বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > চরম অব্যবস্থা, অ্যাম্বুল্যান্স নেই, ছটফট করে পানিহাটির মেলায় মারা গেলেন ভক্তরা !
পানিহাটির মেলায় অসুস্থদের চিকিৎসা চলছে।

চরম অব্যবস্থা, অ্যাম্বুল্যান্স নেই, ছটফট করে পানিহাটির মেলায় মারা গেলেন ভক্তরা !

  • বছর দুয়েক কোভিডের জেরে মেলা বন্ধ ছিল। এবার শুরু হতেই একেবারে জনসমুদ্র । আর সেখানেই গরমে, ভিড়ে, অসুস্থ হয়ে মারা গেলেন কয়েকজন। প্রশ্ন উঠছে আগাম ব্যবস্থা কেন থাকল না? থাকলে কি তাঁদের বাঁচানো যেত?

ভয়াবহ পরিস্থিতি পানিহাটির দই চিড়ের মেলাতে।। মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের দাবি পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে বলে শুনেছি। পরে জানা যায় ৩জনের মৃত্যু হয়েছে। এদিকে মেলাকে কেন্দ্র করে চরম অব্যবস্থার অভিযোগ করছেন ভক্তরা। সিংহভাগ পূণ্যার্থীদের দাবি, প্রচণ্ড গরমে গাদাগাদি ভিড়। ব্যবস্থার কোনও বালাই নেই। কোনও অ্যাম্বুল্যান্স, কোনোও স্বাস্থ্য সহায়তা শিবিরের ব্যবস্থা ছিল না বলে ভক্তদের দাবি। আর তার জেরেই মারাত্মক বিপর্যয় হয়ে গেল পানিহাটির দই চিড়ের মেলাতে।

ভক্তদের দাবি, কোভিড পরিস্থিতির জেরে দুবছর বন্ধ ছিল মেলা। আর এবছর মেলার আয়োজন হতেই দলে দলে ভিড় হতে শুরু করে। সংকীর্ণ রাস্তায় একদিক দিয়েই প্রবেশ ও সেই দিক দিয়েই প্রস্থানের ব্যবস্থা। তাতে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হয়ে ওঠে। এর সঙ্গেই প্রচণ্ড গরম। একদিকে গরম ও অন্যদিকে ভিড়, একের পর এক পূণ্যার্থী অসুস্থ হয়ে পড়েন। প্রচুর বৃদ্ধ, বৃদ্ধা এই মেলাতে এসেছিলেন। তাঁরা যখন অসুস্থ হয়ে পড়লেন তাঁদের পাশে দাঁড়ানোর মতো কোনও চিকিৎসক বা স্বাস্থ্যকর্মীদের পাওয়া যায়নি বলে অভিযোগ।

কার্যত কাঁধে চাপিয়ে ভিড় ঠেলে তাদের বের করা হয়। এরপর হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্থা করা হয়। কিন্তু ভক্তদের দাবি প্রচন্ড ভিড়ে অসুস্থ হয়ে পড়লেও বাড়ি ফেরার মতো কোনও গাড়ি পাওয়া যায়নি। মেলার মধ্যে ছটফট করতে শুরু করেন ভক্তরা।

এদিকে ভক্তদের মুখে ভুরি ভুরি অভিযোগ শুনে এক স্বেচ্ছাসেবকের দাবি, সব ব্যবস্থা ছিল মেলাতে। হার্টের রোগ নিয়ে এসেছিলেন কেন মেলায়? 

বন্ধ করুন