বাংলা নিউজ > ভোটযুদ্ধ ২০২১ > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > হিংসাকে প্রশ্রয় দেওয়া যাবে না, দেড় ঘণ্টার বৈঠকে কমিশনের বার্তা মুখ্যসচিবকে
নবান্ন। ফাইল ছবি
নবান্ন। ফাইল ছবি

হিংসাকে প্রশ্রয় দেওয়া যাবে না, দেড় ঘণ্টার বৈঠকে কমিশনের বার্তা মুখ্যসচিবকে

  • আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে এই বৈঠকে হাজির ছিলেন কমিশনের পুলিশ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে ও বিশেষ পর্যবেক্ষক অজয় নায়েক।

বিধানসভা নির্বাচনের সূতিকালগ্নে প্রশাসনের যাবতীয় কাজকর্মের প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা করতে বুধবার নবান্নে মুখ্যসচিবের সঙ্গে বৈঠক করলেন কমিশনের উচ্চপদস্থ কর্তারা। আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে এই বৈঠকে হাজির ছিলেন কমিশনের পুলিশ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে ও বিশেষ পর্যবেক্ষক অজয় নায়েক। এই বিবেক দুবের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেই তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে তাঁকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য চিঠি দেওয়া হযেছিল। যদিও তা এখনও করা হয়নি। এই পরিস্থিতিতে কমিশনের দুই লিয়াজো অফিসারও এদিনের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বলে খবর। ঘণ্টা দেড়েকের এই বৈঠকে রাজ্যকে কড়া হাতে সব বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হয় বলে খবর।

নবান্ন সূত্রে খবর, রাজ্যের স্বরাষ্ট্র সচিবও এই বৈঠকে অংশ নেন। সেখানে কমিশনের কর্তারা তাঁদের জানান, যেভাবেই হোক এবারের নির্বাচন স্বচ্ছ এবং অবাধ করতে হবে। কোনও হিংসাকে প্রশ্রয় দেওয়া যাবে না। আর তা করতে রাজ্য সরকারের পূর্ণ সহযোগিতা চান তাঁরা। রাজ্যের পক্ষ থেকেও আশ্বাস দেওয়া হয়েছে সহযোগিতার। সূত্রের খবর, এদিনের বৈঠকে কমিশনের পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কিছু রিপোর্ট তুলে ধরে তার ব্যাখ্যা চায়। যদিও রাজ্যের পক্ষ থেকে মুখ্যসচিব কেন্দ্রের ওই রিপোর্টকে ভিত্তিহীন বলে আখ্যা দেওয়া হয়। বলা যেতে পারে, কার্যত খারিজ করে দেওয়া হয়।

জানা গিয়েছে, নির্বাচন কমিশনের পর্যবেক্ষক দল প্রশাসনের কর্তাদের বার্তা দেন, ক্ষমতাসীন শাসকদলের বিন্দুমাত্র পক্ষপাতিত্ব করা যাবে না। অভিযোগ জমা পড়লে দ্রুত তার সমাধান করতে হবে। রাজ্যের সঙ্গে নির্বাচন পর্যবেক্ষক সর্বদা যোগাযোগে রেখে চলবে। এখনও বেশ কয়েকজন অফিসারদের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ রয়েছে বলে আলোচনায় জানানো হয়। এমনকী পোস্টাল ব্যালটের কারচুপির অভিযোগও সক্রিয়ভাবে দেখতে হবে রাজ্যকে। তবে পুলিশের সঙ্গে কেন্দ্রীয় বাহিনী যাবে বলে জানানো হয়েছে।

নবান্ন সূত্রে খবর, মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় স্বচ্ছ নির্বাচন করতে পূর্ণ সহযোগিতা করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন। প্রথম দফার ভোট ২৭ মার্চ। ইতিমধ্যেই জেলায় জেলায় কেন্দ্রীয় বাহিনী রুটমার্চ শুরু করেছে। কলকাতাতেও কিছু জায়গায় এই ছবি দেখা গিয়েছে। তাছাড়া পুলিশে বেশ কিছু রদবদল করেছে নির্বাচন। একদিন আগেই রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্রকে সরিয়ে দেওয়া হযেছে। সেই বিষয়ে কোনও কথা না উঠলেও নির্বাচন কমিশনের আধিকারিকরা বুঝিয়ে দিয়েছেন তাঁরা খুব কড়া হাতে সব মোকাবিলা করবেন।

বন্ধ করুন