বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > হঠাৎ রাজ্যপাল–শিক্ষামন্ত্রী বৈঠক রাজভবনে, কোন সিদ্ধান্তে সিলমোহর পড়ল?‌ ‌

হঠাৎ রাজ্যপাল–শিক্ষামন্ত্রী বৈঠক রাজভবনে, কোন সিদ্ধান্তে সিলমোহর পড়ল?‌ ‌

শিক্ষামন্ত্রী–রাজ্যপাল বৈঠক।

উপাচার্য নিয়োগে রাজ্যপালের মনোনীত প্রতিনিধি, একাধিক বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপক নিয়োগে রাজ্যপালের মনোনীত প্রতিনিধি–সহ নানা ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয় বলে সূত্রের খবর। উপাচার্য নিয়োগ নিয়ে রাজ্যের পক্ষ থেকে আইন সংশোধনের পরই শিক্ষা দফতরের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন রাজ্যপাল।

আজ, শুক্রবার শিক্ষামন্ত্রী–রাজ্যপাল বৈঠক হল। আজ প্রায় ৪৫ মিনিট রাজভবনে বৈঠক হয় শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু ও জগদীপ ধনখড়ের মধ্যে। এখন রাজ্য–রাজ্যপাল সংঘাত বজায় রয়েছে। তার মধ্যে এই বৈঠক বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। একসময় রাজ্যপালকে নাম না করে পাগলা জগাই বলে আক্রমণ করেছিলেন শিক্ষামন্ত্রী।

ঠিক কী নিয়ে রাজ্যপাল–শিক্ষামন্ত্রী বৈঠক?‌ সূত্রের খবর, এই বৈঠকে উপাচার্য নিয়োগ–সহ শিক্ষার নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। এমনকী আগামী দিনে উচ্চশিক্ষা কোন দিকে যাবে তা নিয়েও আলোচনা হয়েছে। এখানে উপাচার্য নিয়োগ প্রধান ইস্যু ছিল। যা নিয়ে রাজ্যপাল নানা সমস্যা তৈরি করছেন। তবে এবার রাজ্যপাল সহযোগিতা করবেন বলেই শিক্ষামন্ত্রীকে জানিয়েছেন।

ঠিক কী টুইট করেছেন রাজ্যপাল?‌ এদিনের বৈঠক শেষে রাজ্যপাল টুইট করেন। সেখানে তিনি লেখেন, ‘‌উচ্চশিক্ষা সংক্রান্ত নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে বর্তমান পরিস্থিতি রাজ্যে কেমন তা নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। উচ্চশিক্ষাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া নিয়ে কথা হয়েছে।’‌ টুইট করে তিনি উচ্চশিক্ষায় সহযোগিতার বার্তাও দিয়েছেন। সম্প্রতি একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিয়োগকে বেআইনি বলে সম্বোধন করেছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়।

উল্লেখ্য, উপাচার্য নিয়োগে রাজ্যপালের মনোনীত প্রতিনিধি, একাধিক বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপক নিয়োগে রাজ্যপালের মনোনীত প্রতিনিধি–সহ নানা ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয় বলে সূত্রের খবর। উপাচার্য নিয়োগ নিয়ে রাজ্যের পক্ষ থেকে আইন সংশোধনের পরই শিক্ষা দফতরের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন রাজ্যপাল। উচ্চশিক্ষা দফতরের ফাইল ফেরত পাঠিয়ে দিচ্ছেন। যদিও এই বৈঠক নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু কোন প্রতিক্রিয়া দেননি।

বন্ধ করুন