বাড়ি > ঘরে বাইরে > জামিয়াকাণ্ডে পালটা ভিডিয়ো ফুটেজ দিল্লি পুলিশের, ঘনাল রহস্য
এই ছাত্রের হাতেই দেখা গিয়েছে পাথরখণ্ড, দাবি পুলিশের।
এই ছাত্রের হাতেই দেখা গিয়েছে পাথরখণ্ড, দাবি পুলিশের।

জামিয়াকাণ্ডে পালটা ভিডিয়ো ফুটেজ দিল্লি পুলিশের, ঘনাল রহস্য

  • নতুন ভিডিয়ো ফুটেজে জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই রিডিং হলে আশ্রয় নিতে আসা এক ছাত্রের হাতে পাথরের টুকরো দেখা গিয়েছে।

জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারে পড়ুয়াদের উপরে পুলিশের লাঠিচার্জের ভিডিয়োর পাশাপাশি নতুন এক ভিডিয়ো ঘিরে রহস্য ঘনাল।

রবিবার জামিয়া কো-অর্ডিনেশন কমিটি প্রকাশিত ৪৫ সেকেন্ডের ভিডিয়ো ফুটেজে দেখা গিয়েছে, রিডিং হলে বসে থাকা পড়ুয়াদের উপরে বেধড়ক লাঠিচার্জ করছেন উর্দিধারী পুলিশকর্মীরা। কমিটির দাবি, ১৫ ডিসেম্বর সিএএ বিরোধী বিক্ষোভের জেরে এম.এ/এম.ফিল বিভাগের রিডিং হলে আশ্রয় নেওয়া পড়ুয়াদের উপরে নিগ্রহ চালায় দিল্লি পুলিশ।

ফুটেজে দেখা গয়েছে, পুলিশ ঢোকার আগে রিডিং হলে প্রবেশ করা ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। অনেককেই দেখা যায় মরিয়া হয়ে আত্মগোপন করার চেষ্টা করছেন। কয়েকজন রিডিং হলের টেবিল দরজার সামনে টেনে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেন। এরপর সেখান পুলিশ ঢুকে পড়ুয়াদের নির্বিচারে লাঠিপেটা করতে থাকে। কয়েকজন পড়ুয়া বাইরে বেরোনোর চেষ্টা করলে তাঁদেরও বেধড়ক মারধর করা হয়।

এই ভিডিয়ো নিয়ে বিরোধীদের আক্রমণের মাঝেই এ দিন দ্বিতীয় একটি ভিডিয়ো ফুটেজ সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ করা হয়। দিল্লি পুলিশের তরফে প্রচারিত এই ভিডিয়ো ফুটেজে জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই রিডিং হলে আশ্রয় নিতে আসা এক ছাত্রের হাতে পাথরের টুকরো দেখা গিয়েছে। পুলিশের দাবি, এমনই কিছু ‘সশস্ত্র’ পড়ুয়া ১৫ ডিসেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ে হিংসা ছড়ানোর চেষ্টা করেছিল।

ঘটনার পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের রিডিং হলে প্রবেশের অভিযোগ সরাসরি অস্বীকার করেছিল দিল্লি পুলিশ। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও দাবি করেছিলেন, ওই দিন রিডিং হলে পুলিশ লাঠিচার্জ করেনি। কিন্তু এ দিনের প্রথম ভিডিয়ো সেই দাবির সত্যতা সম্পর্কে প্রশ্ন তুলে দিয়েছে।

নিজেদের আগের বিবৃতির সমর্থনে পেশ করা দ্বিতীয় ভিডিয়োর ভিত্তিতে কিছুটা আত্মপক্ষ সমর্থন করার চেষ্টা করলেও বিরোধীদের তোপের মুখে পড়েছে দিল্লি পুলিশ।েন্ডের

বন্ধ করুন