বাংলা নিউজ > ময়দান > অনুশীলনে চাপ নিয়েছি বলেই ম্যাচে সফল, ভালো খেলার ফর্মুলা বললেন স্কাই

অনুশীলনে চাপ নিয়েছি বলেই ম্যাচে সফল, ভালো খেলার ফর্মুলা বললেন স্কাই

শতরানের পর সূর্যকুমার যাদব (ANI)

SKY vouches on practice to succeed in matches- নিবিড় অনুশীলনেই সাফল্য, সোজা কথা মুম্বইয়ের তারকার। 

সাধারণত একটা কথা সফল মানুষরা বলেন,বেশি চাপ নিও না। কিন্তু রাজকোটে অপরাজিত শতরানের পর সূর্যকুমার যাদব বললেন ঠিক সেটার উলটো কথা। অনুশীলনে অতিরিক্ত চাপ নেন বলেই ম্যাচে অতটা অবলীলাক্রমে খেলতে পারেন বলে জানান মুম্বইয়ের এই ক্রিকেটার। আন্তর্জাতিক টি২০তে নিজের তৃৃতীয় সেঞ্চুরির দৌলতে স্কাই নিশ্চিত করেন যে ৯১ রানে শেষপর্যন্ত ভারত জিতেছে তৃতীয় ও নির্ধারক টি২০। ফলে কোনও ফর্ম্যাটে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ না হারার যে রেকর্ড ভারতের আছে, সেই ধারা অব্যাহত থাকল।

তবে এদিনের ম্যাচে দুই দলের মধ্যে পার্থক্য নিশ্চিত ভাবেই গড়ে দিলেন স্কাই। ৫১ বলে অপরাজিত ১১২, নয়টি ছক্কা ও সাতটি চারের মাধ্যমে। এমন কিছু শট মারলেন যা এত ক্রিকেটের মধ্যেও অনেকদিন মনের অ্যালবামে সযত্নে তুলে রাখবেন ক্রিকেটপিপাসুরা তবে যে কোনও জাদুর মতোই সূর্যের এই কসরত কিন্তু দেখতে সহজ হলেও বাস্তবে খুবই কঠিন। চরম ব্যালেন্স, চোখ ও হাতের মধ্যে সমন্বয়, ম্যাচ সেন্স ও অকুতভয় থাকার যে গুণ তাঁর মধ্যে আছে, সেটাই তাঁকে করে তোলে অনন্য। ম্যাচের শেষে হর্ষ ভোগলেকে তাই সূর্য বললেন, খুব সহজে এই সব শট খেলা যায় না। এর নেপথ্যে আছে বছরের পর বছর ধরে নিবিড় অনুশীলন। হাজার ওয়াটের ফ্ল্যাশবাল্বের আড়ালে সবার নজর এড়িয়ে নিজের তুণে নয়া অস্ত্র জুড়েছেন সূর্য। অন্যদের মতো সহজে সুযোগ পাননি। তিরিশে পা দিয়ে তবে এসেছে কাঙ্খিত ডাক। কিন্তু সেই সময়টা দিয়েছেন আরও ক্ষুরধার হওয়ার জন্য। তাই মাত্র ৪৩ ইনিংসে পেরোলেন ১৫০০-র গণ্ডি ১৮০-র ওপর স্ট্রাইকরেটে। গেইল, এবি, ম্যাক্সওয়েল সহ টি২০-র যারা এলিট শ্রেনির, তারাও কখনও এত দ্রুত রান করতে পারেননি যা করছেন সূর্য।

তবে কোনও ম্যাজিক নয়, সবের নেপথ্যেই আছে অনুশীলনের জাদু। লেগের ওপর দিয়ে রাম্প শটটি তো আছেই কিন্তু থার্ডম্যানের ওপর দিয়ে যে শটটি তিনি আজও খেললেন, সেটায় চাইলে পেটেন্টও নিতে পারেন সূর্য। তাঁর দলের কোচ হচ্ছেন ক্রিকেট ব্যাকরণের উপাসক রাহুল দ্রাবিড়। সেই কারণেই হর্ষের প্রশ্ন ছিল যে দ্রাবিড় কোনও টিপস কি দেন সূর্যকে। উত্তরে স্কাই বলেন যে সেভাবে কিছু আলাদা করে বলেন না কোচ। নিজেই প্র্যাকটিস করেন তিনি, গ্যাপে কীভাবে বল প্লেস করা যায়, পিছনের ছোটো বাউন্ডারিতে কীভাবে বেশি বল পাঠানো যায় সেটিকে টার্গেট করে। ভারতীয় ক্রিকেটের ইতিহাসে হয়তো সচিন-কোহলিদের সরণীতে স্থান হবে না সূর্যের, কিন্তু নতুন ভাবে টি২০-র সংজ্ঞা লেখার ক্ষেত্রে যে স্কাইয়ের অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে, সেটা বলাই বাহুল্য।

 

বন্ধ করুন