বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > লাল সিং চাড্ডার ভরাডুবিতে ছবির নির্মাতাদের কাছে ক্ষতিপূরণ চাইল ডিস্ট্রিবিউটররা?

লাল সিং চাড্ডার ভরাডুবিতে ছবির নির্মাতাদের কাছে ক্ষতিপূরণ চাইল ডিস্ট্রিবিউটররা?

লাল সিং চাড্ডা খারাপ হওয়ায় এবার ক্ষতিপূরণ দিতে হবে ছবির প্রযোজনা সংস্থাকে?

চলল না আমির-করিনার জুটি। মুখ থুবরে পড়ল লাল সিং চাড্ডা প্রথম চার দিনেই। আশঙ্কা ভারতে হয়তো ছবি পেরোতে পারবে না ১০০ কোটির ঘরও। 

যতটা প্রত্যাশা ছিল বক্স অফিসে ততটা ভালো ফল করতে পারল না ‘লাল সিং চাড্ডা’। প্রায় চার বছর পর এল আমিরের নতুন ছবি। তাও আবার হলিউডের বিখ্যাত ছবি ‘ফরেস্ট গাম্প’-এর রিমেক। হলিউডের সিনেমাটা অস্কার পেয়েছিল। সেখানে হিন্দি সিনেমাটা খারাপ হতে পারে নাকি! আর তারপর গোটা দেশ পেয়েছিল তিন দিনের লম্বা ছুটি। ফলত টিকিট বিক্রি নিয়েও অনেক প্রত্যাশা ছিল ছবির ডিস্ট্রিবিউটরদের। কিন্তু কোনটাই ঠিকঠাক পূরণ হল না। 

চার দিনে আমির-করিনার এই সিনেমা আয় করেছে মাত্র ৩৭-৩৮ কোটি টাকা। যেখানে তিন মাস আগে প্রথম ৩ দিনে ‘ভুল ভুলাইয়া ২’ আয় করেছিল ৫৫ কোটি। ফিল্ম অ্যানালিসিস্টদের আশঙ্কা এই ছবিও পেরোতে পারবে না ১০০ কোটির ঘর (দেশের হিসেবে)। আর এতেই বেজায় ক্ষতির মুখে পড়তে হয়েছে সিনেমার ডিসট্রিবিউটরদের। শোনা যাচ্ছে তারা ছবির নির্মাতা ভায়াকম ১৮-র কাছে ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়েছে। আরও পড়ুন: ভিডিয়ো সেক্স না করলে ছড়িয়ে দেওয়া হবে নিষিদ্ধ ছবি, উরফিকে হুমকি পঞ্জাবি অভিনেতার

ভায়াকম ১৮-র সিইও অজিত আন্ধ্রে এই প্রসঙ্গে জানান, ‘কোনও বাইরের ডিস্ট্রিবিউটর নেই। ভায়াকম নিজেই ডিস্ট্রিবিউশনের কাজে করেছে। আর আপাতত প্রাথমিক ভাবে কোনও আর্থিক ক্ষতি হয়নি। সিনেমা বক্স অফিসে চলছে দেশে আর দেশের বাইরেও। এইসব ভিত্তিহীন খবরের কোনও মানেই হয় না।’ বেশিরভাগ বড় প্রযোজনা সংস্থা আর স্টুডিয়োর আসলে নিজস্ব ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্ক থাকে। বেশিরভাগ জায়গায় তারা সেই কাজ নিজেরাই করে থাকে। শুধু কিছু ছোট শহরে সাব-ডিসট্রিবিউটরদের দেওয়া হয় কমিশনের ভিত্তিতে। এই একই মডেলে কাজ চলেছে লাল সিং চাড্ডারও। আরও পড়ুন: ‘ফ্লপ ছবি’ লাল সিং চাড্ডা-য় কাজ করতে কত টাকা নিয়েছেন আমির-করিনা-মোনা-নাগারা?

অদ্বৈত চন্দন পরিচালিত লাল সিং চাড্ডা-তে করিনা-আমির ছাড়াও রয়েছেন করিনা কাপুর, মোনা সিং ও নাগা চৈতন্য। চলচ্চিত্র সমালোচকদের থেকেও মিশ্র প্রতিক্রিয়া পেয়েছে এই সিনেমা। যেখানে অভিনয় ও চিত্রনাট্যের মানের সমালোচনা বিশেষভাবে করেছেন অনেকেই। সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটা বড় অংশ ছবিখানা বয়কটের ডাক দিয়েছিল। সব মিলিয়ে কপাল পুড়ল আমিরের। 

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালে মুক্তি পেয়েছিল আমির খানের ‘ঠগস অফ হিন্দোস্তান’। সেই ছবিও দর্শক মনে সেভাবে জায়গা করতে পারেনি। তবে তা সত্ত্বেও সিনেমাটা প্রথম তিন দিনে দেশে আয় করেছিল ১০০ কোটি। আর প্রথম সপ্তাহে ১২৩ কোটি। তারপর খারাপ রিভিউ ও দর্শকদের সমালোচনার কারণে ব্যবসা পড়তে থাকে। এবং তা গিয়ে থেমেছিল ১৫১ কোটিতে। তবে বোঝা যাচ্ছে লাল সিং-এর ক্ষেত্রে তেমনটা হল না। প্রথম থেকেই মুখ ঘুরিয়ে নিল দর্শক। 

 

বন্ধ করুন