বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের সংখ্যা জানতে চেয়ে বিজ্ঞপ্তি KMC-র, তৈরি হয়েছে বিতর্ক
কলকাতা পুরসভার মূল ভবন। ফাইল ছবি

অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের সংখ্যা জানতে চেয়ে বিজ্ঞপ্তি KMC-র, তৈরি হয়েছে বিতর্ক

  • গত ১৭ ফেব্রুয়ারি এ নিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে কলকাতা পুরসভা। কোন বিভাগে কত অবসরপ্রাপ্ত কর্মী রয়েছে তা জানানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।

কলকাতা পুরসভার কোষাগারের আর্থিক অবস্থা সঙ্গীন। সেই কথা মাথায় রেখেই পুরসভায় অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের পুনর্নিয়োগ করা হবে না বলেই ঘোষণা করেছিলেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম। কিন্তু, সম্প্রতি পুরসভার অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের তথ্য জানতে চাওয়া নিয়ে একটি বিজ্ঞপ্তিকে কেন্দ্র করে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। পুরসভার একাংশ আধিকারিকের মতে অবসরপ্রাপ্ত কর্মী নিয়োগের জন্য এই বিজ্ঞপ্তি। অন্যদিকে, আরেকাংশ মনে করছেন অন্য কারণে এই বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে।

গত ১৭ ফেব্রুয়ারি এ নিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে কলকাতা পুরসভা। কোন বিভাগে কত অবসরপ্রাপ্ত কর্মী রয়েছে তা জানানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে। আগামী ১০ মার্চের মধ্যে এই সংখ্যা জানাতে হবে। এই বিজ্ঞপ্তি ঘিরে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। প্রসঙ্গত, পুরসভার অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের পেনশন এবং গ্রাচ্যুইয়িটি না দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার পুরসভার বাজেট অধিবেশনে এবিষয়টি নিয়ে সরব হয়েছিলেন বিরোধীরা। কোষাগারের দুরাবস্থার কথা ভেবে অবশ্য গত কর্মীদের পুনর্নিয়োগ রাশ টানার কথা ঘোষণা করেছিলেন ফিরহাদ হাকিম। তার পরেও কেন এই বিজ্ঞপ্তি জারি করা হল তা নিয়েই উঠছে প্রশ্ন।

যদিও পুর আধিকারিকদের একাংশ জানিয়েছেন, যে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে তাতে কোন বিভাগে কত অবসরপ্রাপ্ত কর্মী রয়েছে তা জানতে চাওয়া হয়েছে তার মানে এমন নয় যে অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের পুনর্নিয়োগ করা হবে। যদিও আধিকারিকদের একাংশ এই যুক্তি মেনে নিতে নারাজ। তাদের বক্তব্য, আগের মতোই এখনও পুরসভাতে অবসরপ্রাপ্ত কর্মী নিয়োগের প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে। এ নিয়ে অবশ্য কটাক্ষ করতে ছাড়েননি বিজেপি ও কংগ্রেস কাউন্সিলরা। বিজেপি কাউন্সিলর বিজয় ওঝা বলেন, ‘এমনিতেই অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের পেনশন দিতে পারছে না তার পরেও কিভাবে অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের পুনর্নিয়োগ করা হচ্ছে! এটা তৃণমূল পরিচালিত বোর্ডের দ্বিচারিতা ছাড়া কিছু নয়।’ কংগ্রেস কাউন্সিলর সন্তোষ পাঠক বলেন, ‘পদ শূন্য রয়েছে অথচ নতুনদের সুযোগ না দিয়ে অবসরপ্রাপ্তদের নিয়োগ করা হচ্ছে। ফলে কাজও ঠিকমতো হচ্ছে না।’

বন্ধ করুন