বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > রাত হলেই হস্টেলের ছাদে অদ্ভূত আওয়াজ! অশরীরী-আতঙ্কে এই নার্সিং পড়ুয়ারা
(ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্যে রয়টার্স)
(ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্যে রয়টার্স)

রাত হলেই হস্টেলের ছাদে অদ্ভূত আওয়াজ! অশরীরী-আতঙ্কে এই নার্সিং পড়ুয়ারা

  • অনেকেই বলছেন, শুধু যে রাতের বেলাতে এমন হয়, তা নয়। দিনের বেলাতেও কিছু আওয়াজ মাঝে মাঝেই শোনা গিয়েছে বলে জানাচ্ছেন তাঁরা।

ক্রমেই অনুভূত হচ্ছে 'তেনাদের' আনাগোনা! এমনই আতঙ্ক-আশঙ্কায় কাঁপছেন বসিরহাট জেলা হাসপাতাল চত্বরের মহিলাদের জিএনএম নার্সিং ট্রেনিং স্কুলের অনেকেই। ছাত্রীরা জানাচ্ছেন, রাত হলেই আশপাশ জুড়ে অদ্ভূত আওয়াজ পেতে থাকেন তাঁরা। বিকট কিছু শব্দ সারা ক্যাম্পাস জুড়েই শুনতে পাওয়া যাচ্ছে বলে তাঁরা জানাচ্ছেন। বেশিরভাগ শব্দ বা অদ্ভূত আওয়াজ কলেজের হস্টেলের দিক থেকে আসে বলে দাবি করছেন পড়ুয়ারা।

কখনও যেন মনে হচ্ছে কেউ হেঁটে যাচ্ছে, আবার কখনও যেন মনে হচ্ছে, কেউ হাতুড়ি পেটাচ্ছে। আবার কখনও মনে হচ্ছে কোনও ভারী জিনিস দিয়ে ছাদে কেউ কিছু ঠুকছে। এমনই সমস্ত আওয়াজে কার্যত জেরবার এই নার্সিং স্কুলের পড়ুয়ারা। অনেকেই বলছেন, শুধু যে রাতের বেলাতে এমন হয়, তা নয়। দিনের বেলাতেও কিছু আওয়াজ মাঝে মাঝেই শোনা গিয়েছে বলে জানাচ্ছেন তাঁরা। এমন ঘটনায় কার্যত ভয়ে কাঁটা হয়ে রয়েছেন হস্টেলের আবাসিক ছাত্রীরা। অনেকেই জানাচ্ছেন, হস্টেলের দ্বিতীয় ও তৃতীয় বর্ষের পড়ুয়ারা যেখানে থাকেন, সেই হস্টেলের ছাদ থেকে এমন আওয়াজ বেশি করে শোনা যাচ্ছে। কিন্তু কেন এমন আওয়াজ আসছে? আসল ঘটনা কী? কোথা থেকেই বা এমন ধরনের আওয়াজ শোনা যাচ্ছে গোটা কলেজ চত্বর জুড়ে? কলেজের ছাত্রী থেকে শুরু করে অভিভাবক সকলেই বিষয়টি নিয়ে সরব হয়েছেন। জিএনএম নার্সিং স্কুলের প্রিন্সিপাল প্রীতিকণা সাহা বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করেছেন। তিনি বসিরহাট থানায় লিখিত অভিযোগও দায়ের করেছেন। এদিকে, বসিরহাটের মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক রবিউল ইসলাম গায়েনের কাছেও এই নিয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে।

এদিকে অভিযোগ পেয়ে বসিরহাট থানার পুলিশ রাতে কয়েকবার এই কলেজ চত্বরে তল্লাশি চালিয়েছে। তবে সেভাবে আওয়াজের উৎস সম্পর্কে কোনও খোঁজ মেলেনি। এদিকে, বিশ্ব জুড়ে করোনার ত্রাস, বিভিন্ন হাসপাতালে বাড়ছে করোনা রোগী, তার মাঝে নার্সিং ট্রেনিং স্কুলের এই ঘটনা উদ্বেগ বাড়িয়েছে। অন্যদিকে, এই নার্সিং কলেজে সামনেই সেমেস্টার। তার আগে , এমন অদ্ভূতুড়ে আওয়াজে আতঙ্কের বশে বহু রাত জেগে কাটাচ্ছেন অনেকেই। সকলেই চাইছেন, এই সমস্যার সমাধান।

বন্ধ করুন