বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > রাজীব গান্ধীর হত্যাকারীদের মুক্তির নির্দেশ, ফের বিবেচনায় আদালতে আবেদন কেন্দ্রের

রাজীব গান্ধীর হত্যাকারীদের মুক্তির নির্দেশ, ফের বিবেচনায় আদালতে আবেদন কেন্দ্রের

রাজীব গান্ধীর হত্যাকারীদের মুক্তির নির্দেশ দিয়েছিল আদালত। সংগৃহীত ছবি।

২১শে মে ১৯৯১ সালে হত্যা করা হয়েছিল তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীকে। ভয়াবহ সেই রাত। তামিলনাড়ুর শ্রীপেরামবুদুরে একটি নির্বাচনী সভাতে হামলা হয়েছিল রাজীবের উপর। আত্মঘাতী হামলা চালিয়েছিল ধানু নামে এক মহিলা।

উৎকর্ষ আনন্দ

প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর হত্য়াকাণ্ডের ঘটনায় জড়িত ৬জনকে মুক্তির নির্দেশকে ফের বিবেচনার জন্য সুপ্রিম কোর্টে আবেদন জানাল কেন্দ্র। কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে, যে নির্দেশের কথা বলা হচ্ছে তা আইনত ত্রুটিপূর্ণ। কেন্দ্রের দাবি, এনিয়ে বক্তব্য রাখার মতো সুযোগই মেলেনি।

গত ১১ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্ট রাজীব গান্ধী হত্যাকাণ্ডে জড়িত নলিনী শ্রীহরণ ও আরও পাঁচজনকে মুক্তির আবেদন মঞ্জুর করেছিল। তারা প্রায় তিন দশক ধরে জেল খাটছিলেন। এর আগে এজি পেরারিভালানকে মুক্তির ব্যাপারে যে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল সেটা পরবর্তী অন্য়ান্য়দের ক্ষেত্রেও প্রযুক্ত হয়েছে বলে জানিয়েছিল শীর্ষ আদালত।

এদিকে নলিনীর স্বামী ভি শ্রীহরণ ওরফে মুরুগানের স্থির বিশ্বাস যে তাঁর স্ত্রী নিরাপরাধ। দেশের মধ্যে সবথেকে দীর্ঘদিন ধরে বন্দি ছিলেন নলিনী। ১৯৯১ সালে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। তখন তার বয়স ছিল ২৪ বছর। তখন তিনি একটি বেসরকারি ফার্মে স্টেনোগ্রাফার পদে কাজ করতেন। সেই সময় মুরগানের সঙ্গে তার আলাপ হয়েছিল। সেই সময় মুরগান ছিলেন এলটিটিইর সদস্য।

প্রসঙ্গত ২১শে মে ১৯৯১ সালে হত্যা করা হয়েছিল তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীকে। ভয়াবহ সেই রাত। তামিলনাড়ুর শ্রীপেরামবুদুরে একটি নির্বাচনী সভাতে হামলা হয়েছিল রাজীবের উপর। আত্মঘাতী হামলা চালিয়েছিল ধানু নামে এক মহিলা। সেই ঘটনায় জড়িতদের মুক্তির নির্দেশ দিয়েছিল আদালত।

বন্ধ করুন