বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Sikkim flash flood: সিকিমের বিপর্যয়ে দেহ ভেসে গেল ওপার বাংলায়, ভারতকে হস্তান্তর করল বাংলাদেশ

Sikkim flash flood: সিকিমের বিপর্যয়ে দেহ ভেসে গেল ওপার বাংলায়, ভারতকে হস্তান্তর করল বাংলাদেশ

সিকিমের বিপর্যয়। REUTERS/Brihat Rai  (REUTERS)

শুক্রবার বাংলাদেশের লালমনিরহাটের তিস্তা নদীতে দেহগুলি ভাসতে দেখেন স্থানীয়রা। তাদের কাছ থেকে খবর পেয়ে বাংলাদেশের স্থানীয় পুলিশ দেহগুলি উদ্ধার করে। পরে খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারে যে দেহগুলি ভারত থেকে ভেসে গিয়েছে। এরপরে বাংলাদেশের পুলিশ বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর সঙ্গে যোগাযোগ করে।

অসমে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে তিস্তা নদীতে একের পর এক ভেসে গিয়েছে বহু দেহ। এখনও পর্যন্ত যতগুলি পাওয়া গিয়েছে তার মধ্যে অধিকাংশ উদ্ধার হয়েছে বাংলা থেকে। এবার তিস্তার জলে ওপার বাংলাতেও ভেসে গেল দেহ। বেশ কয়েকটি দেহ ভেসে গিয়েছে বাংলাদেশে। সেখানে উদ্ধার হওয়া ২টি দেহ ভারতের হাতে তুলে দিল বাংলাদেশ। জানা গিয়েছে শুক্রবার রাতে এই দেহগুলি বিএসএফের হাতে তুলে দেয় বাংলাদেশের সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিজিবি। কোচবিহারের গিতালদহ এবং বাংলাদেশের লালমনিহাট সীমান্তে কফিনবন্দি দেহগুলি ভারতের হাতে তুলে দেওয়া হয়। 

আরও পড়ুন: Sikkim Flash Flood: অস্ত্র ভাসিয়ে আনছে তিস্তা, নদীতে নামলেই বিরাট বিপদ

জানা গিয়েছে, শুক্রবার বাংলাদেশের লালমনিরহাটের তিস্তা নদীতে দেহগুলি ভাসতে দেখেন স্থানীয়রা। তাদের কাছ থেকে খবর পেয়ে বাংলাদেশের স্থানীয় পুলিশ দেহগুলি উদ্ধার করে। পরে খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারে যে দেহগুলি ভারত থেকে ভেসে গিয়েছে। এরপরে বাংলাদেশের পুলিশ বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর সঙ্গে যোগাযোগ করে। পরে তারা ভারতের বিএসএফকে খবর দেয়। এ নিয়ে শুক্রবার রাত ৮ টা নাগাদ ভারত বাংলাদেশের লালমনিরহাট থানার কর্ণপুরের চওড়াটারী গ্রামে দুই দেশের বাহিনীর মধ্যে ফ্লাগ মিটিং হয়। দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী ছাড়াও সেখানে উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের পুলিশ। উভয় পক্ষের মধ্যে বৈঠক শেষ হওয়ার পর বিএসএফের হাতে কফিনবন্দি দেহ তুলে দেওয়া হয়। যদি ও মৃতদেহগুলির পরিচয় জানা যায়নি। 

ভারতের পক্ষে এদিন বৈঠক উপস্থিত ছিলেন বিএসএফের ৯০ নম্বর ব্যাটেলিয়ানের অ্যাসিস্ট্যান্ট কমান্ডেন্ট কমান্ড্যান্ট পাপ্পু মিনা  গীতালদহ ফাঁড়ির পুলিশ আধিকারিক রাজেন্দ্র তামাং ও বিএসএফের অন্যান্য কর্তারা। অপরদিকে বাংলাদেশের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন লালমনির হাট থানার ওসি ওমর ফারুক। এছাড়া, ১৫ নম্বর বিজিবি কোম্পানি কমান্ডার শরিফুল ইসলামও ছিলেন বৈঠকে।

উল্লেখ্য, সিকিমে মেঘভাঙা বৃষ্টি এবং হড়পা বন্যায় এ পর্যন্ত ৪১ জনের মৃত্যু হয়েছে। প্রায় ১২০০ ঘরবাড়ি ভেসে গিয়েছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন প্রায় ২৫ হাজার মানুষ। এছাড়াও অনেকে নিখোঁজ রয়েছেন। উদ্ধারকারী দল তৎপরতার সঙ্গে উদ্ধারকার্য চালাচ্ছে। সিকিমের প্রশাসনিক সূত্রে জানা গিয়েছে, ২৬ জন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এছাড়া ত্রাণ শিবিরে আশ্রয় নিয়েছেন। সিকিমের বাসিন্দার পাশাপাশি নিখোঁজ রয়েছেন বহু বাঙালি পর্যটক। যার মধ্যে রয়েছে বীরভূমের একই পরিবারের ৮ সদস্য।

বাংলার মুখ খবর
বন্ধ করুন

Latest News

'আজও ওর সঙ্গে...' মৃত্যুর পর বাড়ি ছাড়তে পারেননি সুশান্ত? দিদিকে বলেন কোন কথা? 'ভাবি শুধু বাংলায়', মাতৃভাষাকে ভালোবেসে গান গাইলেন রণিতা চা বিক্রি থেকে গৃহশিক্ষকতা, অভাবের সংসারের হিমাংশু আজ সফল IAS কোহলি-গেইলকে পিছনে ফেলে রেকর্ড গড়ার দিনেও বাবরকে পিছু ছাড়ল না স্ট্রাইক রেট হরিয়ানা সীমান্তে আন্দোলনে গুলিবিদ্ধ কৃষকের ‘মৃত্যু’! দিল্লি যাত্রা আপাতত স্থগিত বিয়ের পর টানা ৬ বার ব্রেন অপারেশন স্বামীর, হাত ধরলেন স্ত্রী, তারপর..... ডেঙ্গি কমাবে রাজ্যের স্পেশ্যাল অ্যাপ, মশা মুক্তিতে কাজে লাগবে ট্র্যাকিং সিস্টেমও শিশু চোর সন্দেহে রূপান্তরকামী সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারকে খুঁটিতে বেঁধে মার, ধৃত ২ উচ্চমাধ্যমিকে উত্তরের বদলে প্রশ্নপত্র জমা দিয়ে বাড়ি গেল ছাত্র! পুরনো ল্যাম্পের জায়গায় বসবে LED লাইট! ২.৯ কোটি টাকা দিল রাজ্য, কোথায় বসবে এবার?

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.