বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > ভারতীয় ফুটবল দলকে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে ভুল সুনীলকে ট্যাগ করলেন BCCI প্রেসিডেন্ট
সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এবং সুনীল ছেত্রী।

ভারতীয় ফুটবল দলকে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে ভুল সুনীলকে ট্যাগ করলেন BCCI প্রেসিডেন্ট

  • ভারতীয় ফুটবলের বিশেষ দিনে ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ক তথা বর্তমান বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ও এই খুশিতে সামিল হয়েছেন। তিনি টুইট করে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সুনীল ছেত্রীদের। আর সেখানেই করে বসেছেন মস্ত ভুল। ভুল সুনীল ছেত্রীকে ট্যাগ করেছেন তিনি। যা নিয়ে বিতর্কও শুরু হয়েছে।

এএফসি এশিয়ান কাপের তৃতীয় রাউন্ডের কোয়ালিফায়ারের প্রথম দুই ম্যাচে কম্বোডিয়াকে ২-০ ও আফগানিস্তানকে ২-১ হারিয়ে বেশ ভাল জায়গায় ছিল ভারতীয় দল। কোয়ালিফিকেশন মোটামুটি নিশ্চিতই ছিল। এ বার সরকারি ভাবেও তা নিশ্চিত হয়ে গেল।

মঙ্গলবার এশিয়ান কাপ যোগ্যতা অর্জন পর্বে গ্রুপের শেষ ম্যাচে নামবে ভারত। কিন্তু এই ম্যাচের কয়েক ঘন্টা আগে জানা যায়, সরাসরি এশিয়ান কাপের জন্য যোগ্যতা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে ভারত।

আর এই কারণে উচ্ছ্বসিত গোটা দেশ। আর ভারতীয় ফুটবলের বিশেষ দিনে ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ক তথা বর্তমান বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ও এই খুশিতে সামিল হয়েছেন। তিনি টুইট করে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সুনীল ছেত্রীদের। আর সেখানেই করে বসেছেন মস্ত ভুল। ভুল সুনীল ছেত্রীকে ট্যাগ করেছেন তিনি। যা নিয়ে বিতর্কও শুরু হয়েছে। কী ভাবে সুনীল ছেত্রীর বদলে নেপালের কোন এক সুনীলকে ট্যাগ করে বসলেন তিনি? ভারতের ফুটবল দলের অধিনায়ককে কি তিনি চেনেন না?

সৌরভ টুইটে নেপালের সুনীলকে ট্যাগ করে লিখেছেন, ‘এএফসি এশিয়ান কাপ ২০২৩ এ যোগ্যতা অর্জন করাটা দারুণ বিষয়। ওরা খুব ভালো কাজ করেছ ভারতীয় ফুটবল দল। সুনীল ছেত্রীর নেতৃত্বে, দলটি দারুণ মানসিকতা দেখিয়েছে, এবং এর জন্য ফুটবলের মক্কার থেকে ভালো জায়গা আর হয় না। দর্শকদের তরফ থেকেও দুর্দান্ত সমর্থন এসেছে।’

সৌরভের সেই পোস্টের পরেই, নেপালের সুনীল কিন্তু পাল্টা টুইট করে ভ্রম সংশোধন করতে বলেছেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্টকে। তিনি লিখেছেন, ‘হায় সৌরভ, এটা নেপালের সুনীল, আপনাদের অধিনায়ক সুনীল ছেত্রী নয়। প্লিজ ঠিক করে নেবেন।’

এশিয়ান কাপ কোয়ালিফায়ারের ছ'টি গ্রুপের প্রথম ছ'টি দল তো কোয়ালিফাই করবেই, পাশাপাশি দ্বিতীয় স্থানে শেষ করা সেরা পাঁচটি দলেরও মূলপর্বে খেলার ছাড়পত্র পাওয়ার কথা। ভারতের দুই ম্যাচে ছয় পয়েন্ট থাকলেও গোলপার্থক্যে তারা হংকংয়ের বিরুদ্ধে পিছিয়ে নিজেদের গ্রুপ ‘ডি’তে দ্বিতীয় স্থানে ছিল। আজ হংকংকে হারালেই গ্রুপ শীর্ষে পৌঁছে যেতেন সুনীল ছেত্রীরা। তা না হলে ভারতের অন্তত সেরা পাঁচটি দ্বিতীয় স্থানে শেষ করা দলের মধ্যে থাকার সম্ভাবনা প্রবল ছিল।

আরও পড়ুন: ভারতে ফুটবলজ্ঞান খুবই কম, দুই ম্যাচ জিতেই সমালোচকদের একহাত নিলেন কোচ স্টিমাচ

সেই সম্ভবনা এখন সুনিশ্চিত হয়ে গেল। গ্রুপ ‘বি’র ম্যাচে ফিলিপিন্স প্যালেস্টাইনের কাজে নিজেদের শেষ কোয়ালিফায়ার ম্যাচ হেরে যায়। ফলে ফিলিপিন্স চার পয়েন্টেই আটকে রইল। অপরদিকে, ভারতের দখলে এমনিই ছয় পয়েন্ট রয়েছে। হংকংয়ের বিরুদ্ধে জিতলে বা ড্র করলে তো কথাই নেই, হারলেও কোনওমতেই তারা ফিলিপিন্সের পরে শেষ করবে না। তাই ভারত যে প্রথম পাঁচটি দ্বিতীয় স্থানে শেষ করা দলের মধ্যে থাকবে, তা নিশ্চিত হয়ে গেল।

এর ফলেই শেষ ম্যাচে হংকংয়ের বিরুদ্ধে মাঠে নামার আগেই সুনীল ছেত্রীরা এশিয়ান কাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে ফেললেন। ২০১৯-র পর আবারও ২০২৩-এ মহাদেশের সেরা দলগুলির বিরুদ্ধে মাঠে নামবে ব্লু টাইগার্স। নিজেদের ফুটবল ইতিহাসে এই প্রথম পরপর দুইটি এশিয়ান কাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করল ভারত। তবে এই কোয়ালিফায়াই করার ফলে ভারত হংকং ম্যাচকে হালকাভাবে নেবে এমনটা মনে করার কোনও কারণ নেই। বড়জোর ইগর স্টিমাচ দলের তরুণদের একটু পরখ করে নেওয়ার বাড়তি ছাড় পাবেন এই যা।

বন্ধ করুন