বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Giant Fish of 180 Kg: নদী থেকে উঠে এল দানবীয় ১৮০ কেজির মাছ! শিউরে ওঠার মতো ছবি ভিডিয়োয় ধরা পড়ল

Giant Fish of 180 Kg: নদী থেকে উঠে এল দানবীয় ১৮০ কেজির মাছ! শিউরে ওঠার মতো ছবি ভিডিয়োয় ধরা পড়ল

প্রকাণ্ড স্টিং রে মাছ উঠে এল কম্বোডিয়ায়।  (Photo by Chhut Chheana / Wonders of the Mekong / AFP)  (AFP)

কম্বোডিয়ার মেকং নদীতে বিভিন্ন ধরনের মাছ দেখা যায়। তবে এমন এক ১৩ ফুটের মাছ ঘিরে সেখানে তোলপাড় শুরু হয়েছে। এই মাছকে তার পছন্দের বসবাসের এলাকায় ফিরতে দেখে খুশি পরিবেশপ্রেমীরা। ৪,৩৫০ কিলোমিটার দীর্ঘ মেকং নদীতে অন্তত হাজারটি ভিন্ন প্রজাতির বিরল মাছ রয়েছে।

মাছপ্রেমীরা এই দৃশ্য দেখার পর ভাতপাতে মাছ খেতে বসে কতটা সুখ পাবেন জানা নেই! ধরুণ সরষে-পোস্ত দিয়ে মাছের ঝোল ভাতে মেখে খেতে বসেছেন, আর তখনই এই বিশাল দানবীয় আকারের মাছের কিলবিল করে চলা দৃশ্যটি মনে পড়ল! তাহলে মাছ খাওয়ার সুখে খানিকটা বিঘ্ন ঘটতে পারে। যে মাছের কথা বলা হচ্ছে, তা বিরল স্টিং রে প্রজাতির মাছ।

১৮০ কেজির এই মাছ উঠে এসেছে নদী থেকে। কম্বোডিয়ার মেকং নদীতে ধরাল পড়েছে এই মাছ। মূলত স্টিং রে প্রজাতির মাছ আজ বিপন্ন। আর সেই মাছই ধরা পড়েছে ১৮০ কেজি ওজনের। এমন মাছ জালে আসতেই হতবাক হন মৎস্যজীবীরা। ১৩ ফুট লম্বা এই মাছ নজীর জলের মধ্যে ধীরে ধীরে আসতে দেখেই সতর্ক হন মৎস্যজীবীরা। এরপর এই বিপন্ন প্রজাতির মাছকে ফের একবার জলেই পাঠিয়ে দেওয়া হয়। ধীরে ধীরে কাদার মধ্যে ঢুকে যায় মাছটি। মেঠো নদী মেকংয়ের জলে সে হারিয়ে যায়। উল্লেখ্য, কম্বোডিয়ার মেকং নদীতে বিভিন্ন ধরনের মাছ দেখা যায়। তবে এমন এক ১৩ ফুটের মাছ ঘিরে সেখানে তোলপাড় শুরু হয়েছে। তবে শোনা যায় স্টিং রে ৩০ ফুট পর্যন্ত লম্বা হতে পারে।   নতুন ফ্ল্যাটে লাইট লাগানো, আসবাব কেনা নিয়ে উদ্বেগে! চিন্তা দূর করবে এই সহজ টিপস

এই বিরল প্রজাতির মাছটি লিঙ্গ অনুযায়ী মহিলা। এই মাছকে তার পছন্দের বসবাসের এলাকায় ফিরতে দেখে খুশি পরিবেশপ্রেমীরা। ৪,৩৫০ কিলোমিটার দীর্ঘ মেকং নদীতে অন্তত হাজারটি ভিন্ন প্রজাতির বিরল মাছ রয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ার দীর্ঘতম নদী এটি। এখানে শুধু স্টিং গ্রে প্রজাতির মাছই ছড়িয়ে নেই। সঙ্গে রয়েছে ক্যাট ফিশরাও। বহুবার এখানে দানবীয় ক্যাটফিশও পাওয়া গিয়েছে। তবে বিভিন্ন সময় শোনা যায় যে এই এলাকায় এই বিপন্ন প্রজাতির বহু মাছকে জাল তুলে নিয়ে তাদের মারা হয়। যা রোধ করতে বিভিন্ন রকমের তৎপরতা নিয়েছে কম্বোডিয়ার সরকার।

 

বন্ধ করুন