বাংলা নিউজ > ময়দান > IND vs ENG: লর্ডসে ভারতীয় দলের আগ্রাসনে ‘ভীত’ ইংল্যান্ড নিজেদের পায়েই কুড়ুল মারে,দাবি প্রাক্তন ইংল্যান্ড তারকা পানেসরের
লর্ডসে বাটলার ও কোহলির বাক্য বিনিময়। ছবি- রয়টার্স। (Action Images via Reuters)
লর্ডসে বাটলার ও কোহলির বাক্য বিনিময়। ছবি- রয়টার্স। (Action Images via Reuters)

IND vs ENG: লর্ডসে ভারতীয় দলের আগ্রাসনে ‘ভীত’ ইংল্যান্ড নিজেদের পায়েই কুড়ুল মারে,দাবি প্রাক্তন ইংল্যান্ড তারকা পানেসরের

  • লর্ডস টেস্টে শেষ দিনে একাধিকবার বাক্য বিনিময়ে জড়াতে দেখা যায় দুই দলের ক্রিকেটারদের।

লর্ডসে ভারতীয় দলের ব্যাটিংয়ের সময় পঞ্চম দিনে একাধিকবার ইংল্যান্ড দলের সঙ্গে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় করতে দেখা যায় জসপ্রীত বুমরাহ ও মহম্মদ শামিকে। কথার আগুনের পাশপাশি বল হাতেও শর্ট বলের ফোয়ারে ছুটিয়ে ভারতীয় টেল এন্ডারদের বিব্রত করার চেষ্টা করেন মার্ক উডসহ ইংলিশ বোলাররা। তবে তাতে লাভের লাভ কিছুই হয়নি ম্যাচ জিতে নেয় ভারত।

তৃতীয় দিনের শেষে জেমস অ্যান্ডারসনের বিরুদ্ধে জসপ্রীত শর্ট বল করা নিয়ে শুরু হয় বিতর্ক। পঞ্চম দিনে বুমরাহ-মহম্মদ শামির ব্যাটিংয়ের সময় পাল্টা উডের আগুনে গতির ব্যবহার করে শর্ট বলের মাধ্যমে ভারতীয় টেলএন্ডারদের ভয় দেখানোর চেষ্টা করে ইংল্যান্ড। তাতে বরং আরও দৃঢ় প্রতিজ্ঞ হয়ে শামি-বুমরাহ ৮৯ রানের নজির গড়া পার্টনারশিপ করেন। পাল্টা ইংল্যান্ড ব্যাটিংয়ে নামলেও দুই দলের মধ্যে চাপানউতোর চলতে থাকে।

ব্যাট হাতে শামি ও বুমরাহ যথাক্রমে ৩৪ ও ৫৬ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলার পর শুরুতেই ইংল্যান্ড ওপেনারদের ফিরিয়ে জয়ের পথ সুপ্রসস্থ করেন। ম্যাচের পর বিরাট কোহলি স্বীকার করেন যে ব্যাটিংয়ের সময় ইংল্যান্ড ক্রিকেটারদের আগ্রাসন ও বাক্য বিনিময় ভারতীয় দলকে ম্যাচ জিততে আরও উদ্বুদ্ধ করে এবং বোলারদের তাঁতিয়ে। প্রাক্তন ইংল্যান্ড ক্রিকেটার মন্টি পানেসর মনে করেন ভারতীয় দলকে ভয় দেখাতে নিজের পায়েই কুড়ল মারে ইংল্যান্ড।

Times of India-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে পানেসর জানান, ‘ইংল্যান্ড ভেবেছিল ভারতীয় দলকে ভয় দেখাবে। তবে ওরা ভুলে গিয়েছিল বিরাট কোহলি কী ধরনের চরিত্র, ও কিচ্ছু ভোলে না। বিরাট ব্যালকানি থেকে সবটা দেখছিল এবং স্বাভাবিকভাবেই ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে মাঠে চাপ সৃষ্টি করে। ওর সতীর্থকে কেউ ভয় দেখিয়ে চলে যাবে, বিরাট তা একেবারেই বরদাস্ত করে না। ইংল্যান্ডের পরিকল্পনাটা পুরোপুরি উল্টে যায়। শেষমেশ ওদেরই বরং ভারতের বিরুদ্ধে ভীত দেখিয়েছে। এই ভারতীয় দলকে কিছু করলে বিরাট সবসময় তার পাল্টা জবাব দেবেই।’

পানেসর দাবি করেন ভারতীয় দলের বিরুদ্ধে ইংল্য়ান্ডের এই পরিকল্পনার পিছনে দলের কোচ ক্রিস সিলভারউড এবং টিম ম্যানেজমেন্টরই ভূমিকা রয়েছে। তবে দিনের শেষে ভারতের পক্ষেই সেটা কাজে লাগে। ‘আমি নিশ্চিত ইংল্যান্ড কোচ ক্রিস সিলভারউডই এই পরিকল্পনার পিছনে রয়েছেন। ওই বলেছিল বাউন্সার মেরে ভারতীয় ১০-১১ নম্বর (আদপে ৯-১০) ব্যাটসম্যানদের ভয় দেখাতে। তবে ভারতীয় দল তাতে আরও তেঁতে ওঠে। পরিশেষে ভারতীয় দলের পরিকল্পনাগুলি সঠিক ছিল এবং ম্যাচ জিতেত ওরা সক্ষম হয়।’ জানান প্রাক্তন ইংলিশ স্পিনার।

বন্ধ করুন