বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ‘লক্ষ্মী ছেলে’ সরিয়ে শুধুই ‘ব্রহ্মাস্ত্র’ চালাতে চায় এসভিএফ, বিস্ফোরক হল মালিক!
ব্রহ্মাস্ত্র-র জন্য লক্ষ্মীছেলে বন্ধ করার কথা বলছে এসভিএফ, বিস্ফোরক বাংলা সিনেমার হল মালিক। 

‘লক্ষ্মী ছেলে’ সরিয়ে শুধুই ‘ব্রহ্মাস্ত্র’ চালাতে চায় এসভিএফ, বিস্ফোরক হল মালিক!

  • এসভিএফ চাইছে বাংলায় শুধুই ব্রহ্মাস্ত্র চলবে, বন্ধ করতে বলা হল লক্ষ্মীছেলে, প্রিয়া সিনেমার হলের মালিক অরিজিৎ দত্ত এমনই টুইট করেছেন। অবশ্য জবাবও এসেছে এসভিএফের অন্যতম কর্ণধার মহেন্দ্র সোনির তরফে। 

আপাতত রমরমা বাজার ‘ব্রহ্মাস্ত্র’র। তিন দিনে রণবীর-আলিয়ার এই ছবি ভারতের বাজার থেকেই ১০০ কোটির বেশি ঘরে তুলেছে। গোটা দেশে বাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে হলের সংখ্যা, শো-র সংখ্যা। তা বলে বাংলার হল থেকে বাংলা ছবি বন্ধ করে ‘ব্রহ্মাস্ত্র’ চালাতে হবে? তাও আবার এসভিএফ হল মালিকদের জোর দেবে এমনটা করতে?

কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায় পরিচালিত উইন্ডোজ প্রোজোযিত ছবি ‘লক্ষ্মী ছেলে’ চলছে মাত্র দুটো হলে-- প্রিয়া আর নবীনা। তবে প্রিয়া হলের মালিক অরিজিৎ দত্ত এসভিএফের উপর গুরুতর অভিযোগ এনেছেন টুইট করে। লিখেছেন, ‘এটা হৃদয় ভেঙে দেয় যখন দেখি একটা বাংলা প্রযোজনা সংস্থা তাঁদের বলিউড রিলিজের জন্য চলতে থাকা একটা বাংলা ছবিকে বন্ধ করে দেওয়ার কথা বলে। শুধু তাই নয় বলে পরের সপ্তাহের বাংলা ছবির রিলিজও ক্যানসেল করে দিতে।’

আসলে ব্রহ্মাস্ত্র-র বাংলায় ডিসট্রিবিউশনের দায়িত্ব পেয়েছে এই মুহূর্তে বাংলার সবচেয়ে বড় প্রযোজনা সংস্থা এসভিএফ। আর এর আগেও এদের নামে হল থেকে ছবি তুলে দেওয়ার অভিযোগ করেছিলেন স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায় তাঁর ‘শ্রীমতী’ ছবির সময়ে। ভটভটি-র ক্ষেত্রেও একই হাল হয়েছিল।

মহেন্দ্র সোনি আর অরিজিৎ দত্তর টুইট-যুদ্ধ।
মহেন্দ্র সোনি আর অরিজিৎ দত্তর টুইট-যুদ্ধ।

প্রিয়া সিনেমার হলের মালিককে পাল্টা জবাব দিয়েছেন এসভিএফের অন্যতম কর্ণধার মহেন্দ্র সোনিও। তিনি লেখেন, ‘একদম অরিজিৎ দত্ত স্টাইলে টুইট! আপনাকে তো কেউ জোর করেনি। উলটো দিক থেকে বলতে গেলে, আপনি গরীব প্রযোজকদের থেকে টাকা নিংড়ে নেওয়ার সঙ্গে নিশ্চিত করেন যেন আপনাকে ছবিতে নেওয়া হয়। আর সেসব ক্ষেত্রে বাংলা সিনেমারই জয় হয়! এই সার্ভিস দেওয়ার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ দাদুলদা।’

 

বন্ধ করুন