বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > 'আর কী হলে কথা শুনবে?', RG করে অসুস্থ আরও একজন, মমতার কাছে 'হাতজোড়' অভিভাবকদের
'আর কী হলে কথা শুনবে?', RG করে অসুস্থ আরও একজন, মমতার কাছে 'হাতজোড়' অভিভাবকদের
'আর কী হলে কথা শুনবে?', RG করে অসুস্থ আরও একজন, মমতার কাছে 'হাতজোড়' অভিভাবকদের

'আর কী হলে কথা শুনবে?', RG করে অসুস্থ আরও একজন, মমতার কাছে 'হাতজোড়' অভিভাবকদের

অনশনরত ছাত্রদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন অভিভাবকরাও।

‌আর জি কর মেডিকেল কলেজ এবং হাসপাতালে ডাক্তারি পড়ুয়াদের অনশনমঞ্চে অসুস্থ হয়ে পড়লেন আরও এক ছাত্র। কিছুদিন আগেই একজন ছাত্র অসুস্থ হয়ে পড়েন। তিনি সিসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ফের আরও এক ছাত্র অসুস্থ হয়ে পড়ায় স্বাস্থ্য দফতরের হস্তক্ষেপের দাবি তুললেন অসুস্থ ছাত্রের মা।

টানা ২০ দিন অধ্যক্ষের অপসারণের দাবিতে অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন আর জি কর হাসপাতালের ডাক্তারি পড়ুয়ারা। এদিন সন্ধ্যায় প্রতিদিনের মতোই মিছিল করে আন্দোলনকারী চিকিৎসকরা। মিছিল চলার সময়ে অনশন মঞ্চেই ছিলেন সিঞ্জন শিকারী নামে এক ডাক্তারি পড়ুয়া। মাথা ঘুরে পড়ে যান। সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালের ওয়ার্ডে নিয়ে যান আন্দোলনকারীরা। ঘটনা ঘটার সময়ে সিঞ্জনের কাছেই ছিলেন তাঁর মা। ছেলেকে এভাবে অসুস্থ হয়ে যেতে দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন মা। তাঁর দাবি, দ্রুত যেন পড়ুয়াদের দাবিগুলি মেনে নেওয়া হয়। অনশনরত ছাত্রদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন অভিভাবকরাও। আরজি কর হাসপাতালের অধ্যক্ষ সন্দীপ ঘোষের পদত্যাগের দাবিকে নৈতিক সমর্থন জানিয়ে প্রতীকী অনশন করলেন তাঁরা।

অনশনরত ছাত্ররা একের পর এক অসুস্থ হয়ে পড়ায় অভিভাবকদের মধ্যে একজন জানান, 'উৎসবের দিনগুলিতে না খেয়ে ছেলেমেয়েরা বসে রয়েছে। আর কী কী হলে স্বাস্থ্য দফতর ওদের কথা শুনবে? অধ্যক্ষের এত দাম্ভিক আচরণ কেন? মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই এই সমস্যার সমাধান করতে পারেন। একজন ছাত্র সিসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছে। হাতজোড় করে অনুরোধ করছি। কিছু একটা করুন।' এর আগে সমস্যা সমাধানে পড়ুয়াদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন ৪ বিধায়ক ও একজন সাংসদ। কিন্তু সেই বৈঠক থেকে কোনও সমাধানসূত্র বের হয়নি।


বন্ধ করুন