বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Online exam: প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের অফিস চত্বরেই অনলাইন পরীক্ষায় বই দেখে চলল গণ টোকাটুকি
বই, নেট দেখেই অনলাইন পরীক্ষা দিলেন পড়ুয়ারা। প্রতীকী ছবি।

Online exam: প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের অফিস চত্বরেই অনলাইন পরীক্ষায় বই দেখে চলল গণ টোকাটুকি

  • জলপাইগুড়ি শহরে অবস্থিত এই কলেজের অনেক ছাত্র-ছাত্রীকে গণ টোকাটুকি করে পরীক্ষা দিতে দেখা গেল জেলার প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের অফিস চত্বরে। এমনকি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতি অফিসে ঢোকার মুখে সেই দৃশ্য দেখে কার্যত মুখ ফিরিয়ে নেন। যদিও ছাত্র-ছাত্রীদের দাবি, এখনও তাদের সিলেবাস শেষ হয়নি।

কলেজ পড়ুয়াদের দীর্ঘ আন্দোলনের মুখে পড়ে অবশেষে অফলাইনের পরিবর্তে অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়। আর সেই অনলাইন পরীক্ষাতেই দেখা গেল গণটোকাটুকি। কেউ বই দেখে, কেউ আবার নেট থেকে দেখে পরীক্ষা দিলেন। বুধবার উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের আনন্দচন্দ্র কমার্স কলেজের দ্বিতীয় ও চতুর্থ সেমিস্টারের ছাত্র ছাত্রীরা প্রকাশ্যে এভাবেই গণটোকাটুকি করে পরীক্ষা দিলেন।

জলপাইগুড়ি শহরে অবস্থিত এই কলেজের অনেক ছাত্র-ছাত্রীকে গণটোকাটুকি করে পরীক্ষা দিতে দেখা গেল জেলার প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের অফিস চত্বরে। এমনকি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতি অফিসে ঢোকার মুখে সেই দৃশ্য দেখে কার্যত মুখ ফিরিয়ে নেন। যদিও ছাত্র-ছাত্রীদের দাবি, এখনও তাদের সিলেবাস শেষ হয়নি। তাই অনলাইনে পরীক্ষা ছাড়া গতি নেই। বই দেখে পরীক্ষা দেওয়ার কথা কার্যত স্বীকার করে নিয়েছেন পড়ুয়ারা। তাদের বক্তব্য, ‘অফলাইনে পরীক্ষা হলে না দেখে লিখতে হত। অনলাইনে হচ্ছে তাই দেখে পরীক্ষা দিচ্ছি।’

এ বিষয়ে আনন্দ চন্দ্র কমার্স কলেজের অধ্যক্ষ সিদ্ধার্ত সরকার বলেন, ‘অনলাইন পরীক্ষায় আমাদের কোনও নজরদারী থাকে না। বিশ্ববিদ্যালয় বলেছে অনলাইন পরীক্ষা ওপেন বুক পরীক্ষা নয়। তবে কোভিডকালে আমরা দেখেছি অনলাইন পরীক্ষার সময় বই খুলেই পরীক্ষা দিয়েছে ছাত্রছাত্রীরা।’ তাঁর মতে, অনলাইন পরীক্ষা মানেই পক্ষান্তরে বই খুলে পরীক্ষা।

অন্যদিকে, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান লক্ষ্মীমোহন রায় বলেন, ‘উচ্চশিক্ষা দফতরের আওতায় পরীক্ষা হচ্ছে। এখানে আমার কোনও এক্তিয়ার নেই। তাই আমি দেখেও না দেখার ভান করেছি। তবে আমার মনে হয় অনলাইন পরীক্ষায় বই দেখে পরীক্ষা দিলে আদৌও কোনও লাভ হয় না।’

বন্ধ করুন