকারিরা।
লেপার্ডটিকে শিকার করা হয় এবং তার ভিডিয়ো শ্যুট করে চোরাশিকারিরা।

অসমে লেপার্ড শিকার করে মাংস খেল গ্রামবাসীরা, গ্রেফতার ৪

  • এ ছাড়া, আরও ৩টি লেপার্ড ও একটি হাতি লকডাউনে মারা গিয়েছে বলে খবর।

লকডাউনের মাঝেই চলেছে চোরাশিকারের রমরমা। অসমে লেপার্ড শিকার এবং পরে তার মাংস খাওয়ার অভিযোগে ৪ জনকে গ্রেফতার করল পুলিশ।

করোনা সংক্রমণ রুখতে দেশজুড়ে লকডাউনের জেরে পোয়াবারো চোরাশিকারিদের। অসমের গোলাঘাটের ঘটনায় চার জন গ্রেফতার হওয়ার পাশাপাশি আরও ৩টি লেপার্ড ও একটি হাতি মারা গিয়েছে বলে খবর। উদ্ধার হয়েছে ৫টি লেপার্ড।

গোলাঘাটের বনাধিকারিক ভাস্কর ডেকা জানিয়েছেন, ‘গত ১৭ এপ্রিল লেপার্ডটিকে শিকার করা হয় এবং তার ভিডিয়ো শ্যুট করে চোরাশিকারিরা। সোশ্যাল মিডিয়ায় আমরা ওই ভিডিয়োটি ১৮ এপ্রিল দেখতে পাই এবং ওই দিনই মৃত লেপার্ডের দেহটি উদ্ধার করা হয়।’

তিবি জানিয়েছেন, মৃত লেপার্ডের পিছনের পা দুটি কেটে বাদ দেওয়া অবস্থায় পাওয়া গিয়েছে। দেহটি অহমগাঁও গ্রামের জঙ্গলাকীর্ণ এলাকায় মাটিতে পুঁতে রাখা হয়েছিল বলেও তিনি জানান।

ভিডিয়ো থেকে ক্লিপ থেকে পাওয়া সূত্র ধরে ঘটনায় জড়িত গ্রামবাসী জুনমন গগৈ, রক্তিম গগৈ, ঠগিরাম গগৈ ও নিত্যানন্দ সইকিয়াকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বনাধিকারিক জানিয়েছেন, অভিযুক্তদের একজন লেপার্ডের মাংস খাওয়ার কথা জানালেও তার কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। উল্লেখ্য, ভারতের বন্যপ্রাণ সুরক্ষা আইনের ৯ নম্বর ধারায় লেপার্ড সুরক্ষিত প্রাণীর তালিকাভুক্ত।

এই ঘটনা ছাড়াও গোলাঘাট জেলাতেই আরও দুটি লেপার্ড এবং একটি বনবিড়াল শিকারের খবর পাওয়া গিয়েছে। আরও পাঁচটি লেপার্ডকে খাঁচা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডেকা।

চলতি সপ্তাহের সোমবারে কুমড়াকাটা সংরক্ষিত অরণ্যে তড়িদাহত হয়ে মারা গিয়েছে একটি হস্তিনী। সংরক্ষিত বনের মধ্যে দিয়ে যাওয়া হাই-ইন্টেন্সিটি বিদ্যুৎবাহী তার স্পর্শ করার পরেই তার মৃত্যু হয়।



বন্ধ করুন