বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > পাখির বৈচিত্রে দ্বিতীয়স্থানে বাংলা, পিছিয়ে রয়েছে কাশ্মীর, হিমাচল
মুম্বইতে ফ্লেমিঙ্গো পাখির দল। (PTI Photo) (PTI)

পাখির বৈচিত্রে দ্বিতীয়স্থানে বাংলা, পিছিয়ে রয়েছে কাশ্মীর, হিমাচল

  • মূলত হিমালয় সংলগ্ন রাজ্যগুলিতে এই সমীক্ষা চালানো হয়েছিল। মূলত হিমালয়ান পাখির প্রজাতি সেই রাজ্যগুলিতে কত রয়েছে সেটা দেখা হয়। আর সেই সমীক্ষায় উঠে এসেছে চমকপ্রদ ছবি। দেখা যাচ্ছে এই বাংলা একেবারে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে হিমালয়ান পাখির প্রজাতির সংখ্যার নিরিখে। কার্যত হরেক পাখির মেলা এই বাংলায়।

হিমালয়ান পাখির সংখ্যার নিরিখে এবার গোটা দেশের মধ্যে উল্লেখযোগ্য স্থানে এই বাংলা। উত্তরাখণ্ডের পরেই দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ। সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে উত্তরাখন্ডে সবথেকে বেশি হিমালয়ান পাখির প্রজাতি রয়েছে। সংখ্যাটা ২৯৪। আর পশ্চিমবঙ্গ রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে। এখানকার পাখির প্রজাতির সংখ্যা ২৮৪। পরবর্তী স্থানে রয়েছে অরুণাচল প্রদেশ(২৩৪), মহারাষ্ট্র( ২২৮), তামিলনাড়ু(২২১), কর্ণাটক (২২১), ও হিমাচল প্রদেশে ২১৭টি প্রজাতির পাখির দেখা মিলেছে।

গত ১৪ মে বার্ড কাউন্ট ইন্ডিয়া, বার্ড কনজার্ভেসন নেপাল ও ভুটানের রয়্যাল সোসাইটি ফর প্রটেকশন অফ নেচারের উদ্যোগে এই সমীক্ষা হয়েছে। বিজ্ঞানী, পক্ষী প্রেমিকরা এই সমীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিলেন। তিতলি ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা সঞ্জয় সোন্ধি জানিয়েছেন, হিমালয় অধ্যুষিত রাজ্যগুলিতে কত ধরনের পাখির প্রজাতি রয়েছে তা  নিয়ে এখনও পর্যন্ত পূর্ণাঙ্গ সমীক্ষা হয়নি। এই ধরনের সংগঠিত সমীক্ষা এই প্রথম হল। এই সমীক্ষার মাধ্যমে পাখিদের সম্পর্কে জানা যাবে। আবহাওয়ার এই পরিবর্তন পাখিদের জীবনযাত্রায় কী ধরনের প্রভাব ফেলছে সেটাও এই সমীক্ষার মাধ্যমে কিছুটা আঁচ করা সম্ভব হবে।

এদিকে দেখা যাচ্ছে উত্তরাখন্ডে সবথেকে বেশি বার্ড ওয়াচার্সরা রয়েছেন। সঞ্জয় সোন্ধি জানিয়েছেন, দেশের অন্য়ান্য হিমালয়ান স্টেটের তুলনায় উত্তরাখন্ডের বাস্তুতন্ত্র অত্য়ন্ত ভালো। এখানকার লোকেশন অত্যন্ত সুন্দর। নানা প্রজাতির পাখি, নেচার গাইড, প্রকাশনা সহ পাখি সংরক্ষণের নানা বিষয় রয়েছে উত্তরাখন্ডে। অন্যদিকে জম্মু কাশ্মীরে ১৯৩টি পাখির প্রজাতি, লাদাখে ১০৪টি, মেঘালয়ে ৫৬টি, ত্রিপুরায় ৭৭ ও সিকিমে ১৫৭টি প্রজাতির সন্ধান মিলেছে।

বন্ধ করুন